সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাক্কুর বিজয় ও সীমার পরাজয়ের নেপথ্যে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৩১, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী আনজুম সুলতানা সীমাকে হারিয়ে দ্বিতীয় বারের মত মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। আলোচিত কয়েকটি বিষয় সাক্কু-সীমার জয় ও পরাজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হল আফজল খান-এমপি বাহারের অর্ন্তকোন্দল, সাক্কুর সাথে এমপি বাহারের সখ্যতা, নৌকার পক্ষে এমপি বাহার গ্রুপের নিস্ক্রিয়তা, জেলা আ’লীগ ও কেন্দ্রীয় নেতাদের ফটোশেসন প্রচারণা, লোটাস কামালের সদর দক্ষিণে সাক্কুর বিজয়। নি¤েœ এ বিষয়গুলো তুলে ধরা হল।
আফজাল খান-বাহার অর্ন্তকোন্দলঃ
কুমিল্লা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কিংবদন্তিতুল্য ঘটনা হচ্ছে আফজাল খান-বাহার দ্বৈরথ। এ দ্বৈরথ নিয়ে রয়েছে বহু গল্প। বিএনপির প্রয়াত নেতা কর্র্নেল (অব.) আকবর হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি কুমিল্লায় আসতেন কম। এর জবাবে বিএনপির এ নেতা বলতেন, তার কুমিল্লা যাওয়ার দরকার হয় না; কারণ সেখানে তার দুইজন কর্মী (আফজাল-বাহার) রয়েছেন, যারা তার নির্বাচনী মাঠ ঠিক রাখেন। এভাবেই আফজাল-বাহারের দ্বৈরথের সুফল নিতো বিএনপি। বিগত সিটি নির্বাচনের পর অস্তাচলে আফজালের রাজনীতি। অন্যদিকে বাহার এখন সদর আসনের এমপি। নৌকার প্রার্থী সীমার প্রচারণায় বাহারের র্কর্মীদের সক্রিয় অংশগ্রহণের দাবি করলেও দৃশ্যত ভোটের মাঠে অনেকটাই নিষ্ক্রিয় ছিল বাহারপন্থিরা। কুসিক র্নির্বাচনে তাই নৌকার প্রার্থীর জন্য বড় ফ্যাক্টর ছিল সদরের এমপি বাহারপন্থিদের ভোট। স্থানীয় সূত্র জানান, অর্ন্তকোন্দল ভুলে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে সক্রিয় ছিলেন না এমপি বাহার গ্রুপের নেতাকর্মীরা। স্থানীয় আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্য আ ক ম বাহারউদ্দিন বাহারের সঙ্গে সীমার পিতা এ্যাড. আফজাল পরিবারের প্রকাশ্য বিরোধ থাকায় তিনি নির্বাচনে সীমার পক্ষে তেমনভাবে কাজ করেননি। অনেকে অভিযোগ করেছেন, নির্বাচনের আগে যারা দিনে আফজাল ও সীমার পক্ষে ছিলেন, রাতে তারা সাক্কুর হয়ে কাজ করছেন, আর ভোটের দিন তারা দিনে সীমার নৌকা প্রতীকের ব্যাজ পরে ধানের শীষে ভোট দিয়ে সাক্কুকে বিজয়ী করেছেন। কুসিক নির্বাচনে যেসব কেন্দ্রে নৌকার ব্যাজধারী বেশী কর্মী দেখা গেছে সেখানেই ধানের শীষের ভোট বেশী পেয়েছে। ফলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ‘আফজাল-বাহার দ্বন্দ্বের বলি’ হয়েছেন সীমা, এমন মন্তব্যও করেছেন অনেকে।
এ বিষয়ে আফজল খান বলেন, আওয়ামী লীগের লোকজনের বেইমানির কারণেই এটা হয়েছে।’ কে কে বেইমানি করেছে এ বিষয়ে আমি এখন কিছু বলবো না।’
এমপি বাহার-সাক্কু সখ্যতাঃ
