শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি: ভৌতিক প্রচারণায় প্রায় ৫০ কোটি টাকা লোপাট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৯, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

রোজিনা নির্যাতনের ঘটনায় যখন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নিয়ে তোলপাড়, এখন নীরবে প্রচারণার নামে প্রায় ৫০ কোটি টাকা লোপাটের আয়োজন চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৯টি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আগামী ১০ জুনের মধ্যে এই টাকা উত্তোলন করার সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। আর এই দুর্নীতির সংগে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বোচ্চ ব্যক্তিদের জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রচারণার দায়িত্ব পালন করে, লাইফস্টাইল, হেলথ এডুকেশন এ্যান্ড প্রমোশন বিভাগ। একজন লাইন ডিরেক্টরের নেতৃত্বে এই বিভাগটি পরিচালিত হয়। চলতি অর্থ বছরে প্রচারণার জন্য মোট ১০টি ক্ষেত্র চিহ্নিত করা হয়। একনেক অনুমোদিত অপারেশন প্লান অনুযায়ী ৩ থেকে ৫ মাস ব্যাপী এসব বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রচারনা করার কথা। সর্বোচ্চ ৪ কোটি থেকে ১ কোটি পর্যন্ত বিভিন্ন প্রচারনায় ব্যয় ধরা হয়েছে। এ সংক্রান্ত আগ্রহ ব্যক্ত করণের জন্য গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে আগ্রহ ব্যক্ত করণের জন্য দরপত্রে সময়সীমা বেধে দেয়া হয়। কিন্তু আগ্রহ ব্যক্ত করণের দরপত্র জমা দেয়ার পরপরই মন্ত্রীর নির্দেশে সব প্রস্তাবনা মন্ত্রনালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সে সময় এ বিভাগের লাইন ডিরেক্টর ছিলেন ডা: মো আবু জাহের। তিনি জানান ‘মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, সব কাগজপত্র মন্ত্রী চেয়েছেন।’

দীর্ঘ তিনমাস এসব টেন্ডারের কাগজপত্র মন্ত্রনালয়ে আটকে থাকে। অথচ এই সময়ই প্রচারণা কার্যক্রম শুরু হবার কথা ছিলো। এসময়ে লাইন ডিরেক্টর পদ থেকে ডা: মো আবু জাহেরকে সরিয়ে দেয়া হয়। তার বদলে, দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ডা: সাইফুল ইসলামকে লাইন ডিরেক্টর পদে পদায়ন করা হয়। উল্লেখ্য, ডা: সাইফুল দুর্নীতি দমন কমিশনের তালিকাভুক্ত সন্দেহভাজন দুর্নীতিবাজ’। ২০১৯ সালের ১৭ ডেসেম্বর কমিশন দায়েরকৃত একটি দুর্নীতি মামলার (মামলা নং-১৬) তিনি ৮ নম্বর আসামী। দুর্নীতি দমন কমিশন, অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের গুরুত্বপূর্ণ পদে না দিতে এবং বিভাগীয় প্রধান বা লাইন ডিরেক্টর না করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে গত বছরের মার্চে লিখিত অনুরোধ জানায়। একই সময় কমিশন স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতিবাজ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান সমূহের একটি তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রেরণ করে। এই তালিকার ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকা ভুক্ত করে এবং কিছু কর্মকর্তাকে বদলী করে। কিন্তু এর মধ্যেই ডা: সাইফুলকে গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়নে সকলে বিস্মিত হন। সে সময় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব ছিলেন মো: আবদুল মান্নান। যোগাযোগ করা হলে মো: আবদুল মান্নান বলেন ‘মন্ত্রীর অনুরোধে তাকে (সাইফুলকে) পদায়ন করা হয়।’

