রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সীমান্তে হতাহতদের তালিকায় দু’দেশের নাগরিকের সংখ্যা প্রায় সমান- হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৫, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

বাংলাদেশ সফরকালে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব শ্রিংলা সীমান্ত হত্যার বিষয়ে বলেছেন, আমাদের মধ্যকার ৪১০০ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকা একটি জটিল সীমান্ত কারণ এটি জনবহুল এলাকা ছাড়াও বন, নদী এবং মাঠের মধ্য দিয়েও গেছে। দীর্ঘদিনের সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্কের কারণে সীমান্তের বিভিন্ন জায়গায় অবৈধ ক্রিয়াকলাপের সুযোগ তৈরি হয়েছে। এর মধ্যে যেমন মাদক ও গবাদি পশু চোরাচালান রয়েছে, তেমনি রয়েছে শুল্ক এবং সাধারণ বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণের আওতায় থাকা পণ্য চোরাচালানও।

দু’দেশেরই সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যকার নীতি হচ্ছে সীমান্তে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড রোধ করার পাশাপাশি সীমান্তে শান্তি ও বন্ধুত্বপূর্ণ স্থিতি বজায় রাখার জন্য একটা আন্তরিক ও সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক চর্চা করা। যদিও সীমান্তরক্ষী বাহিনী কখনোই অপরাধ দমনের জন্য সুসম্পর্কের উপর নির্ভর করতে পারে না, কারণ মানুষ সেখানে অপরাধপ্রবণ। গত দুই বছরে সহিংস ঘটনা বেড়েছে কারণ আমাদের সীমান্ত বাহিনীর ক্ষমতা ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। যা চোরাচালানকারী এবং তাদের সহযোগীদের মরিয়া করে তুলেছে।

যার মানে হল বিএসএফ এর কিছু টহল দল দু’দেশের পাচারকারীদের সহিংস আক্রমণের স্বীকার হয়ে আসছে। সরকারের নির্দেশের প্রেক্ষিতে, বিএসএফ একটি নীতি কঠোরভাবে অনুসরণ করে যেটি হলো শেষ পর্যন্ত প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার না করা। সতর্ক করা, ফাঁকা গুলি করার মতো অন্যান্য প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপগুলো দ্বারা তাদের উপর আক্রমণকারী চোরাকারবারীদেরকে বিরত করতে ব্যর্থ হলে তখনই শুধু বিএসএফ সদস্যরা তাদের জীবন বাঁচাতে প্রতিক্রিয়া জানাতে বাধ্য হয়।

যদিও এটি সত্য যে প্রতিটি মৃত্যুই অত্যন্ত দু:খজনক, কিন্তু আমরা আমাদের নিরাপত্তা কর্মীদের তাদের নিজের জীবন বাঁচাতে না বলতে পারি না। এছাড়া, পরিসংখ্যানে স্পষ্ট যে, সহিংসতার প্রায় সমস্ত ঘটনা সীমান্তের ভারতীয় অংশের মধ্যেই সংঘটিত হচ্ছে এবং আহত বা নিহতদের তালিকায় ভারতীয় এবং বাংলাদেশী নাগরিকের সংখ্যা প্রায় সমান। যেটা প্রমাণ করে যে, দুই দেশের নাগরিকরাই বিএসএফ এর উপর আক্রমণে জড়িত এবং বিএসএফ কেবল চোরাকারবারীদের আক্রমণের জবাব দিচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে, গত তিন বছরে, চোরাচালানকারীদের আক্রমণের অনেক বিএসএফ সদস্য মারাত্মক আহতসহ হতাহতের শিকার হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৯ সালে, ১২ জন ভারতীয় নাগরিক মারা গিয়েছিলেন, চারজন আহত হয়েছিল। একই বছর বিএসএফের ৮৩ জন আহত এবং একজন নিহত হয়েছিল।

এর যে সমাধানটি আমরা বারবার বলেছি, তা হল অবশিষ্ট ১৬৫ কিলোমিটার সীমান্তে আধুনিক কাট-প্রুফ বেড়া দেয়ার কাজ সম্পন্ন করা যা আমাদের সুরক্ষার উন্নতি করবে। একই সাথে সীমান্ত হাটগুলির দ্রুত সম্প্রসারণের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পণ্যের আন্তঃসীমান্ত বাণিজ্য উন্নয়নের প্রচেষ্টা বৃদ্ধি করতে হবে।

সোমবার সকালে বিশেষ বিমানে ঢাকায় আসেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব শ্রিংলা। বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। এসময় ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা ঢাকা সফরের সময় সোমবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। তিনি একই দিনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনেরও সঙ্গেও বৈঠক করেন।

মঙ্গলবার (০৩ মার্চ) শ্রিংলা ঢাকা ত্যাগ করেন । ঢাকা সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে কানেকটিভিটি নিয়ে দুইটি সমঝোতা স্মারক সইয়ের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা ঢাকায় দেশটির হাইকমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি গত বছর জানুয়ারিতে ঢাকার দায়িত্ব পালন শেষে যুক্তরাষ্ট্রে হাইকমিশনার হিসেবে যোগ দেন। সম্প্রতি ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে নিযুক্ত হন শ্রিংলা। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব নিযুক্ত হওয়ার পরে এটাই প্রথম তার বাংলাদেশ সফর।

আর পড়তে পারেন