সোমবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সচেতনতাই পারে যুবসমাজকে মাদক থেকে রক্ষা করতে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৪, ২০১৮
news-image

মোঃ মাসুদ হোসেনঃ
বর্তমানে মাদকাসক্তি আমাদের সমাজে এক সর্বনাশা ব্যাধিরুপে বিস্তার লাভ করছে। আজকাল তরুণ প্রজন্মের কাছে অতি সহজেই মাদকদ্রব্য পৌঁছে গেছে। বর্তমান বিশ্বে সমগ্র মানব জাতির জীবন ও সভ্যতার জন্য অত্যন্ত বড় হুমকি হলো ড্রাগ বা মাদকাসক্ত। আর এ মাদকাসক্ত একটি অভ্যাসগত রোগ এবং তা ধিরে ধিরে মানুষকে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যাচ্ছে। মাদকাসক্তদের প্রতি আমাদের সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিটা এখনো খুব নেতিবাচক। মাদকাসক্তের কারণে আজ বুক ফাটা কান্নায় পৃথিবীর আকাশ বাতাস ভারি হয়ে যায়, পরিবারগুলোতে আজ অকালে নেমে আসে শোকের ছায়া। কি সে ভয়াবহ নেশা? যা মায়ের বুক থেকে সন্তানকে ছিনিয়ে নেয় চিরতরে। সন্তানের হাতে খুন হচ্ছে নেশার টাকা যোগাতে ব্যর্থ পিতা। মাদকাসক্ত সন্তানের অত্যাচার নির্যাতন সইতে না পেরে ভাড়াটে খুনি দিয়ে নিজ সন্তানকে খুন করাচ্ছে গর্ভধারিণী মা। মাদকাসক্তে আসক্ত তরুণদের দেখা দেখি যুক্ত হচ্ছে শিশু কিশোররাও। এতে ভয়াবহ রুপ নিতে চলছে আমাদের সমাজ।

মাদকদ্রব্য ব্যবসা বড়ই লাভের ব্যবসা। তাইতো এক শ্রেণির মানুষ স্বল্প পুঁজিতে বেশী লাভ এই আশায় মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছেন। কিন্তু এ ব্যবসায় নষ্ট করে দিচ্ছে বাংলার যুব সমাজকে।
বর্তমান সময়ে গোট দেমে যত সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, ধর্ষণ,অপহরণ বাণিজ্যের মত সংঘবদ্ধ অপরাধ মাস্তানি হয়ে থাকে মাদকাসক্ত তার প্রধান কারন। মাদকের এই ছোবল ছড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশের শহরে, নগরে, গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে। বিভিন্ন মাদক দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে হিরোইন, কোকেন, আফিম, গাঁজা, ফিনসিডাল, ইয়াবা ট্যাবলেট, মরফিন, দেশি মদসহ বিভিন্ন রকমের ইনজেকশন। আর এসব মাদকদ্রব্য খুব সহজেই এখন হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে। মাদক সেবন ও ক্রয়-বিক্রয় প্রতিরোধে প্রশাসনের পাশাপাশি পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও জনপ্রতিনিধিদের

সচেতনতাই গড়ে উঠবে একটি সুখি-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ। বিদ্যমান আইনের সঠিক ও কঠোর প্রয়োগ থাকলে ছাড় পাবে না কোন অপরাধী। সুন্দর হবে আমাদের সমাজ। তবে সব সমাধান করা সম্ভব না হলেও আমাদের পরিবারের সদস্য দিয়ে এর ব্যবহার বন্ধ করা শুরু করলে মনে হয় একটা সময় মাদক মুক্ত সমাজ গড়ে উঠবে বিশ্বাস।

মোঃ মাসুদ হোসেন
সাংবাদিক ও কলামিষ্ট।

আর পড়তে পারেন