সাক্কু-এমপি বাহারের সখ্যতার বিষয়টি কুমিল্লার রাজনীতিতে সব সময় আলোচ্য বিষয়। বিভিন্ন সূত্রমতে, গতবারও এমপি বাহারের সমর্থন পেয়ে সাক্কু মেয়র নির্বাচিত হয়েছিল। আর এবারও একই পথে এমপি বাহার হেটেছেন বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়। এমপি বাহারের নেতাকর্মীদেরও তেমন সক্রিয়ভাবে নৌকার প্রচারণায় দেখা যায়নি। সূত্রমতে, এবারোও সাক্কুর বিজয়ে এমপি বাহারের গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল।
লোটাস কামালের সদর দক্ষিণে সাক্কু বিজয়ীঃ
সদর দক্ষিণের ৯টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার প্রায় ৬০ হাজার। সদর দক্ষিণের স্থানীয় এমপি ও পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল। এ অংশে সীমার চেয়ে প্রায় ৪ হাজার বেশি ভোট পেয়েছে বিএনপি প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। সেখানে আ’লীগ সমর্থিত বেশিরভাগ কাউন্সিলর পাশ করলেও হেরেছে আ’লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সীমা । ফলে নৌকার পক্ষে নেতাকর্মীদের নির্বাচনী প্রচারণার বিষয়টিও এখন রহস্যের জালে আবৃত।
সংখ্যালঘু ভোটারের একটি বৃহৎ অংশ ভোট দিয়েছে সাক্কুকেঃ
কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ভোটারদের এক চর্তুথাংশ হচ্ছে সংখ্যালঘু। নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের দেড় শতাধিক এলাকায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এ ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৩৮ হাজার। এ হিসেবেও এগিয়ে রয়েছেন নারীরা। ঐতিহ্যগতভাবে সংখ্যালঘু ভোটারদের বিবেচনা করা হয় আওয়ামী লীগের ভোট ব্যাংক। তাই নির্বাচনে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোট বিএনপি প্রার্থীর জন্য বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায়। তবে নগরীর হিন্দু সমপ্রদায়ের প্রায় এলাকাগুলোতে সাক্কুর জয়ে প্রমাণ করে যে, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সব ভোট আওয়ামী লীগ প্রার্থী পায়নি। স্থানীয় সূত্রমতে, কুমিল্লা সিটিতে হিন্দুদের একটি অংশের বড় সমর্থন পেয়েছে সাক্কু।
জেলা আ’লীগ ও কেন্দ্রীয় নেতাদের ফটোশেসন প্রচারণাঃ
সীমা আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর কেন্দ্রের অসংখ্য নেতাকর্মী কুমিল্লায় সফর করে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন। শহরের কয়েকপি বিপণী বিতানেই বেশির ভাগ নেতাকর্মী ফটোসেশনের প্রচারণা চালিয়ে ঢাকায় গেছেন। আর তাদের পিছনে পিছনে ছুটেছেন জেলা ও মহানগর আ’লীগ এবং এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। লক্ষ্য একটাই কেন্দ্রীয় নেতাদের মনোযোগ আর্কষণ করে মহানগর আ’লীগ, যুবলীগ এর কমিটিতে নিজেদের নাম অর্ন্তভূক্ত করা। ফলে ফটোসেশনের প্রচারণায় কার্যত বন্দি ছিল সীমার ভাগ্য।
বিএনপির ঘাঁটি কুমিল্লাঃ
কুমিল্লা সব সময় বিএনপির ঘাঁিট হিসেবে পরিচিত। সাক্কুর পাশের মধ্য দিয়ে তা আবার প্রমাণিত হল। অপরিকল্পিত নগরী, জলাবদ্ধতা, যানজট থাকা সত্ত্বেও ধানের শীষের প্রতীককেই আবার বেছে নিয়েছে কুমিল্লা।

আর পড়তে পারেন