সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সরকার আগাম নির্বাচনের বাতাস দিয়ে দিয়েছে -গয়েশ্বর চন্দ্র রায় 

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে ‘নির্বাচনের প্রস্তুতি’ নিয়ে আলোচনার এক সপ্তাহের মধ্যে এবার নিজ দলের নেতা–কর্মীদের মনোভাব বুঝতে সভা ডাকল বিএনপি। প্রায় সাড়ে তিন বছর পর হঠাৎ করে বড় পরিসরে দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সম্পাদকীয় পদের নেতাদের নিয়ে ডাকা এই সভা কৌতূহলের সৃষ্টি করেছে রাজনৈতিক অঙ্গনেও। আজ মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের এই সাংগঠনিক সভা আন্দোলনের কৌশল ঠিক করতে, নাকি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে, তা নিয়ে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা–কর্মীদের মধ্যে আলোচনা আছে।

বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আপাতত নির্বাচন নয়, একটি বৃহত্তর আন্দোলনের চিন্তা থেকেই সাংগঠনিক সভা আহ্বান করা হয়েছে। রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আজ থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের এ সভায় দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পৌনে চার শ নেতাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সভায় মাঠপর্যায়ের নেতাদের মনোভাব জানার চেষ্টা করবেন দলের নীতিনির্ধারকেরা। আমন্ত্রিত নেতাদের সঙ্গে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যরাও সভায় উপস্থিত থাকবেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়  বলেন, ‘আমরা আন্দোলন করি না কী করি, সেটা পরের ব্যাপার। সরকার আগাম নির্বাচনের বাতাস দিয়ে দিয়েছে। পরিবেশ পরিস্থিতির কারণে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আমাদের কোনো ইন্টারেকশন নেই। মাঠের চিত্র কী, মাঠের নেতা–কর্মীদের মনোভাব কী, তা জানা দরকার। এসব অবগত হয়েই তো আমাদের এগোতে হবে।’

দলীয় সূত্র জানায়, ঢাকার বাইরে থাকায় এবং অসুস্থতার কারণে স্থায়ী কমিটির দুজন সদস্যসহ আমন্ত্রিত ৭০-৭৫ জন নেতা আজকের সভায় উপস্থিত থাকতে পারছেন না। এই সভার বিশেষ দিক হচ্ছে, দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে এই প্রথম বড় আকারের কোনো সাংগঠনিক সভা হতে যাচ্ছে। লন্ডনপ্রবাসী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ভার্চ্যুয়ালি এই সভায় সভাপতিত্ব করবেন। মা খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দলের দায়িত্ব পাওয়ার পর এই প্রথম তারেক রহমানের নেতৃত্বে নির্বাহী কমিটির নেতাদের সভা হচ্ছে।

আমরা আন্দোলন করি না কী করি, সেটা পরের ব্যাপার। সরকার আগাম নির্বাচনের বাতাস দিয়ে দিয়েছে। মাঠের চিত্র কী, মাঠের নেতা–কর্মীদের মনোভাব কী, তা জানা দরকার।

৯ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতা-কর্মীদের আগামী সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেন। ওই সভার পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও বিএনপিকে এদিক-ওদিক ঘোরাঘুরি না করে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার পরামর্শ দেন। নির্বাচন ঘিরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সক্রিয় থাকতে এক লাখ অনলাইন অ্যাকটিভিস্টের সমন্বয়ে একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরিও কাজ শুরু করছে আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের বিভিন্ন বক্তব্য ও কার্যক্রমে রাজনীতিতে হঠাৎ করেই নির্বাচনী আলোচনা শুরু হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসায় রাজনৈতিক দলগুলোও নানা কর্মসূচি নিচ্ছে।

 

আর পড়তে পারেন