সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সরাইলে শহীদ মিনারে ফুল দিতে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৫

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৬, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় মহান স্বাধীনতা দিবসে শহীদ মিনারে ফুল দিতে এসে বিএনপির দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার (২৬ মার্চ) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলা সদরে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার সকালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবসে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসেন সরাইল বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মাস্টার ও আক্তার হোসেনের নেতৃত্বাধীন পদ বঞ্চিত বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা।

এছাড়া উপজেলা বিএনপির নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির নেতাকর্মীরা শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসেন। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ঘটে। পরে দেশীয় অস্ত্র বল্লম-টেঁটা নিয়ে শহীদ মিনার এলাকায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তারা।

পুলিশ পরিস্থিতি শান্ত করতে গেলে বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা করেন। এ ঘটনায় পুলিশসহ দুই পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট নুরুজ্জামান লস্কর তপু বলেন, ‘আমরা পুলিশের সঙ্গে কথা বলে তাদের দেয়া সময়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ফুল নিয়ে শহীদ মিনারে প্রবেশ করব, এমন সময় আনোয়ার হোসেন মাস্টারের সমর্থক যুবদল নেতা মুন্না, ছাত্রদল নেতা জব্বার ও জামালের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর হামলার চেষ্টা করে। আমাদের লোকজন তাদের প্রতিহত করতে গেলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পুরো ঘটনা শহীদ মিনারে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা এবং সাংবাদিকরা দেখেছেন।’

বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন মাস্টার বলেন, ‘আমি শহীদ মিনারে যাইনি। আগেই আমি সবাইকে জানিয়ে দিয়েছি শহীদ মিনারে আমার না যাওয়ার বিষয়টি। মুন্নার বাড়ির কাছে শহীদ মিনার। মনে হয় তপুকে দেখে মুন্না উত্তেজিত হয়ে এমনটি করতে পারে। মুন্না আমার কথা শোনে না। আমি এই ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত নই।’

সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন বলেন, ‘সংঘর্ষে ঘটনায় থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাকির হোসেন খন্দকার ও সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) দিলীপ কুমার নাথসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ছয়জনকে আটক করা হয়েছে।
সূত্র-জা:নি

আর পড়তে পারেন