সোমবার, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সিরিয়া ও ইরাকে আইএস ভার্সন ২.০ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ

ইরাকে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট তথা আইএসের স্বঘোষিত ‘খিলাফত’ রাষ্ট্রের পতন ঘটেছে ২০১৭ সালে। সিরিয়ায় এ গোষ্ঠীর পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। কোণঠাসা হতে হতে এর অবস্থান এখন শেষ ঘাঁটি ইদলিবের ৭০০ কিলোমিটার এলাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে।

‘আইএসের পতন হয়েছে’ বলে ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে সিরিয়ার অধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি অব হিউম্যান রাইটস। কিন্তু পর্যবেক্ষক ও বিশ্লেষকরা বলছেন, যে আইএস চার বছর ধরে প্রবল দর্পে প্রায় যুক্তরাজ্যের সমান এলাকা শাসন করেছে, এত সহজে তার পতন হচ্ছে না এবং শিগগিরই তা ভিন্নরূপে ফিরে আসতে পারে।

সে ক্ষেত্রে সিরিয়া ও ইরাকে আইএস ভার্সন ২.০ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে। মঙ্গলবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

২০১৪ সালের জুনে ইরাক ও সিরিয়ার বিশাল এলাকা দখলে নিয়ে কথিত খিলাফতের ঘোষণা দেয় আইএস। সিরিয়ার রাকাকে রাজধানী ঘোষণা করে। পার্শ্ববর্তী ইরাকের মসুল শহরকে ঘোষণা করে দ্বিতীয় রাজধানী। যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়াসহ ৭৯টি দেশের বিরামহীন বিমান হামলার চাপে ও তাদের সমর্থনপুষ্ট সিরিয়ার সরকারি ও বিদ্রোহী অন্যান্য গোষ্ঠীর বহুমুখী আক্রমণে আইএস পর্যুদস্ত হয়।

এই যুদ্ধে শত শত কোটি ডলার, হাজার হাজার নিরীহ মানুষ ও সম্পদের ক্ষতি হয়েছে। অবশেষে তাদের কোণঠাসা করা গেছে। কিন্তু বিশ্বজুড়ে আইএসের কর্মকাণ্ড এবং তাদের অভিলাষ সম্পর্কে যাদের ধারণা রয়েছে অর্থাৎ বিভিন্ন দেশের নামিদামি গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জঙ্গি গোষ্ঠীটির ব্যাপারে বারবার সতর্ক করে দিচ্ছেন। সম্প্রতি জার্মানিতে হয়ে গেল মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্স।

সেখানে ব্রিটেনের গোয়েন্দা সংস্থা এমআইসিক্সটিন প্রধান অ্যালেক্স ইয়ঙ্গার বলেছেন, ‘আইএসের সামরিক পরাজয় হলেও এর হুমকি একেবারে শেষ হয়ে যায়নি।

এটাকে আমরা আবার অন্যরূপে অন্যভাবে ফিরে আসতে দেখতে পারি এবং সিরিয়ার মধ্যেই। আর এটাই জঙ্গি সংগঠনের ঐতিহ্যবাহী ধরন।’ এমআইসিক্সটিন এর আগে ২০১৪ সালেও আইএসের উত্থানের ব্যাপারে সতর্কবার্তা দিয়েছিল।

একই অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে জার্মান প্রতিরক্ষামন্ত্রী উরসুলা ভন ডার লিয়েন জোর দিয়ে বলেন, ‘পরাজয়ের পর আইএস এখন আত্মগোপনে চলে যাচ্ছে এবং নতুন করে জঙ্গি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে।’

আইএসবিরোধী লড়াইয়ে মার্কিন বাহিনী ইউএস সেন্ট্রাল কামান্ডের পরিচালক জেনারেল জোসেফ ভোটেলও আইএসের ফিরে আসার ব্যাপারে হুশিয়ারি দিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, ‘যদিও আইএস নেটওয়ার্ক আপাতত ভেঙে দেয়া গেছে। এখন তাদের ওপর সামরিক চাপ অব্যাহত না রাখতে পারলে ফের সংগঠিত হতে পারে তারা।’

সিরিয়ায় আইএসের পতন ইরাকের জন্য ফের আরেক বিপদের কারণ হতে যাচ্ছে। গত মাসে পেন্টাগনের এক রিপোর্টে হুশিয়ারি দিয়ে বলা হয়েছে, সুন্নি অধ্যুষিত অঞ্চলে ফের সংগঠিত হচ্ছে তারা। এ ক্ষেত্রে বিশ্ব শিগগিরই হয়তো আইএসের ভার্সন ২ দেখতে পাবে।

আর পড়তে পারেন