রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

“হিরো দ্যা বস অথবা ফেসবুক ভালোবাসা”

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮
news-image

 

সুজন মজুমদারঃ

নাহিদ সবে মাত্র ক্লাশ নাইনে উঠলো নাইনের বয়স নাকি প্রেমের বয়স। এই বয়সে ছেলে মেয়েরা একটু আধটু প্রেমে পড়ে কিংবা প্রেম করে এটি স্বাভাবিক। ঠিক তেমনি নাহিদের মধ্যে প্রেমের ছায়া পড়েছে। ছাত্র হিসাবে তেমন ভালো নয় কিন্তু দুষ্ট প্রকৃতিবটে। স্কুলে আসার সময় পথে অনেক দুষ্টামি করে মনে হয় ঐ পথের হিরো দ্যা বস। ক্লাশ চলাকালীন ক্লাশ রুমে শেষ বেঞ্চে বসে থাকে।

মনে হয় ক্লাশে কিছুই জানে না কারণ স্যার যদি প্রশ্ন করে অবিবাহিত যুবক বয়সের স্যারতো একবারে বলে দিয়েছে নাহিদ যদি পরিক্ষা পাশ করে মনে করে নিতে হবে এই স্কুলের টেবিল-চেয়ারও পাশ করেছে। নাহিদ স্মার্ট ছেলে নয় এবং তেমন বন্ধু নেই যা আছে তার চেয়ে নাজেহাল অবস্থা। হাতে গণা দুই চারজন বন্ধু আছে। নাহিদ তার ক্লাশমেট একটি মেয়েকে খুব পছন্দ করতো। মেয়েটিকে দেখলে মনে হয় এখনি লবণ মরিচ দিয়ে কাচা খেয়ে পেলে এমন প্রিয় খাবারের মত পছন্দ করে দুষ্টু ছেলে হলেও সাহস একটু কম। মেয়েটি কিভাবে বলবে আই লাভ ইউ জান আমি তোমায় ভালোবাসি কিন্তু বলতে সাহস পাচ্ছে না যদি মেয়েটি উল্টা বলে আই হেট ইউ কিংবা যদি উল্টো পাবলিক দিয়ে গণদোলায় দেয় তখন কি করবে! মেয়েটির নাম স্বর্ণা, দেখতে পর্শা কিন্তু ফেয়ারনেস ক্রীম দিয়ে নিজেকে সুন্দরি করার পয়চলা করছে। স্বর্ণাকে ভালোবাসি বলবে বলবে দুই এক মাস চলেগেল বলা হলো না। একদিন বইমেলায় গেল স্টলগুলোর মধ্যে থেকে হঠাৎ একটি বই দেখতে পেলে লাভলু মিয়ার প্রেমের প্রস্তাব। দেরি না করে বইটি কিনে নিল বাসায় এসে বইটি পড়তে পড়তে মুখস্ত করে নিল। বইয়ের লেখক লাভলু মিয়া অনুসারে স্বর্ণাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বসলো, লালগোলাপ হাতে নিয়ে বললো, এটি তোমার জন্য আমি তোমায় পছন্দ করি বলো আই লাভ ইউ। এটি বলার সাথে সাথে স্বর্ণার দৌড়ানো খেলো। দৌড়নো খাওয়ার পর স্কুলে যাচ্ছে না। এখন রাস্তাঘাটে ঘুরাফাক করে একদিন তার এক বন্ধু ফেসবুক ব্যবহার করছে দেখতে পেল। তার বন্ধুর ফেসবুকে অসংখ্য ফ্রেন্ড এবং পরিচিতি ফেসবুকে তার বন্ধুর নাম লাইকার বয় হিরো আলম। এইগুলো দেখে নাহিদ তার বন্ধুর মাধ্যমে ফেসবুক আইডি খোললো। ফেসবুক আইডির নাম নাহিদ দ্যা হিরো। আস্তে আস্তে ফেসবুকে স্ট্যাটাস ছবি আপলোড দিতে লাগলো কিন্তু লাইক, কমেন্ট ২/৪ টা পেয়ে হতাশ হলো তারপরে চিন্তা করতে লাগলো আমাকে থেমেগেলে চলবে না। নাহিদ তার বন্ধু থেকে পরামর্শ জানতে চাইলো কিভাবে বেশি বেশি লাইক, কমেন্ট শেয়ার পাওয়া যাবে? জানারপর বল্টু সবার আইডিতে লাইক কমেন্ট করে। কয়েকদিন পরপর স্ট্যাটাস এবং সেলফি দেয় বড় ভাই, ছোট ভাই, রাজনীতিবিদ, শিল্পি নায়ক, উন্নতমানের রেস্টুরেন্টে, বিভিন্ন সুন্দর পোশাক পরিধান করে স্ট্যাটাস দিয়ে থাকে মাঝে মধ্যে ফেসবুক লাইভে আসে। নাহিদকে অনেকে কমেন্ট করে woow, nice, beautiful, হেব্বি ইত্যাদি। রতনের স্ট্যাটাসকে অনেকে শেয়ার এবং লাইক দিয়ে থাকে। মেসেন্জারে নক করে ভাইয়া কেমন আছেন? পথে-ঘাটে দেখা হলে অনেকে ছবি তুলতে চায়। এক স্ট্যাটাসে হাজারের উপরে লাইক এবং দুই-চারশ তো কমেন্ট করে। নাহিদ এখন ফেসবুক হিরো হঠাৎ একদিন স্বর্ণা ফেন্ডরিকোয়েস্ট এসে ভাসমান হলো। বল্টু স্বর্ণাকে চিনতে ভুল কিংবা দেরি হলো না। কয়েকদিন হয়েগেল স্বর্ণাকে একসেপ্ট করলো না। কারণ, মনেতো সেই পুরানো দিন ক্ষোভ রয়েগেল হঠাৎ করে মেসেন্জারে নক করলো, তুমি স্কুলে আসো-না কেন? আমাকে কি ভুলেগেলে! বল্টুতো একটু ভালোবাসা লুভি জবাবে বললো, আমিতো আনস্মার্ট, ক্লাশের লাস্ট বেঞ্চের ছাত্র। এইভাবে দুইজনের মধ্যে কথা হতে হতে ভালোবাসা জমে উঠলো স্বর্ণাকে ফেন্ডলিস্টে একসেপ্ট করে নিল। তারপর আবার নাহিদ স্কুলে যাওয়া শুরু করলো সকল ক্লাসমেটের কাছে নাহিদ এখন হিরো দ্যা বস।

আর পড়তে পারেন