মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শাহরাস্তিতে জন্মদাত্রী মা’কে কুপিয়ে জখম করেছে পুত্র ও পুত্রবধূ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৬, ২০২১
news-image

 

মোঃ রুহুল আমিনঃ

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে জন্মদাত্রী মা’কে কুপিয়ে জখম, রড দিয়ে পিটিয়ে আহত ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করেছে পুত্র ও পুত্রবধূ।

উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের পাথৈর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুত্র সুমন মিয়াকে (৩০) আটক করে মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে পুত্রের দায়ের কোপে আহত হয়ে হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন জন্মদাত্রী মা সেনোয়ারা বেগম (৫৫)। স্ত্রীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় তাদের হামলা হতে রেহাই পাননি পিতা মোঃ আবুল হাশেম (৬২)। ইতোপূর্বে বেশ কয়েকবার পুত্র ও পুত্রবধুর হাতে মার খেয়ে বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ করেও প্রতিকার পাননি বলে অভিযোগ করেছেন পৌঢ় এ দম্পতি।

ঘটনার বিবরণে সোমবার (১৫ মার্চ) শাহরাস্তি থানায় ভুক্তভোগী মায়ের দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মৃতঃ সুলতান আহম্মদের পুত্র মোঃ আবুল হাশেম (৬২) ও তার স্ত্রী সেনোয়ারা বেগমের (৫৫) সাথে দীর্ঘদিন ধরে পুত্র সুমন মিয়া এবং পুত্রবধু জান্নাতের বনিবনা হচ্ছিল না। গত শনিবার (১৩ মার্চ) সকাল সাড়ে ৬টায় পারিবারিক বদানুবাদের জের ধরে পুত্র সুমন মিয়া তার মা সেনোয়ারা বেগমকে এলোপাথাড়ি কিল ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। একপর্যায়ে সুমন দা দিয়ে কুপিয়ে তার মায়ের কপালের বাম পাশে রক্তাক্ত জখম করে। সেনোয়ারা বেগম মাটিতে পড়ে গেলে পুত্রবধু জান্নাত (২৫) তাকে এলোপাথাড়ি রড দিয়ে পিটিয়ে এক পর্যায়ে গলা চেপে ধরে। স্ত্রীকে বাঁচাতে স্বামী মোঃ আবুল হাশেম এগিয়ে এলে পুত্র ও পুত্রবধূ তাকেও পিটিয়ে আহত করে।

এ ব্যাপারে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সেনোয়ারা বেগম জানান, ভরণ-পোষণ তো দূরের কথা পুত্র ও পুত্রবধূ প্রায়ই আমাকে মারধর ও গালাগাল করে।

সুমনের পিতা মোঃ আবুল হাশেম জানান, রিক্সা চালিয়ে, রাজমিস্ত্রির কাজ করে এবং কামলা খেটে এই ছেলে ও ৩ মেয়েকে লালন-পালন করেছি। বিয়ের পর হতে স্ত্রীকে নিয়ে আলাদা থাকছে সে। আমার স্ত্রীর নামে থাকা জায়গা তাকে না লিখে দেয়ায় প্রায় সময় আমাকে ও তার মাকে মারধর করছে।গত ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর সুমন তার মা ও আমাকে মারধর করলে চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ করি। চেয়ারম্যানের গ্রাম আদালতে উপস্থিত হয়ে সুমন প্রকাশ্যে আমাকে ও আমার স্ত্রীকে হুমকী দেয়। ৬ মাস ধরে চেয়ারম্যান বিষয়টি সুরাহার চেষ্টা করেও কোন সমাধান দিতে না পারায় গত ২০২০ সালের ৫ জানুয়ারী চেয়ারম্যান আমাদের উর্ধতন আদালতে হাজির হবার পরামর্শ দিয়ে লিখিত প্রত্যয়নপত্র দেন। গত বছরের ৭ এপ্রিল তুচ্ছ ঘটনায় সুমনের স্ত্রী জান্নাত তার শাশুড়িকে লাকড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। মাকে বাঁচাতে এসে তখন আহত হয়েছিলো বড় মেয়ে হাসিনা আক্তার (২৭)।

সর্বশেষ গত ২০২০ সালের ৫ আগস্ট সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতাকে মারধর ও অত্যাচার নির্যাতনের বিচার চেয়ে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ করলে সেখান হতে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেয়া হয়। গণমাধ্যমের কাছে আক্ষেপ করে মোঃ আবুল হাশেম আরও জানান, সন্তান জন্ম দিয়ে, দিনরাত গাধা খাটুনী করে তাদের লালন করার পর বৃদ্ধ বয়সে তার ও তার স্ত্রীর হাতে বারবার মার খেতে হচ্ছে। আল্লাহ যেন শত্রুকেও এমন সন্তান দান না করেন।

শাহরাস্তি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান জানান, মা সেনোয়ারা বেগমের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ পুত্র সুমন মিয়াকে আটক করেছে। আটককৃতকে সকালে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন