শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

২৪৩ বছরের বিশ্বখ্যাত ফ্যাশন ব্র্যান্ড ডেবেনহ্যামস শুধুই স্মৃতি!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৬, ২০২১
news-image

 

তারিকুল ইসলাম, লন্ডন থেকে:
আমি লন্ডনে থাকি আজ প্রায় ৩ দশক। ভাগ্যান্বেষনে কাতার থেকে যে সময়ে লন্ডনে আসি; তখন আমি উঠতি যুবক। বিয়ে করিনি। লন্ডন শহরে প্রাণখুলে ঘুরে বেড়াই। পছন্দের জিনিসপত্র কিনি। বিশেষ করে ফ্যাশনেবল জিনিসপত্র ছিল আমার খুব প্রিয়। নামকরা ব্র্যান্ডের ঘড়ি, বেল্ট, সানগ্লাস, জুতা, প্যান্ট, শার্ট, ব্যাগ ইত্যাদি আমি বিশ্বখ্যাত যতো ব্র্যান্ড রয়েছে; এগুলো থেকে কিনি। এর মধ্যে আমার প্রিয় একটি ব্র্যান্ড ডেবেনহ্যামস। প্রায় ২৪৩ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী এ ব্যান্ডের কোন পণ্য কিনতে পারলে মনটা ভরে যেত। বন্ধুদের সাথে গল্প করতাম, দেখ ঘড়িটা ডেবেনহ্যামস থেকে কিনেছি। এমন কোন মাস নেই যেখান থেকে আমি কিছু কিনিনি। এত প্রিয়, এত প্রসিদ্ধ, এত আবেগ-ভালোবাসার এই ব্র্যান্ডটি চিরতরে বন্ধ হয়ে গেল। যে ব্র্যান্ড আমার রুচি, পছন্দ আর আভিজাত্য বাড়িয়ে দিয়েছিল; আমার চোখের সামনে এর দরজা বন্ধ হয়ে গেল। আমার যৌবনের ডেবেনহ্যামসের বন্ধ আউটলেটের সামনে আমার মেয়েরা ছবি তুলে ইতিহাসের অংশ হলেও, আমার মন কাঁদছে! আহা ডেবেনহ্যামস! আহা আমার কত স্মৃতি, অনুরাগের ডেবেনহ্যামস!

করোনা শুধু মানুষ নিয়ে যাচ্ছে না; শত শত বছরের স্মৃতি, আবেগ, ভালোবাসাও কেড়ে নিচ্ছে। প্রজন্মের পর প্রজন্ম যাকে নিয়ে গর্ব করতো, আবেগে আন্দোলিত হতো; সেই রকম স্মৃতিমাখা বিশ্বখ্যাত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ডেবেনহ্যামস বন্ধ হয়ে গেল! বিশ্বজোড়া খ্যাতি নিয়ে শত শত বছর বাপ-দাদাদের প্রিয় প্রতিষ্ঠানটি একেবারেই বন্ধ হয়ে গেল।

আর কোনো স্টোর থাকছে না যুক্তরাজ্যের বিখ্যাত খুচরা বিক্রয় পণ্যের প্রতিষ্ঠান ডেবেনহ্যামসের। গতকাল শনিবার বন্ধ করে দেওয়া হয় ২৪৩ বছরের পুরোনো এই কোম্পানির শেষ স্টোরের দরজা। আমি থাকি লন্ডনের লুটনে। এখানের আউটলেটটি বন্ধ হয়েছে গেল সপ্তাহে। বন্ধের দিনও আমি এ আউটলেট থেকে ৫শ পাউন্ডের পণ্য কিনেছি। আমার নিত্য আসা-যাওয়া ছিল এ আইটলেটে। আমার প্রিয় এ ব্যান্ড আমার কারণে আমার মেয়েদেরও প্রিয় হয়ে উঠছিল। তারাও সময়ে করে আমার সাথে এ আউটলেটে বেড়াতে আসতো। এর আগে বহু বছর লন্ডনের ওয়াটপোর্ডে ছিলাম। সেখানেও ডেবেনহ্যামসের আইটলেট ছিল। সেটিতেও আমার অনেক স্মৃতি রয়েছে।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে ডেবেনহ্যামসকে অনলাইন ফ্যাশন পণ্যসামগ্রীর খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান বুহু গ্রুপ কিনে নেয়। সাড়ে পাঁচ কোটি পাউন্ডে এটি বিক্রি হয়। এখন থেকে কেবল অনলাইনেই পণ্য বিক্রি হবে এই কোম্পানির।

