মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত : পাঠ্যবইয়ে বাংলা বলার অধিকার প্রস্তাব অন্তর্ভূক্তির দাবি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭
news-image

মাসুক আলতাফ চৌধুরীঃ
১৯৭১ সালেল ২৯ মার্চ শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে কুমিল্লা শহরের ধর্মসাগর পাড়ের নিজ বাসা থেকে ধরে নিয়ে যায় পাক হানাদার বাহিনী। বন্দি দশায় কুমিল্লা সেনানিবাসে ৮৫ বছর বয়স্ক ওই বৃদ্ধাকে অমানষিক নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়। তাঁর সাথে তাঁর ছোট ছেলে দিলীপ দত্তকেও ধরে নিয়ে যায় পাক বাহিনী। পরে পিতা-পুত্রের আর কোন খোঁজ পাওয়া যায় নি। কবে তাঁদের হত্যা করা হয়েছে তা সঠিকভাবে জানা যায় নি।

গবেষক ও মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট গোলাম ফারুক জানান, তিনি কালজয়ী পুরুষ। তাঁর জীবনের অমরকীর্তি ১৯৪৮ সনের ২৫ ফেব্রুয়ারী পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলায় লিখা দাবি করে প্রস্তাব উপস্থাপন। এর ওপর তিনি যুক্তি তুলে ধরে বক্তৃতাও করেন। এই অর্থে আমাদের রাষ্ট্র ভাষা আন্দোলনের সূচনা সেই দিন থেকেই। এই পথপরিক্রমাই ১৯৫২’র ২১ ফেব্রুয়ারী। ১৯৪৮ সনের ২৩ ফেব্রুয়ারী গণপরিষদের অধিবেশন শুরু হলে পরিষদ পরিচালনার নিয়মকানুনে বলা হয়েছিল গণপরিষদের আলোচনায় ইংরেজী বা উর্দু ছাড়া অন্য কোন ভাষা ব্যবহার করা যাবে না। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত প্রথম ব্যক্তি যিনি ভাষার প্রশ্নে সংশোধনী প্রস্তাব পেশ করেন ও বাংলা ভাষাকে সমান মর্যাদাদানের দাবি জানান। ২৫ ফেব্রুয়ারী গণপরিষদের অধিবেশনে তিনি সংশোধনী প্রস্তাবের সমর্থনে এক ঐতিহাসিক বক্তব্য প্রদান করেন। আওয়ামীলীগ সরকার বাংলা ভাষার অধিকার আদায়ে তাঁর অবদানকে জাগরুক রাখতে তাঁকে মরনোত্তর ২১শে পদকে ভূষিত করেন। গোলাম ফারুক দাবি করেন, বাংলা ভাষার অধিকার আদায়ের পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস পরবর্তি প্রজন্মকে জানাতে পাঠ্যবইয়ে ধীরেন দত্তের ওই প্রস্তাব ও বক্তৃতা অন্তর্ভূক্ত করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

