বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সৌদি যেতে লক্ষাধিক নিবন্ধনকারীর কেউই যেতে পারেনি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৬

নিউজ ডেস্ক: গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সৌদি আরবে কাজের আশায় নিবন্ধন করা লক্ষাধিক পুরুষ শ্রমিকের কেউই এখন পর্যন্ত যেতে পারেনি দেশটিতে। অন্যদিকে এসময়ে সৌদি গেছে কিছু সংখ্যক নারী শ্রমিক। ২০০৯ সালের পর থেকেই অভিবাসন প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। গতবছর সরকার সৌদি সরকারের অনানুষ্ঠানিক প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে সৌদি গমনেচ্ছুদের নিবন্ধন শুরু করে। দাবি করা হয়, সৌদি আরবে অভিবাসন প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু হয়েছে। ঢাকা ও অন্যান্য জেলায় জেলা কর্মসংস্থান জনশক্তি অফিসে (ডিইএমও) ২০০ টাকার বিনিময়ে এ তালিকাভুক্তির কাজ করা হয়।2061

সৌদি আরবের সঙ্গে যেহেতু কোন আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়নি তাই অভিবাসীদের অধিকার নিয়ে আন্দোলনকারীরা সরকারের এমন ধরনের নিবন্ধন চর্চাকে এক ধরনের চিটিং বলে বর্ণনা করেন। বেসরকারি নিয়োগকর্তারা জানায়, সৌদিতে কর্মসংস্থান ভিসার অনুপস্থিতিতে বর্তমানে একটি ভিসার জন্য বাংলাদেশের পুরুষ শ্রমিকদের ৮-১০ লাখ টাকা গুণতে হয়। সৌদি আরব ২০০৯ সালের শুরু থেকে বাংলাদেশ থেকে পুরুষ শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ রেখেছে। গত বছরের শুরুর দিকে গৃহকর্মী নেয়ার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে সৌদি। ২০১৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি সৌদি গমনেচ্ছু শ্রমিকদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু করা হয়।

ঢাকা ডেমোর সহকারি পরিচালক মোহাম্মাদ আলী নিউএইজকে বলেন, রাজধানীর ইস্কাটন রোডে শুধুমাত্র তার অফিসেই প্রায় ৮০হাজার প্রার্থীর নাম নিবন্ধন করা হয়েছে। সেইসাথে বেশিরভাগ জেলায় বহুসংখ্যক শ্রমিকের নাম নিবন্ধন করা হয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব কাজী আবুল কালাম নিউএইজকে জানান, এসব প্রার্থীদের নাম বিদেশগামী শ্রমিকদের মূল ডাটাবেজে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তিনি স্বীকার করে বলেন, সৌদি আরবের জন্য নিবন্ধনকৃত ব্যক্তিদের মধ্য থেকে সম্ভবত কোন শ্রমিকই দেশটিতে যেতে পারেনি। তবে সৌদি আরব বাংলাদেশ থেকে নারী শ্রমিকের পাশাপাশি পুরুষ শ্রমিক নিতেও রাজি হয়েছে বলে পুনরায় জানান এ কর্মকর্তা।

ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সহকারি পরিচালক জাহিদ আনওয়ার জানান, প্রার্থীদের কাছ থেকে গ্রহণকৃত ফি অভিবাসী শ্রমিকদের কল্যাণের লক্ষ্যে ওয়েলফেয়ার তহবিলে জমা দেয়া হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও অভিবাসন বিশেষজ্ঞ সি আর আবরার জানান, কোন নিশ্চিত চুক্তি ছাড়াই এমন পূর্বপরিকল্পিত নিবন্ধন শুধুমাত্র ভুল ধারণাই তুলে ধরে না এটা অনৈতিক নিয়োগকারীদের অভিবাসী প্রত্যাশীদের শোষণের সুযোগ করে দেবে। তিনি বলেন, এমন ধরনের ব্যর্থতার ফলে অভিবাসী প্রত্যাশীরা হতাশ হতে পারে। তাই বিদেশে কর্মপ্রত্যাশীদের জন্য নিবন্ধনের ক্ষেত্রে সরকারের অধিক সচেতন হতে হবে।

বিএমইটির তথ্য মতে, ২০০৭ সালে সৌদিতে ২,০০,৪১২ জন শ্রমিক গেছে। অন্যদিকে ২০০৮ সালে গেছে ১,৩২,১২৪ জন, ২০০৯ সালে মাত্র ১৪,৬৬৬ জন, ২০১০ সালে ৭০৬৯জন, ২০১১সালে ১৫,০৩৯, ২০১২ সালে ২১,২৩২ জন, ২০১৩ সালে ১২,৬৫৪ জন, ২০১৪ সালে ১০,৬৫৭ জন এবং ২০১৫ সালে ৫৮,২৭০ জন। বিএমইটি কর্মকর্তারা জানান, নারী শ্রমিক পাঠানোর ফলে সৌদি আরবে জনশক্তি রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও আরব আমিরাতে বাংলাদেশি পুরুষ শ্রমিক বন্ধ রয়েছে। অন্যদিকে কুয়েত, মালয়েশিয়া ও বাহরাইনে প্রায় একই অবস্থা।
নিউ এজ

আর পড়তে পারেন