বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

হাজীগঞ্জে এক যুবক খুন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৭
news-image

সুজন দাস, হাজীগঞ্জ ঃ
চাঁদপুরের জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার ৪ নং কাঁলচো ইউনিয়নের ওড়পুর গ্রামে কোরবানি দেয়াকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনায় সাইফুল ইসলাম (২৪) নামে এক যুবক খুন হয়েছে। হামলায় ছুরিকাঘাতের ১৩ দিন পর ওই যুবক রাজধানীর ধানমন্ডি কিডনী জেনারেল হাসপাতালে মারা যান।
রবিবার দিবাগত রাত ১ ঘটিকার দিকে চিকিৎসারত অবস্থায় মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন নিহতের ভাই হাবিব উল্যাহ। নিহতের মরদেহ সোমবার সকালে হাজীগঞ্জ থানায় সুরতাহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়। গত ২১ আগষ্ট সোমবার নুরুল ইসলাম প্রতিবেশী রফিকের পরিবারের সাথে কোরবানি দিতে নিষেধ করলে কলহ সৃষ্টি হয়। এর এক পর্যায়ে রফিকের ছেলে রবিউল ইসলাম হৃদয় চুরি দিয়ে সাইফুলের শরীরে একাধিক আঘাত করে।
এ বিষয়ে গত ২২ আগস্ট সাইফুল ইসলামের বাবা নুরুল ইসলাম চারজনকে আসামী করে হাজীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-১৮। মামলার ধারা ১০৯, ৩০৭,৩২৩,৩২৪ ও ৫০৬। তবে ময়না তদন্ত শেষে আদালতের নির্দেশে মামলাটি সরাসরি হত্যা মামলায় রুজ করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ।
নিহতের ভাই হাবিব উল্যাহ বলেন, ‘ভাইকে বাঁচানোর জন্য কত চেষ্টা করেছি। পারিনি। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে পরে প্রাইভেট হাসপাতালেও নিয়েছি। আমার ভাইকে যারা খুন করেছে, আমরা তাদের বিচার চাই।’
তিনি আরো জানান, ‘ভাইয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে হামলাকারী হৃদয়ের পরিবার সোমবার সকালে নিজেদের ঘর ভাংচুর করে। আমরা তার ভিডিও করে রেখেছি। তারা আমাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকী দিয়ে আসছে।’

থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ওড়পুর গ্রামের প্রবাসী রফিক মিয়া ও সাইফুল ইসলামের পরিবার ভাগে পশু কোরবানি দিয়ে আসছিল। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রবাসী রফিকের ছেলে রবিউল ইসলাম হৃদয় অতর্কিতভাবে নুরুল ইসলামের পরিবারের সাথে ঝগড়া শুরু করে। একপর্যায়ে সাইফুল ইসলাম প্রতিবাদ করতে গিয়ে হৃদয়ের ছুরিকাঘাতে মারাত্মকভাবে আহত হয়।
সাইফুল ইসলামের বাবা নুরুল ইসলাম জানান, ‘আমার ছেলের পেটে চুরি দিয়ে উপর্যপুরি আঘাত করতে থাকে। ওইসময় প্রতিবেশী মিজানুর রহমান দৌড়ে এসে সাইফুলকে উদ্ধার করে প্রথমে হাজীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে অবস্থার বেগতিক দেখে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। সোমবার রাতেই সাইফুলের আবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। সেখান থেকে কিডনী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়েছি। ছেলেকে বাঁচাতে পারিনি।’
তিনি আরো জানান, ‘মামলার আসামী চারজনের মধ্যে তিন জন জামিনে রয়েছে। প্রথম আসামী রবিউল ইসলাম হৃদয় পলাতক রয়েছে। আমার ছেলে হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দেয়ার দাবী জানাই।’
হাজীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক মিজানুর রহমান বলেন, মামলাটি হত্যা মামলায় রুজ করার প্রক্রিয়া চলছে। আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করা হবে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছুটি রয়েছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক আল আমিন বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযুক্ত রবিউল ইসলাম হৃদয়কে পাইনি। তখন তার মা রাশেদা বেগম বাড়ীতে ছিল। পরের দিন শুনেছি তিনিও নাকি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আমরা দ্রুত মামলার প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করবো।

আর পড়তে পারেন