বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

৪ বছরে প্রতিশ্রুতির অর্ধেকও বাস্তবায়ন করেননি কুসিক মেয়র সাক্কু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:

চার বছর পূর্ণ হয়েছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের দ্বিতীয় মেয়াদের নির্বাচনের।  ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ আওয়ামী লীগের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপির মনিরুল হক সাক্কু। নির্বাচনের আগে ২৪ মার্চ সংবাদ সম্মেলনে ২৭ দফা উচ্চাভিলাষী ইশতেহার ঘোষণা করেন তিনি। কিন্তু তার দায়িত্ব পালনের চার বছরে প্রতিশ্রুতির অর্ধেকও বাস্তবায়ন হয়নি।

২০১১ সালের ১০ জুলাই কুমিল্লা সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠা হয়। ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারির প্রথম নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ অ্যাডভোকেট আফজল খান এবং ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ দ্বিতীয় নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী আফজলকন্যা আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে পরাজিত করে বিজয়ী হন বিএনপির মনিরুল হক সাক্কু। এর আগে ২০০৫ সালের বিলুপ্ত কুমিল্লা পৌরসভার চেয়ারম্যান কামাল চৌধুরীর মৃত্যুতে উপনির্বাচনে এবং ২০০৯ সালের ১৬ নভেম্বর দ্বিতীয় মেয়াদে পৌরসভার চেয়ারম্যান হন সাক্কু।

দ্বিতীয় কুসিক নির্বাচনের আগে সংবাদ সম্মেলনে ১১ পৃষ্ঠার ২৭ দফা উচ্চাভিলাষী ইশতেহার ঘোষণা করেন সাক্কু। তার প্রতিশ্রুতির মধ্যে ছিল পুরাতন গোমতী নদীতে ঢাকার হাতিরঝিলের আদলে বিনোদন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা, হোল্ডিং ট্যাক্স না বাড়ানো, নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরানীর নামে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, লালমাই ও ময়নামতি পাহাড়ের নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী ত্রিপুরাদের জন্য মাতৃভাষা কেন্দ্র স্থাপন, শচীন দেব বর্মণের নামে সংগীত কলেজ প্রতিষ্ঠা, কুমিল্লা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় অথবা কুমিল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, নগরের দক্ষিণাঞ্চলে মেয়েদের জন্য দুটি ও নগরীর পশ্চিম অংশে ছেলেদের জন্য একটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন, কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সিটি করপোরেশনের আওতায় আনা, জলাবদ্ধতা এবং যানজট নিরসন, নগরীকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করা। কুমিল্লা বিভাগের বিষয়েও নানা প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু গত চার বছরে এসবের একটিও বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি।

কুসিক সূত্র জানায়, জাইকা, ডিপিপি, এমজিএসপি, রাজস্ব তহবিল, উন্নয়ন সহায়তা তহবিল থেকে গত চার বছরে প্রায় ৬০০ কোটি টাকার আরসিসি রাস্তা, ড্রেন, কালভার্ট, খাল খনন, সড়কবাতি, মসজিদ, বাস টার্মিনাল, সিটি পার্ক উন্নয়নসহ নানা উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ করা হয়। এর মধ্যে কিছু কাজ এখনও চলমান।

এ বিষয়ে মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, আমার মেয়াদের চার বছরের মধ্যে এক বছর গেছে করোনায়। তাই উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নানা কারণে স্থবিরতা ছিল। তবে সিটির উন্নয়নে কুমিল্লার কৃতি সন্তান স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। এরই মধ্যে সাড়ে ১৫শ কোটি টাকার ডিপিপি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে আছে। সেটি একনেকে অনুমোদনের পর এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শুরু হলে তা ২০২৪ সালের জুনে শেষ হবে। এসব প্রকল্প সম্পন্ন হলে কুসিকের চেহারা পাল্টে যাবে।

সূত্র: সমকাল।

আর পড়তে পারেন