শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রোহিঙ্গা সংকট; আগামীর বাংলাদেশ: এক বিপদের ঘনঘটা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৪, ২০২১
news-image

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক:
রোহিঙ্গা একটি নির্যাতিত, নিপীড়িত জাতির নাম ৷ ধর্মীয় এবং মানবিক কারনে বাংলাদেশ বরাবরই রোহিঙ্গাদের প্রতি ছিলো সংবেদনশীল ৷ কিন্তু দ্রুত রোহিঙ্গা সংকট সমাধান না হওয়া, আশ্রিতদের উচ্চ জন্মহার ও অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি এবং তাদের সাম্প্রতিক বিভিন্ন কার্যকলাপ দেশের জন্য বুমেরাং হয়ে দাড়াচ্ছে এবং দেশকে এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতে ঠেলে দিচ্ছে যা বর্তমান মধ্যপ্রাচ্য সংকটের মতই পূর্বাভাস দিচ্ছে ৷

প্রধানত, নাগরিকত্বের প্রশ্নে; ধর্মীয় সংখ্যালঘুত্ব, ক্রমাগত মানবাধিকার লঙ্ঘন ও অস্পষ্ট নাগরিকত্ব- মূলত এই তিন কারণেই চাপের মুখে দেশ ছাড়তে শুরু করেন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা গোষ্ঠীর মানুষ৷ ২০১২ সালে মিয়ানমারের রাখাইন অঞ্চলে দাঙ্গা বাধে, ফলে চাপ আরো ঘনীভূত হয়৷ ১৯৯০র দশক থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গা দেশছাড়া, বলছে জাতিসংঘ ৷ জাতিসংঘের শরণার্থী কমিশন (ইউএনএইচসিআর) জানাচ্ছে, ২০১২ থেকে রোহিঙ্গারা ছোট ছোট দলে বাংলাদেশে আসলেও, ২০১৭ সালের আগস্ট মাস থেকে তাদের আগমনের হার বেড়ে যায়৷ বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়েছে৷ এছাড়াও রোহিঙ্গারা রয়েছে ভারত, ফিলিপাইনস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া বা ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশেও৷
কিন্তু বাংলাদেশে এর সবচেয়ে বেশী নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে ফলে একটা সামগ্রিক পর্যালোচনা প্রয়োজনঃ
সাম্প্রতিক সময়ে, নোয়াখালীর ভাসানচরের শিবিরের রোহিঙ্গারা বেশ কিছু দাবী উপস্থাপন করে বিক্ষোভ করেছেন। তা যথাক্রমে:ক.মাসে পাঁচ হাজার টাকা ভাতা, খ.সকল নাগরিক সুবিধা নিশ্চিতকরণ, গ. মানসম্পন্ন রেশন, ঘ.কর্মসংস্থান, ঙ.পর্যাপ্ত চিকিৎসার ব্যবস্থা।

জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা  এর প্রতিনিধি দলের সামনে রোহিঙ্গারা এ বিক্ষোভ করে।
ফলে সামনের দিনগুলোতে কি বাংলাদেশের নাগরিকত্ব এবং ভূখন্ড চাইবে রোহিঙ্গারা? প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে ৷
সেইসাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রোহিঙ্গাদের অপরাধ প্রবণতা-

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ বছরে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিরুদ্ধে ১২ ধরনের অপরাধে কমবেশি ৭৩১টি মামলা হয়েছে। যাতে আসামি হয়েছেন ১ হাজার ৬৭১ জন রোহিঙ্গা। এসব অপরাধের মধ্যে আছে- অস্ত্র, মাদক, ধর্ষণ, অপহরণ, বিশেষ ক্ষমতা আইন, পুলিশ আক্রান্ত, ডাকাতি বা ডাকাতির প্রস্তুতি, হত্যা, মানব পাচার ইত্যাদি। এর মধ্যে ৫৩টি খুন, ৪১০টি মাদক, ২৮টি মানব পাচার, ৫৯টি অস্ত্র, ৩৫টি ধর্ষণ ও ১০টি ডাকাতি এবং ১৬টি অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের মামলা উল্লেখযোগ্য।

