শনিবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সরকারি ওষুধ পাচারের ছবি ও ভিডিও ধারণ করায় সাংবাদিকদের দুই ঘন্টা হাসপাতালে অবরুদ্ধ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৭, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বরিশালে সরকারি হাসপাতালের ওষুধ পাচারের ছবি ও ভিডিও ধারণ করায় ১০ সংবাদিককে দুই ঘণ্টারও বেশি অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার রাতে বরিশালের গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এই ঘটনা ঘটে।

অবরুদ্ধ থাকা অবস্থায় সংবাদকর্মীরা ফেসবুক লাইভে এসে ঘটনার বিবরণ দিলে হাসপাতাল কম্পাউন্ডে শত শত মানুষ জড়ো হন। ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয়রা অভিযুক্ত উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং আবাসিক মেডিকেল অফিসারকে প্রত্যাহার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও)বাস ভবনের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করেন। পরে ইউএনও বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিলে উত্তেজিত এলাকাবাসী শান্ত হয়।

পরে ইউএনও’র নির্দেশে তল্লাশি চালিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সাইয়্যেদ মোহাম্মদ আমরুল্লাহ এবং আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাজেদুল হক কাওসারের হাসপাতাল কোয়ার্টারের পাশের ঝোপ থেকে বস্তা ভর্তি সরকারি ওষুধ ও ইনজেকশন উদ্ধার করা হয়। এর প্রতিটির মেয়াদ রয়েছে আগামী ২০২২ সাল পর্যন্ত।

গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সাইয়্যেদ মোহাম্মদ আমরুল্লাহ নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, স্টোর কিপার ডেট ওভার কিছু ওষুধ পুড়িয়ে ফেলেছে। বস্তাভর্তি সরকারি ওষুধ উদ্ধার এবং সাংবাদিকদের জিম্মি করে রাখার ব্যাপারে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাজেদুল হক কাওসার পুরো ঘটনার দায়ভার স্টোর কিপার সাইদুল ইসলামের ওপর চাপিয়ে দিয়ে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। তবে সাংবাদিকদের ধারণ করা ভিডিও ফুটেজে ঘটনাস্থলে তার (মাজেদুল কাওসার) উপস্থিতি থাকার ব্যাপারে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

গৌরনদীর ইউএনও বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, সংবাদকর্মীদের অবরুদ্ধ রাখার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করা হয়েছে। পাশাপাশি বেশকিছু সরকারি ওষুধ জব্দ করা হয়, যার অধিকাংশরই ডেট রয়েছে। পুরো ঘটনাটি সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করার পাশাপাশি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গৌরনদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আফজাল হোসেন জানান, ইউএনও’র তথ্যের ভিত্তিতে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তবে ওই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ করা হয়নি।

অভিযোগ রয়েছে, সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে ওষুধ বরাদ্দ হলেও কয়েকজন অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে গৌরনদী উপজেলা হাসপাতাল থেকে কোনো ওষুধ সরবরাহ করা হয় না। কারণ, বিভিন্ন কোম্পানির ওষুধ লিখলে ওই কোম্পানির প্রতিনিধিদের মাধ্যমে চিকিৎসকদের মোটা অংকের কমিশন পান। ফলে হাসপাতালের বরাদ্দ থাকা ওষুধ মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যায়। মেয়াদ থাকা বাকি ওষুধ ও ইনজেকশন বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে বিক্রি করা হয়।

আর পড়তে পারেন