সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সড়ক দুর্ঘটনা নিহত মিহির আলমের শোকসভা অনুষ্ঠিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৪, ২০১৮
news-image

 

জাহাংগীর আলম হৃদয় / সিদ্দিকুর রহমান নয়ন:

গত ১ এপ্রিল চাঁদপুর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় যাওয়ার পথে শাহরাস্তি চেঙ্গাচল নামক স্থানে সড়ক পার হতে গিয়ে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছে চাঁদপুর -৫ আসনের সাংসদ মেজর(অব:) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের নাতি বলশিদ হাজী ইয়াকুব আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির মেধাবী শিক্ষার্থী মিহির আলম পাটোয়ারী|নিহত মিহির আলমের কবর জিয়ারত করেন।

বলশিদ হাজী ইয়াকুব আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আয়োজিত দোয়া মাহফিল ও শোকসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর -৫ আসনের সাংসদ মেজর(অব:) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম। তিনি নিহতের কবর জিয়ারত করেন ।

স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিব উল্লা মারুফের সভাপতিত্বে দিদারুল আলম পাটোয়ারীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান মিন্টু,  উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাসিনা আক্তার, হাজী আকুব আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অখিল চন্দ্র দেবনাথ,  টামটা উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক দরজী,  নিহত মিহির আলমের পিতা নুরে আলম পাটোয়ারী, প্যানেল চেয়ারম্যান জেসমিন আক্তারসহ স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

স্কুলে আয়োজিত শোক সভায় প্রধান অতিথি স্থানিয় সাংসদ এর কাছে বেশ কয়টি দাবি জানান উপস্থিত লোকজন। দাবি গুলো হল, কুমিল্লা-চাঁদপুর মহাসড়ক এর চেঙ্গাচল রাস্তায় স্প্রীড ব্রেকার নির্মাণ, নিহত মিহির আলমের নামে স্কুলের সড়কের নামকরণ, নিহত মিহির আলমের পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ, মিহির আলমের নামে স্কুলের নতুন ভবন করার দাবি জানান অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি  সাংসদ মেজর (অব:) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম বলেন, শোক সভায় শিক্ষার্থীরা যে দাবিগুলি করেছেন তা বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি রাস্তায় স্প্রীড ব্রেকার দেয়ার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দেন। তিনি আরও বলেন, নিহত মিহির আলম আমার নাতি হলেও জীবিত অবস্থায় তাকে কোলে নিতে পারিনি অথচ আজ তার শোকসভায় এসেছি। কবরের পাশে দাঁড়িয়ে চোখের পানি ফেলছি। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার ছবিসহ পৌছে দিব. জননেত্রি শেখ হাসিনা জানুক একজন স্কুল ছাত্র তাকে কত ভালোবাসেন. যার জনসভায় গিয়ে নেত্রীকে একনজর দেখতে যাওয়ার পথেই সে নিহত হয়। যে ঘাতক গাড়ি তার জীবন কেড়ে নিল আমি সেই গাড়ি চালকের বিচার দাবি করছি এবং শিক্ষার্থীদের সাথে একমত পোষন করছি। আর যেন কোন মিহিরকে অকালে প্রান দিতে না হয় সেই ব্যবস্থা নিতে হবে।

আর পড়তে পারেন