এছাড়াও বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারীদের মধ্যে যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ার হার ক্রমশ বাড়ছে এবং বাংলাদেশি পাসপোর্টের মাধ্যমে বিদেশে পাচারের চেষ্টা চলছে ৷ এমনকি বিভিন্ন সময় সাংবাদিক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহির সদস্য এবং ত্রাণ কর্মীদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে৷ কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে জার্মানির তিন সাংবাদিক ও পুলিশসহ ৬ জনকে বেদম মারধরের এবং তাদের ব্যবহৃত মাইক্রোবাসে ভাংচুরের খবর ও সামনে আসে ২০১৯ সালে ৷

পক্ষান্তরে বিভিন্ন দাবী নিয়ে বিভিন্ন সময় রোহিঙ্গাদের সমাবেশ করতেও দেখা গেছে ৷ মায়ানমারে প্রত্যাবর্তনে অনিহা পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তুলছে এমন কি সরকারকে হুমকি দিতেও দেখা গিয়েছে ৷ ২০১৯ সালের আগষ্ট মাসে, রোহিঙ্গারা এক বিশাল সমাবেশে বলেছে, “একজন রোহিঙ্গাকেও ফেরত পাঠানোর চেষ্টা করা হলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠবে। মিয়ানমারের নাগরিকত্ব ছাড়া তাদের কেউই কখনো ফিরবে না।” এমনকি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আটক এবং নির্যাতনের অভিযোগ তুলে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্থ করা হয়েছে৷
অপরদিকে সৌদি আরবে অবস্থানরত কমপক্ষে ৫৪,০০০ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশের পাসপোর্ট দিতে চাপ, রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী জাল পাসপোর্ট এবং জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার, ব্যাপক বন উড়ার ও ভূমি দখলের মাধ্যেমে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে সংখ্যালঘুতে পরিনত করার মাধ্যমে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন অনিশ্চিত, বাংলাদেশে স্থায়ী বসবাস, এবং নাগরিকত্ব এবং ভূখন্ড চাওয়ার আশংকা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না ৷ যদি তাই হয় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে বিশ্ব আরেকটি ফিলিস্তিন সংকট দেখতে পাবে ৷ ফলে মায়ানমারে প্রত্যাবর্তেন বিকল্প নেই ৷

তবে প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া এবং রোহিঙ্গা গণহ্ত্যার বিচার খুব সহজ নয় বরং জটিলতর হচ্ছে, তা বলার যথেষ্ট কারণও রয়েছে; একদিকে মিয়ানমারের মানবাধিকার সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক ঘোষণা ও সনদগুলোকে ক্রমাগত অস্বীকার করে চলা , অন্যদিকে প্রভাবশালী দেশ ও সংস্থাগুলো রোহিঙ্গাদের গণহত্যা থেকে রক্ষা করার ক্ষেত্রে স্বীকৃত আন্তর্জাতিক চুক্তি ও কনভেনশনের বাস্তবিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হওয়া, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ এবং নিরাপত্তা পরিষদের কার্যকর পদক্ষেপ নিতে না পারা, নিরাপত্তা পরিষদে রেজুলেশন পাসের ক্ষেত্রে ভেটো প্রদান, আন্তর্জাতিক আইনের কার্যকর প্রয়োগের অভাব, আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মায়ানমারে বিরুদ্ধে মামলা হলেও মামলার ধীরগতি, আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের রায়ের কার্যকরী প্রয়োগের সল্পতা, আঞ্চলিক প্রভাবশালী দেশ ও সংস্থাগুলো তাদের ভূ-কৌশলের বিষয়গুলোকে অধিক গুরুত্ব দেওয়ার মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে তেমন কার্যকর ভূমিকা রাখতে না পারা, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদাসীনতা এবং কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়া ও কিছুক্ষেত্রে শুধু বিবৃতি প্রদানে সীমাবদ্ধ থাকা, আবারও মায়নমারে সামরিক জান্তা সরকারের ক্ষমতা দখল এবং গনতন্ত্রকে হত্যা ৷

এছাড়াও বাংলাদেশের সাথে শত্রুভাবাপন্ন মনোভাব পোষন, স্থল সীমান্ত এবং সমুদ্রসীমা বিরোধ, বিভিন্ন সময় মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী কর্তৃক বিজিবি এবং সাধারন নাগরিক ধরে নিয়ে যাওয়া ও নির্যাতন, সীমান্ত সংঘাত এবং সীমান্ত যুদ্ধ, বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে সৈন্য সমাবেশ, কাঁটাতারে বেড়া নির্মাণ, সীমান্তে সামরিক পরিকাঠামো তৈরী রোহিঙ্গা সংকটের শান্তিপূর্ণ এবং সহজ সমাধানের পথ অনিশ্চিত এবং কঠিন করে তুলেছে ৷

