সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাইবার বুলিংয়ে ভয় নয়, প্রয়োজন সতর্কতা ও সচেতনতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২১, ২০২১
news-image

 

বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তির যুগে এসে সাইবার অপরাধ জটিল আকার ধারন করেছে ৷ যার শিকার হচ্ছে কমবেশি সব বয়সের মানুষ। যার মধ্যে অনলাইনে সবচেয়ে বেশি সাইবার বুলিং এর ঘটনা ঘটছে । করোনা কালীন সময়ে অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোর-কিশোরীরা, তরুণ তরুণী শিকার হচ্ছেন সাইবার বুলিং এর এর মধ্যে নারীদের সংখ্যা বেশি । বিনিময়ে চাওয়া হচ্ছে অর্থ কিংবা করা হচ্ছে সম্মানহানি। বুলিং বলতে আমরা বুঝি দুইজন ব্যক্তির মধ্যে তর্ক বা কথা–কাটাকাটির জের ধরে একজন ব্যক্তিকে সুনির্দিষ্টভাবে সবার সামনে দোষারোপ বা খারাপ ভাষায় আক্রমণ করা। আবার একজনের ছবি বা ভিডিও বিকৃতি করে অনলাইনে তুলে ধরাও বুলিংয়ের মধ্যে পড়ে ৷ যা একধরনের সাইবার অপরাধ।

২০২১ সালের জুন মাস পর্যন্ত ছয় মাসে সিটি-সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে সাইবার অপরাধের শিকার ৮২৭ ভিকটিমকে সেবা দেয়া হয়। অনলাইনে সাহায্য করা হয় ৮ হাজার ৭৭০ জনকে । কিন্তু এর বড় অংশই রয়েছে আইনি সাহায্যের বাইরে। পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন শাখার একটি ফেসবুক পেজ রয়েছে । এই পেজের ইনবক্সে সাইবার বুলিংয়ের শিকার নারীরা তাদের সমস্যার কথা লিখে পাঠানোর ব্যবস্থা রয়েছে। অভিযোগ বা সমস্যাটি পাওয়ার পর যাচাই-বাছাই করে আইনী সেবা দেয়া হয়ে থাকে। এ শাখার হটলাইন নাম্বারে সরাসরি ফোন করেও প্রতিকার পান ভিকটিমরা । অভিযোগের গুরুত্ব বুঝে আইনী ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়ে থাকে।

এছাড়াও অনলাইনে সহিংসতা ও সাইবার হয়রানির শিকার হলে আইনী সহায়তা নেওয়ার জন্য কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন, সাইবার পুলিশ সেন্টার, হ্যালো সিটি অ্যাপ, রিপোর্ট টু র‍্যাব অ্যাপ, ৯৯৯ এবং প্রতিটির ফেসবুক পেজেও অভিযোগ জানানো যায়। শিশুদের সহায়তায় ১০৯৮ নাম্বারে, নারী ও শিশুদের সহায়তায় ১০৯ হটলাইনে ফোন করেও সেবা নেওয়া যায়।

পরিশেষে সাইবার বিলিং এ ভয় নয় কারন এসব অপরাধ দমনে দেশে যেমন আইন রয়েছে তেমনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রয়েছে সদা তৎপর৷ সেই সাথে অপরাধ দমন এবং সেবা প্রদান করার জন্য সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন৷ তাই দরকার শুধু সচেতন হওয়া ও সতর্ক থাকা ৷

লেখকঃ মোঃ আবদু্ল্লাহ আল ফারুক, শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷

 

আর পড়তে পারেন