বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

স্ত্রীকে, শ্যালিকাকে বিধবা ও সুস্থ সন্তানকে প্রতিবন্ধী বানিয়ে টাকা তুলেন ইউপি সদস্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৭, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

জীবিত স্ত্রীকে বিধবা, সুস্থ সন্তানকে প্রতিবন্ধী বানান তিনি। শুধু তাই নয় স্বামী জীবিত থাকতেও দুই শ্যালিকাকে বিধবা বানিয়েছেন। শ্বশুর-শাশুড়ির নামে বয়স্ক ভাতার কার্ড করে টাকা তুলেছেন।

আর এ ঘটনা ঘটিয়েছেন ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার দরবারপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য কামরুজ্জামান। তিনি ওই ইউনিয়নের কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক।

এ ঘটনার জন্য ইউপি সদস্য কামরুজ্জামানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় গত ২০ মে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে। মঙ্গলবার ফুলগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফেরদৌসী বেগম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, ইউপি সদস্য কামরুজ্জামান স্ত্রীর নামে বিধবা ভাতার কার্ড করিয়েছিলেন। সুস্থ ছেলে নাভিল হাসানের নামে কার্ড করে তুলেছেন প্রতিবন্ধী ভাতা। এ ছাড়া স্বামী থাকা সত্ত্বেও দুই শ্যালিকার নামে বিধবা ভাতার কার্ড এবং শ্বশুর-শাশুড়ির নামে বয়স্ক ভাতার কার্ড করে টাকা তুলেছেন।

প্রজ্ঞাপন ও উপজেলা প্রশাসন থেকে জানা যায়, ইউপি সদস্য কামরুজ্জামান স্ত্রীর নামে বিধবা ভাতার কার্ড করিয়েছিলেন। সুস্থ ছেলে নাভিল হাসানের নামে কার্ড করে তুলেছেন প্রতিবন্ধী ভাতা। এ ছাড়া স্বামী থাকা সত্ত্বেও দুই শ্যালিকার নামে বিধবা ভাতার কার্ড এবং শ্বশুর-শাশুড়ির নামে বয়স্ক ভাতার কার্ড করে টাকা তুলেছেন। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় স্থানীয় সরকার আইন অনুসারে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

ইউএনও জানান, ২০ মে থেকে কামরুজ্জামানের বহিষ্কারাদেশ কার্যকর হবে। তিনি ৫-৬ বছর ধরে স্বজনদের নামে ভাতা তুলেছেন। এভাবে প্রায় ৪৮ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন। বরখাস্ত সংক্রান্ত আদেশটি কামরুজ্জামানের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ইউপি সদস্য কামরুজ্জামান জানান, বরখাস্ত হওয়ার বিষয়টি তিনি অন্যদের মুখ থেকে শুনেছেন। তবে এখনও কোনো আদেশ বা কাগজপত্র হাতে পাননি।

চলতি বছরের শুরুর দিকে কামরুজ্জামানের স্বজনদের নামে ভাতা তোলার বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে ৮ ফেব্রুয়ারি অনিয়মের মাধ্যমে স্ত্রী, ছেলেসহ ছয় স্বজনের নামে ভাতা তোলার কথা স্বীকার করেন। উত্তোলন করা টাকা ও ভাতার বই ইউএনওর কাছে জমাও দেন কামরুজ্জামান।
সূত্র:যুগান্তর

আর পড়তে পারেন