ডা: সাইফুল লাইন ডিরেক্টর হবার পরপরই আবার প্রচারণা সংক্রান্ত টেন্ডার প্রক্রিয়া সচল হয়। কিন্তু ততোদিনে এই টেন্ডারের কার্যকারিতাই নষ্ট হয়ে গেছে। জুনের মধ্যে ৩ মাস প্রচারণা কার্যক্রম চালানোর সময় নেই। কিন্তু ডা: সাইফুলকে রুখবে কে? স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা: আবুল বাশার মো: খুরশীদ আলমকে এব্যাপারে একজন দরপত্র দাতা অভিযোগ করলে, তিনি বলেন ‘ডা: সাইফুল মন্ত্রীর খাস লোক। এ ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না।’ ঈদের আগের দিন তড়িঘড়ি করে ৯টি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেয়া হয়। উল্লেখ্য, ৩০ জুন চলতি অর্থবছর শেষ হয়ে যাচ্ছে। ১০ জুনের মধ্যে চলতি অর্থবছরের সব কার্যক্রম শেষ করার নির্দেশনা আছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের। এর মধ্যে এই কাজ অসম্ভব। প্রচারণা না করে টাকা ভাগ বাটোয়ারা করার জন্যই এটি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এখন ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে এজি থেকে বিল উত্তোলন করাও শুরু হয়ে গেছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় একটি প্রচারণা কার্যক্রমে বলা হয়েছে ৪০টি উপজেলায় এডভোকেসি মিটিং হবে, ১০ মিনিটের নাটিকা হবে, ৩০ সেকেন্ডের একটি বিজ্ঞাপন বানিয়ে তা ৪০০ বার প্রচার করতে হবে। ২০টি বিল বোর্ড লাগতে হবে। ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে এই কার্যক্রম সম্পন্ন করা অসম্ভব।

অনেকে অভিযোগ করেছে, কাজ দেবার জন্য ডা: সাইফুল অগ্রিম ১০ থেকে ২৫ শতাংশ টাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে নিয়েছেন। এই প্রক্রিয়ার সংগে মন্ত্রীর জনসংযোগ কর্মকর্তা মো: মাঈদুল ইসলামের নামও এসেছে। অভিযোগ উঠেছে, তার প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এসব টেন্ডার ভাগ বাটোয়ারা হয়েছে। এই জনসংযোগ কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও বিস্তর অভিযোগ। সম্প্রতি, সরকারী চাকরি করে যারা বিভিন্ন ব্যবসায়িক কার্যক্রমে জড়িত তাদের একটি তালিকা তৈরী করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ঐ তালিকায় মাঈদুলের নাম আছে। সরকারি চাকরী করেও তিনি একটি কোচিং সেন্টার পরিচালনা করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তাধীন।

আর্থিক লেনদেনের বিনিময়ে কাজ পাইয়ে দেয়া হয়েছে জন্যই পুরো টেন্ডার প্রক্রিয়ায় পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন ২০০৬ ও পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা ২০০৮ অনুসৃত হয়নি। টেন্ডারে আর্থিক প্রস্তাব উন্মুক্ত করনের সময়ে কারিগরি প্রস্তাবের নম্বর বলা বাধ্যতামূলক। কিন্তু ডা: সাইফুল সরকারী আইন ও বিধি বিধান না মেনে, আর্থিক প্রস্তাব উন্মুক্ত করেছেন। এসময় তিনি কারিগরি প্রস্তাবে প্রাপ্ত নম্বর বলেননি। পরে যে প্রতিষ্ঠানের সাথে তার লেনদেনের অংক চুড়ান্ত হয়েছে, সেই প্রতিষ্ঠানকে নম্বর কমবেশী করে কাজ দিয়েছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ‘লাইফস্টাইল, হেলথ এডুকেশন এ্যান্ড প্রমোশনের এরকম দুর্নীতির তথ্য নতুন নয়। গত অর্থবছরেও একই ঘটনা ঘটেছিল। দুর্নীতিদমন কমিশন এব্যাপারে তদন্ত করছে। এনিয়ে কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছিল। অভিযোগে বলা হয়েছিল, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর তৎকালীন একান্ত সচিব ওয়াহেদুর রহমান, ঐ বিভাগের কর্মকর্তাদের ডেকে মন্ত্রীর পুত্রের জন্য প্রতিটি প্যাকেজ থেকে ১০ শতাংশ টাকা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এসংক্রান্ত কথোপকথনের রেকর্ড কমিশনের কাছে আছে বলে জানা গেছে। ঐ অভিযোগ পাবার পর কমিশন একান্ত সচিবকে সরিয়ে দেয়ার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ে অনুরোধ করে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ওয়াহেদুর রহমানকে বরগুনায় বদলী করে। দুর্নীতি দমন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, গত অর্থবছরে চারটি প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব প্রতিষ্ঠানই কাজ না করে টাকা তুলে নিয়ে গেছে।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার।

আর পড়তে পারেন