বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শাহরাস্তিতে ধর্ষণের শিকার শিশুর পরিবারের পাশে পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৪, ২০১৭
news-image

 

সিদ্দিকুর রহমান নয়ন,শাহরাস্তিঃ
চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শাহরাস্তি উপজেলায় মাদ্রাসা শিক্ষক কর্তৃক ধর্ষণের শিকার তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় তিনি হাসপাতালের গাইনী বিভাগে গিয়ে সেখানে চিকিৎসাধীন ওই শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলেন। এ সময় তিনি কর্মরত চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীর মার সাথে কথা বলেন এবং আটক ওই লম্পট শিক্ষককে সর্বোচ্চ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার বিষয়ে আশ্বাস দেন। এছাড়াও শিশুটির চিকিৎসার ক্ষেত্রে যাতে কোনো ক্রটি না হয় সে বিষয়টি খেয়াল রাখার জন্যে তিনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন।

পুলিশ সুপার শাসুন্নাহার বলেন, আটক অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক ওহিদুজ্জামান আদালতে নিজের দোষ শিকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। তার বক্তব্যে আমরা জানতে পেরেছি যে, শিশুটি শাহরাস্তি পৌরসভাধীন বাত্তলা গ্রামের বাত্তলা আলীমুল কোরআন নূরানী মাদ্রাসায় আরবি পড়তো। গত ৩১ জুলাই ঘটনার দিন বেলা ১২টায় পরীক্ষা শেষে শিক্ষক ওহিদুজ্জামান সব শিক্ষার্থীকে ছুটি দিয়ে শুধুমাত্র এই শিশুটিকে পরীক্ষার পড়া দেখিয়ে দেয়ার কথা বলে অফিস কক্ষে রেখে দেয়। পরে সে অফিস কক্ষেই শিশুটিকে ধর্ষণ করে। তবে বিষয়টি যাতে সে তার বাবা-মাকে না বলে এজন্যে তাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে বলে পুলিশ সুপার জানান।

পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার আরো বলেন, ওইদিনের ঘটনার খবর পেয়ে আমরা দ্রুততার সাথে একদিকে পুলিশ পাঠিয়ে অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক ওহিদুজ্জামান (৩০)কে আটক করেছি, অন্যদিকে শিশুটির উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। এই ঘটনার অভিযুক্ত শিক্ষককে সর্বোচ্চ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। যাতে করে আর কেউ এমন জঘন্যতম অপরাধ করতে সাহস না পায়।

শিশুটির অভিভাবক ও সকল বাবা-মায়ের উদ্দেশ্যে পুলিশ সুপার বলেন, ৯/১০ বছরের মেয়েদের ব্যাপারে তাদের বাবা-মা অনেক অসচেতন থাকেন। তারা মনে করেন, এ বয়সের মেয়েরা শিশু, তাই তাদের উপর কেউ খারাপ দৃষ্টি দেবে না। এজন্যে তাদের শিশু কন্যারা কোথায় খেলাধুলা করে এবং কার সাথে মিশে সেদিকে খুব একটা নজর দেন না। এজন্যে আমি প্রত্যেক বাবা-মাকে অনুরোধ করবো, আপনারা আপনাদের শিশু কন্যার দিকে বেশি নজর রাখবেন। যাতে তার কোনো ক্ষতি কেউ করতে না পরে।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের গাইনী বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ ফাতেমা বেগম ও তাঁর সহযোগী ডাঃ দিলরুবা আক্তার বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসায় শিশুটিকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। শিশুটির উপর অমানুষিক অত্যাচার করা হয়েছে। বর্তমানে সে আশঙ্কামুক্ত এবং অনেকটাই সুস্থ।

পুলিশ সুপারের পরিদর্শনকালে শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই শাহরাস্তি পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের বাত্তলা গ্রামের বাত্তলা আলীমুল কোরআন নূরানী মাদ্রাসার শিক্ষক তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। ঘটনার দিন বেলা ১২টায় পরীক্ষা শেষে মাদ্রাসা শিক্ষক ওহিদুজ্জামান ছাত্রীটিকে পরীক্ষার পড়া দেখিয়ে দেয়ার কথা বলে অফিস কক্ষে রেখে এ ঘটনা ঘটায়। বেলা ১টায় সে বাড়িতে যায়। কিন্তু ভয়ে এ ঘটনা কাউকে জানায়নি। দুপুরের পর ছাত্রীটি অসুস্থ হয়ে পড়লে বড় বোন তার কাছ থেকে ঘটনাটি জানতে পেরে প্রথমে শাহরাস্তি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং সেখান থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। এদিকে রাতে অবস্থার অবনতি ঘটলে সেখান থেকে দ্রুত তাকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই রাতেই মেয়েটির মা বাদী হয়ে শাহরাস্তি থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর শাহরাস্তি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক ওহিদুজ্জামানকে আটক করে।

আর পড়তে পারেন