সপ্তাহ দুই আগে যুক্তরাজ্যে লকডাউন শিথিলের পর ডেবেনহ্যামসের ৯৭টির স্টোর আবার খোলা হয়। সব পণ্য বিক্রি করে দেওয়া হয়। ধীরে ধীরে দুই সপ্তাহের মধ্যে সব কটি স্টোর বন্ধ হয়ে যায়। একসময় যুক্তরাজ্যজুড়ে প্রায় দেড় শতাধিক স্টোর ছিল ডেবেনহ্যামসের। ছিল ব্যবসা রমরমা। তবে বেশ কয়েক বছর ধরে বিক্রি কমে গিয়েছিল এটির। তবে কোম্পানিটির সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে করোনার সময়ে। গত ডিসেম্বরে ডেবেনহ্যামসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ২৪২ বছরের ব্যবসায়িক পাট চুকিয়ে বন্ধ হতে যাচ্ছে ডেবেনহ্যামস। সে সময় কোম্পানির প্রায় ১২ হাজার কর্মীর চাকরি ঝুঁকিতে পড়ে। পরে ডেবেনহ্যামস কিনে নেয় বুহু।

ব্রিটিশ এই বহুজাতিক কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৭৭৮ সালে। এর প্রতিষ্ঠাতা উইলিয়ামস ক্লাক। একটি মাত্র শোরুম নিয়ে যাত্রা করা প্রতিষ্ঠানটির একসময় যুক্তরাজ্যে ১৫০টিরও বেশি শোরুম হয়। ডেবেনহ্যামস, ডেনমার্কের চেইনশপ মাগাসিন ডু নর্ডের অধীনে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। পোশাক, জুতা, প্রসাধনী, ইলেকট্রনিকস, উপহার ও গৃহসামগ্রী এবং আসবাবপত্র বিক্রি করে কোম্পানিটি।

১৯৫০ সালে যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে বৃহৎ ডিপার্টমেন্ট স্টোর ছিল ডেবেনহ্যামস। সে সময় এর স্টোরের সংখ্যা ছিল ১১০। বেশ ভালোভাবেই চলছিল সব। তবে কয়েক বছর ধরে অনলাইন কেনাকাটা জনপ্রিয় হওয়ায় ধুঁকতে শুরু করে ডেবেনহ্যামস।

আমি জানি, কারো জন্যই কিছু খালি থাকে না। হয়তো এই ডেবেনহ্যামসের বন্ধ আউটলেটটিও চালু হবে অন্যকোন নামে, অন্য পণ্যের পসরা হিসেবে। তবে এত পুরনো একটি ব্র্যান্ড করোনায় চিরতরে শেষ করে দেবে-এটি মানতে কষ্ট হচ্ছে। এভাবে করোনা নিশ্চয় আরও অনেক ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানকেই শেষ করে দিয়েছে; সামনে হয়তো আরও দেবে। আর কত মানুষের কত স্মৃতি আর ভালোবাসার গড়া প্রতিষ্ঠান এভাবে একে একে বিলীন হয়ে যাবে-কে জানে!

লেখক:


তারিকুল ইসলাম,
লন্ডন প্রবাসী উদ্যোক্তা।

আর পড়তে পারেন