শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

১৩ বছরে ১ম সমাবর্তন,২৮৮৮ গ্র্যাজুয়েটের জন্য প্রস্তুত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২৬, ২০২০
news-image

শাহাদাত বিপ্লবঃ

কুয়াশা ভেদ করে সূর্য উঁকি দিচ্ছে। একদল তরুণ-তরুণীর মুখের হাসিটাও যেন সূর্যের আলোর চেয়ে কম নয়। এ যে দীর্ঘ প্রতিক্ষান অবসান ঘটিয়ে কিছু পাওয়ার হাসি, তৃপ্তির হাসি। বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চ, গোল চত্বর, শহীদ মিনারসহ ক্যাম্পাসের সর্বত্র পড়েছে ছবি তোলার ধুম। কেউ গাউন গায়ে জড়িয়ে, কেউ হ্যাট আকাশে উড়িয়ে আবার কেউ কেউ নানান ভঙ্গিতে নানা সাজে ছবি তোলায় ব্যাস্ত। সাক্ষাত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচিতজনদের সাথে। স্মৃতিতে ভেসে উঠছে একসাথে কাটানো কত গল্প, কত স্মৃতি। এ যে প্রাণের মিলনমেলা।

বলছি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ১ম সমাবর্তনের কথা। ২০০৭ সালে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হলেও ১৩ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বহুল কাঙ্খিত সমাবর্তন। রাত পোহালেই মেধাবীদের হাতে উঠবে সর্বোচ্চ ডিগ্রি। তাই অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এ সমাবর্তন কে ঘিরে তাই শিক্ষার্থীদের উৎকন্ঠার শেষ নেই। পরিসংখ্যান বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করা শিক্ষার্থ মেহেদী হাসান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেলে আসা কত স্মৃতি, সব যেন এক নিমিষেই চোখের সামনে ভেসে বেড়াচ্ছে। পরিচিতজনদের সাথে দেখা হচ্ছে। এর চেয়ে আনন্দের আর কি হতে পারে!’

সমাবর্তন সফল করতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। গত ২৪ জানুয়ারি থেকে গ্র্যাজুয়েটদের জন্য গাউন, হ্যাট, টাইসহ গিফট সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে সমাবর্তনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে প্রায় চার হাজার আসনবিশিষ্ট প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছে।

সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত থাকবেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চেীধুরী এমপি।

সমাবর্তন বাস্তবায়ন কমিটি সূত্রে জানা যায়, এবারের সমাবর্তনে মোট ২ হাজার ৮৮৭ জন গ্র্যাজুয়েট অংশ নিচ্ছেন। যার মধ্যে স্নাতক ডিগ্রিধারী ১ হাজার ২২২ জন এবং স্নাতক ও স্নাতকোত্তর উভয় ডিগ্রিধারী ১ হাজার ৬৬৫ জন। এদিকে শিক্ষায় অসমান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিভিন্ন সেশনের ১৪ জন শিক্ষার্থীকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করবেন রাষ্ট্রপতি।

সমাবর্তনের অনুষ্ঠানসূচীঃ
সমাবর্তনে অংশগ্রহণকারী গ্র্যাজুয়েটদের সমাবর্তনের দিন বেলা সাড়ে ১২টা থেকে দুপুর দুইটার মধ্যে এবং আমন্ত্রিত অতিথিদেরকে বিকেল আড়াইটার মধ্যে সমাবর্তনস্থলে আসন গ্রহণ করতে হবে। দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে শোভাযাত্রার মাধ্যমে সমাবর্তনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে রাষ্ট্রপতির আগমন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনা, পবিত্র ধর্মগ্রন্থসমূহ থেকে পাঠ, সমাবর্তনের অনুষ্ঠান উদ্বোধন, বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের স্বাগত বক্তব্য, মাননীয় চ্যান্সেলর কর্তৃক ডিগ্রি প্রদান, স্বর্ণপদক প্রদান, অতিথির বক্তব্য, সমাবর্তন বক্তার বক্তব্য, ক্রেস্ট বিনিময়, মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় চ্যান্সেলরের ভাষণ, সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা, জাতীয় সংগীত এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় চ্যান্সেলরের সমাবর্তন স্থল ত্যাগের মধ্যে দিয়ে বিকেল ৪টা ০৩ মিনিটে সমাবর্তনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে। এ ছাড়া সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন জয়প্রিয় শিল্পী জেমস, সংগীত ব্র্যান্ডদল এনকোরসহ প্রমুখ।

সমাবর্তন উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ও আবাসিক হলসমূহ বন্ধ থাকবে না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আবু তাহের। তিনি জানান, সমাবর্তন ঘিরে চারস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। ইতোমধ্যে বিএনসিসি, রোভার স্কাউট সদস্যদের প্রস্তুত করা হয়েছে।

সমাবর্তনের সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক এমরান কবির চৌধুরী বলেন, সাবেক শিক্ষার্থীদের একান্ত প্রত্যাশার বিষয় সমাবর্তন। প্রথমবার এত বড় আয়োজন করাটা চ্যালেঞ্জের। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগিতায় ইতোমধ্যে সমাবর্তনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আজ সমাবর্তন মহড়া হবে।

আর পড়তে পারেন