বুধবার, ১৩ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শাহরাস্তিতে শিশু সন্তানের সামনে কুমিল্লার মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১
news-image

 

মো: রুহুল আমিন :

চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলায় শিশু সন্তানের সামনে মাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ১৬ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে সাতটা থেকে আটটার মধ্যে শাহরাস্তি উপজেলার রায়শ্রী দক্ষিণ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের আহম্মদ নগর গ্রামের ছোট পোদ্দার বাড়িতে এই খুনের ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, সৌদী প্রবাসি বাবা ইসমাইল হোসেনের বড় সন্তান নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১)। কুমিল্লা শহরে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে প্রিয়া বাবার বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন। তার স্বামীর নাম হৃদয় হোসেন (২৫)। তিনি কুমিল্লা শহরে ব্যবসা করেন। ঘটনার সময় প্রিয়ার স্বামী হৃদয় ব্যবসায়ীক কাজে কুমিল্লায় অবস্থান করছিলেন। প্রিয়া-হৃদয় দম্পতির আনহার নামের ১৮ মাসের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

জানা যায়, গত কয়েকদিন যাবৎ সন্তান আনহার জ্বর ও গুটি বসন্তে ভুগছিল। শিশু সন্তানের চিকিৎসার জন্য ঐদিন প্রিয়াসহ তার মা আনহাকে স্থানীয় চিকিৎকের নিকট নিয়ে যান। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে তারা বাড়ি ফিরে আসেন। প্রিয়া মেয়ে আনহার গুটিবসন্তের চিকিৎসার জন্য স্থানীয় এক কবিরাজের নিকট প্রিয়াকে বাড়িতে রেখে মা রুমি আক্তার কবিরাজের বাড়ি যান। রাত আনুমানিক পৌনে আটটার দিকে মা রুমি কবিরাজ বাড়ি থেকে বাড়ি ফিরে এসে শিশু আনহার ঘরের ভিতর থেকে কান্না আওয়াজ শুনতে পেয়ে চিৎকার করে মেয়ে প্রিয়াকে দরজা খুলতে বাহির থেকে ডাকছিলেন। এসময় বাহির থেকে তালাবিহীন দরজা আটকানো ছিলো। ভিতর থেকে প্রিয়ার কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে মা রুমি আনহারকে কোলে নিয়ে ভিতরের কক্ষে গিয়ে দেখেন প্রিয়ার ঘাড়, গাল ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রে কুপিয়ে হত্যা করা ক্ষত-বিক্ষত নিথর দেহ। মেয়ের এদৃশ্য দেখে মা রুমি আক্তারের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে।

সংবাদ পেয়ে শাহরাস্তি মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে এই বিভর্ষ হত্যার রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা করেন। এসময় পিআইবি ও সিআইডি ঘটনাস্থলে পৌঁছে আলামত সংগ্রহ করতে থাকে।

ঘটনার বিষয়ে শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান জানান, খুনে একাধিক ব্যক্তি জড়িত থাকতে পারে। কি কারনে এই খুনের ঘটনা ঘটেছে তা বের করার জন্য আমরা তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। রাত আড়াইটায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মরদেহ সুরতহাল করে ময়না তদন্তের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। খুনের ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

আর পড়তে পারেন