সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সমস্যায় জর্জরিত কুমিল্লা সমাজসেবা কার্যালয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২৯, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একটি মন্ত্রণালয় । বাংলাদেশ সরকারের অন্যতম এ মন্ত্রণালয় দেশের সামাজিক উন্নয়ন, সমাজ সেবা এবং এই সংক্রান্ত বিধি-বিধান প্রণয়ন এবং নীতিনির্ধারণের লক্ষ্যে কাজ করে। দেশে সরকারী উদ্যোগে সমাজকল্যাণমূলক কার্যক্রমসমূহ সুসমন্বিত করার উদ্দেশ্য নিয়ে ১৯৮৯ সালের ০৯ নভেম্বর সরকারের আদেশ বলে “সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়” একক নামে একটি সম্পূর্ণ পৃথক মন্ত্রণালয় হিসেবে স্থাপিত হয়। ২১ ডিসেম্বর ১৯৮১ তারিখে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কার্যতালিকা নির্ধারণ করা হয়।

এ মন্ত্রণালয়ের অভিলক্ষ্য “উন্নত জীবন এবং যত্নশীল সমাজ”। আর আরাধ্য হলো “সামাজিক সুরক্ষা, ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নের মাধ্যমে দরিদ্র, অসহায় জনগোষ্ঠী এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নত জীবন প্রস্তুত”। মধ্যমেয়াদি কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহ হলো: (ক) আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে সাম্যতার বিধান; (খ) সমস্যাগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর জন্য সামাজিক সুরক্ষা এবং (গ) সামাজিক ন্যায় বিচার ও পুনঃএকত্রীকরণ।

কুমিল্লা আদালতের উত্তর গেট এ রাস্তার পাশে অবস্থিত ব্রিটিশ সরকার এর আমলে কার্জন কুটির বর্তমানে তা সমাজ সেবা অধিদপ্তর হিসেবে পরিচিত বর্তমানে এই অফিসের সামনেই পরিবেশ অধিদপ্তরের একটি অফিস হচ্ছে।

সরজমিনে ঘোরে দেখা গেল অফিসে ঢোকার সদর দরজার উপরে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের একটি সাইনবোর্ড যা একেবারেই বেহাল দশা।

সূত্রে জানা গেছে বহুদিন ধরে এই অফিসে উন্নয়ন মূলক কাজ হচ্ছে না। বর্তমানে যে ভবনে অফিসের কার্যক্রম চালু আছে তা খুবই পুরাতন একটি ভবন যা ব্রিটিশ শাসন আমলে কার্জন কুটির নামে পরিচিত ছিল।

ভবনটির ছাদের প্লাস্টার খসে পরছে, দেয়ালে রঙ করা হয় না বহু দিন ধরে, অফিসের যে পাখা গুলো আছে তাও পুরানো।

অফিসটিতে ৭ টি কক্ষ রয়েছে তার মধ্যে অফিসার, অফিস সহকারি, স্টাফ, স্টোর একটি করে কক্ষ আছে, ট্রেনিং এর জন্য আছে ৩ টি কক্ষ।

এই অফিসে মোট ১০ জন কাজ করে কিন্তু এই ১০জন এর জন্য বাথরুম এর ব্যবস্থা মাত্র একটি।

জনবল নিয়ে জানতে চাওয়াতে একজন কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে অফিসটিতে জনবলের ঘাটতি নেই।

একজন কর্মকর্তার কাছে অফিস চলাকালীন সময় কোন ধরনের অসুবিধার সম্মুক্ষিন হতে হয় কিনা জানতে চাওয়াতে, ঐ কর্মকর্তা জানান অফিস চলাকালীন সময় স্থানীয় ছেলেরা আড্ডা দেয়, প্রবেশ দারে বসে থাকে তাদের যখন আড্ডা না দিতে ও প্রবেশ দারে বসতে নিষেধ করা হয় তখন তারা নোংরা ভাষা ব্যবহার করে। তারা এমন কি স্থানীয় গন্য মান্য ব্যাক্তিদের কথাও শোনে না। এই বিষয়ে স্থানীয়দের কাছে জানতে চাওয়াতে তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এই বিষয়ে সমাজ সেবা অফিসার মো: মাসুম ভূইয়ার সাথে যোগাযোগ করতে গেলে জানা যায়, তিনি বুনিয়াদি প্রশিক্ষনের জন্য ঢাকায় অবস্থান করছেন। তার পক্ষ থেকে অফিস সহকারি বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেন।

আর পড়তে পারেন