বৃহস্পতিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

৫৫ বছর পর আবারো ট্রেন চলাচল: উদ্বোধন করবেন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৬, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরেই রচিত হবে ইতিহাস। বৃহস্পতিবার (১৭ই ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ডোমার উপজেলার চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ি রেল রুটের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশেরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উদ্বোধনের পরেই রচিত হবে ইতিহাস। সুদীর্ঘ ৫৫ বছর পর আবারো এই রুট দিয়ে চলাচল করবে ট্রেন। অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হবে এই অঞ্চলের মানুষ।

মাহেন্দ্রক্ষণের জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন নীলফামারীসহ পার্শ্ববর্তী জেলার মানুষও। ইতিমধ্যে উদ্বোধনের যাবতীয় প্রস্ততি শেষ করা হয়েছে। সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। মানুষজন যেন সীমান্ত এলাকায় না যায় সে জন্য সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। উদ্বোধনের শুরুতেই বাংলাদেশের ট্রেন প্রবেশ করবে ভারতে। আর সেটাই দেখার অপেক্ষার প্রহর গুনছেন সবাই। শুরুতে শুধুমাত্র পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল করবে।

চিলাহাটি ষ্টেশনে দেখা যায়, ব্যস্ততা বেড়ে গেছে বহুগুন। চিলাহাটি রেলষ্টেশনে ওয়াগানের একটি মালগাড়িকে সাজানো হয়েছে। ইঞ্জিনের সামনে লাগানো হয়েছে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর ছবি। ফুল ও রঙ্গিন কাপড়ে সাজানো হয়েছে ইঞ্জিন ও গার্ডের কামরা। এর পাশাপাশি চিলাহাটি রেলষ্টেশন চত্বরকে অপরূপ রুপে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। স্থাপন করা হয়েছে দুই দেশের প্রধানমস্ত্রীর উদ্বোধনের নামফলক। উদ্বোধনের প্রস্তুতি দেখার জন্য ও প্রস্তুতিমূলক কাজ দেখার জন্য একাধিকবার এসেছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। পরিদর্শন করেছেন ভারতের নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনারসহ একাধিক কর্তা-ব্যক্তি।

রেলরুট চালু হলে বদলে যাবে এই এলাকার চিত্র। মানুষজন ব্যবসার মাধ্যমে লাভবানের পাশাপাশি অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে এলাকাবাসী। বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জব্বার সুদীর্ঘ ৫৫ বছর পর আবারো চিলাহাটি দিয়ে ভারতে ট্রেন রুট চালু হওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করে আবেদন করেন, শুধু পণ্যবাহী নয় যাত্রীবাহী ট্রেনও যেন এই রুট দিয়ে চলাচল করার ব্যবস্থা করা হোক।

চিলাহাটির আরেক বাসিন্দা লিজন বলেন, এই অঞ্চলের মানুষের স্বপ্ন সত্যি হতে চলেছে। আর একটা স্বপ্ন হলো স্থলবন্দর চালু হওয়া। চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রুটে ট্রেন চলাচল শুরু হলে ব্যবসায়িকভাবে লাভবান হবে দুই দেশের মানুষ। আগে এই অঞ্চলের মানুষদের প্রায় ৩০০ কিলোমিটার দুর দিয়ে ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করতে হতো ফলে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতো ব্যবসায়ীরা। এখন চিলাহাটি দিয়ে পণ্য গেলে অর্থ সাশ্রয় ঘটবে ব্যবসায়ীদের।

আর পড়তে পারেন