এ সংকট যদি আরও দীর্ঘতর হয় তাহলে বাংলাদেশ আরও দীর্ঘমেয়াদি সংকটে পড়বে ৷ রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে দীর্ঘকাল অবস্থান করলে তিন ধরনের সমস্যা হতে পারে৷
১. নিরাপত্তা ঝুঁকি
২. সামাজিক সমস্যা
৩. রাজনৈতিক সমস্যা

এখানে বলাবাহুল্য যে, রোহিঙ্গাদের জন্য বিদেশী ফান্ডিং দিন দিন কমছে।এখন দেশের নাগরিকদের বাজেট থেকেই প্রতিমাসে রোহিঙ্গাদের ভরণপোষণে খরচ করতে হচ্ছে ৷ দেশের করোনা পরিস্থিতি, বন্যা পরিস্থিতি, বেকারত্ব সহ নানা অবস্থা বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন সময়ের দাবী গুলো কতটা যৌক্তিক?
সামনের দিনগুলোতে সাম্প্রতিক সময়ে ভাতা চেয়ে বিক্ষোভ করা রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব কিংবা ভুখন্ড দাবী করে বসবেনা এর নিশ্চয়তা কি?

ফলে রোহিঙ্গাদের জন্মবিরতিকরন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য করতে হবে। এখন প্রায় ১৬ লাখের মত রোহিঙ্গা দেশে রয়েছে। প্রতি বছর যুক্ত হচ্ছে ১ লক্ষাধিক শিশু।

এবং রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্যে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে যেমনঃ মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির লক্ষ্যে বৈশ্বিক ঐকমত্য সৃষ্টি এবং আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য প্রভাবশালী দেশগুলোকে কাজে লাগানোর লক্ষ্যে কূটনৈতিক তৎপরতা চালাতে হবে। রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানের জন্য আসিয়ান এবং ওআইসির উল্লেখযোগ্য দেশগুলোর মধ্যে ধারাবাহিকভাবে সংলাপ শুরু করার জন্য বাংলাদেশকে উদ্যোগ নিতে হবে । দ্বিপক্ষীয় বা বহুপক্ষীয় সংলাপে, আলোচনা ও মতৈক্যের বিষয়গুলোতে রোহিঙ্গাদের যৌক্তিক দাবিদাওয়াকে (যেমন তাদের নৃতাত্ত্বিক পরিচয়ের স্বীকৃতি, নাগরিক ও ধর্মীয় অধিকার, জমি ফিরে পাওয়া এবং প্রত্যাবাসনের পর নিরাপত্তার নিশ্চয়তা ইত্যাদি) গুরুত্ব দিতে হবে, যেন স্বেচ্ছা প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া কার্যকর হয় । এছাড়াও ১৯৪৮ সালে স্বাক্ষরিত সর্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণাপত্র এবং ২০০৫ সালের ‘রেসপনসিবিলিটি টু প্রটেক্ট’ (R2P) বাস্তবায়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তথা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ তাদের বাধ্যবাধকতা অস্বীকার করতে পারে না ফলে বাংলাদেশকে তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে সফলতা ঘরে তুলতে হবে ।

পরিশেষে, দেশের মানচিত্র পরিবর্তন হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে হলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতেই হবে। না হলে সামনের দিনগুলোতে রোহিঙ্গারা ভুখন্ড দাবী করতে পারে এবং সে জন্য বহি-বিশ্বের সমর্থনে গণভোটের ও আয়োজন করে বসতে পারে। এখনই সাবধান হওয়া সময়ের দাবী এবং এর কোন বিকল্প নেই।

লেখকঃ

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক,

শিক্ষানবিশ আইনজীবী, ঢাকা বার এসোসিয়েশন, ঢাকা৷

শিক্ষার্থী, ই.এলএল.এম. (রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়) এল.এল.বি. (অনার্স) ইষ্ট ওয়েষ্ট ইউনিভার্সিটি, ঢাকা ।

আর পড়তে পারেন