গোলাম ফারুক ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ও কীর্তির কথা বলতে গিয়ে জানান, ১৯১০ সনের ১ মার্চ থেকে ১৯১১ সনের ২ জানুয়ারি পর্যন্ত কুমিল্লার বাঙ্গরা উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজির সহকারি প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯১১ সনের ৮ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৯২০ সন পর্যন্ত আইন পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। স্কুল জীবন থেকেই তিনি ছিলেন ইংরেজ বিরোধী। হিন্দু সমাজের বর্ণপ্রথার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও স্বাদেশীকতা ছিল তার সহজাত। ১৯০৫ সনে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক জীবনের শুরু। ১৯০৬ সনে কলকাতা কংগ্রেসের অধিবেশনে স্বেচ্ছাসেবক দলভূক্ত হন। ১৯২৯ সনে কংগ্রেসের লাহোর অধিবেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সর্বভারতীয় আইন অমান্য আন্দোলনে অংশগ্রহণের জন্যে আইন ব্যবসা সাময়িকভাবে পরিত্যাগ করেন। আইন অমান্যের দায়ে ১৯৩০ সনে ২ জুলাই কারাবরণ করেন। কুমিল্লা জেলে অভ্যন্তরে অনুষ্ঠিত প্রহসনমূলক বিচারে ৩ মাসের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত হন। তাঁর ৮৬ বছর বয়স্ক পিতা জগবন্ধু দত্ত তখন মৃত্যুশয্যায়। কারাবন্দি অবস্থায় ১৯৩২ সনের ২ এপ্রিল পিতাকে হারান। ১৯৩৭ সনে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে বঙ্গীয় আইন সভায় নির্বাচিত হন। ভারত বিভাগের পরে পূর্ব পাকিস্তান আইন পরিষদের সদস্য ও পাকিস্তার গণপরিষদের সদস্য ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে মহাত্বা গান্ধির নির্দেশে একক সত্যাগ্রহ কর্মসূচী ঘোষণা করেন। ১৯৪০ সনের ১৪ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ডাকঘরের সামনে প্রকাশ্যে যুদ্ধ বিরোধী ধ্বনি তোলায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। পূনরায় কারারুদ্ধ হন ১৯৪২ সনে। ১৯৪৫ সনে জুনে বাজেট আলোচনাকালে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের একটি ছাটাই প্রস্তাব অধিক সংখ্যক ভোটে গৃহিত হলে খাজা নাজিম উদ্দিন মন্ত্রীসভার পতন ঘটে। বাংলার ইতিহাসে এটি একটি স্মরণীয় ঘটনা। দেশ বিভাগের পর পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য হন। ১৯৪৮ সনে ২৩ ফেব্রুয়ারী গণপরিষদের অধিবেশনের নিয়মানুযায়ী বলা হয় গণপরিষদের আলোচনায় ইংরেজী বা উর্দু ছাড়া অন্য কোন ভাষা করা যাবে না। ধীরন্দ্রে নাথ দত্ত প্রথম ব্যক্তি যিনি ভাষার প্রশ্নে সংশোধনী প্রস্তাব পেশ করেন। বাংলা ভাষাকে সমান মর্যাদাদানের দাবি জানান। ২৫ ফেব্রুয়ারী গণপরিষদের অধিবেশনে সংশোধনী প্রস্তাবের সমর্থনে তিনি এক ঐতিহাসিক বক্তৃতা দেন। আতাউর রহমান খানের নেতৃত্বে গঠিত মন্ত্রীসভায় মেডিকেল, পাবলিক হেলথ ও সোশাল ওয়েলফেয়ার মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন ১৯৫৬ সনের ১৯ সেপ্টেম্বর। দেশে তখন দুর্ভিক্ষাবস্থা। ১৯৫৮ সনের ২৫ আগষ্ট আতাউর রহমান খান পুনরায় সরকার গঠন করলে তিনি ওই মন্ত্রীসভাও অন্তর্ভূক্ত হন। কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হন ১৯৬৪ সনের ডিসেম্বর মাসে। এসময় আইয়ূব খানের বিরুদ্ধে মিস ফাতেমা জিন্নাহকে সমর্থন দেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে। আবার গ্রেফতার হন।

এডভোকেট আনিছুর রহমান মিঠু জানান, বাসার সড়কটি তাঁর নামে বহু আগেই নামকরণ করেছে কুমিল্লা পৌরসভা। বর্তমান সংসদ সদস্য আকম বাহাউদ্দিন বাহার কুমিল্লা পৌরসভার দুইবারের চেয়ারম্যান ছিলেন। এবার সংসদ সদস্য হওয়ার পর তিনি কুমিল্লা স্টেডিয়ামের নাম শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত নামকরণ করেছেন। মিঠু আরও জানান, পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলা বলার অধিকার দাবী সংশোধনী প্রস্তাব উত্থাপন করে তিনি মূলত ভাষা আন্দোলনের সূচনা করেছিলেন। তাই তার ওই বক্তব্যটি পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভূক্ত করে নতুন প্রজন্মকে পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস জানার সুযোগ করে দিতে হবে।

শহরের ১নং কান্দিরপাড় ধর্মসাগর পাড়ের বসতবাড়ি থেকেই তাঁকে ধরে নিয়ে যায় পাক হানাদার বাহিনী। ওই বাড়িতে পরিবারের কেউই এখন থাকেন না। তাই স্মৃতিময় বাড়িটি সংস্কারের অভাবে একেবারেই জরার্জীণ। আধা-পাকা বাড়িটি মাটিতে দেবে গেছে। বাড়ির সামনে ছাউনি দিয়ে দোকানদারী করছেন কেয়ারটেকার রিপন। ১৪ বছর ধরে বাড়িটির দেখাশুনার দায়িত্বে রয়েছেন জানিয়ে বলেন আমার পরিবার বসতঘরটিতে থাকে। তবে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের উত্তরাধিকারীদের কাছেই বাড়িটি রয়েছে।

ধীরেন দত্তের বেঁচে থাকা একমাত্র বড় ছেলে সঞ্জীব দত্ত এখন প্রয়াত। পূত্রবধূ প্রীতিতি দত্ত রয়েছেন। তাঁর এক ছেলে এক মেয়ে। এরা ধীরেন দত্তের নাতি-নাতনি। নাতনি অ্যারোমা দত্ত দেশের স্বনামখ্যাত মানবাধিকার ও সমাজ উন্নয়ন ব্যক্তিত্ব। নাতি রাহুল দত্ত। সবাই ঢাকায় থাকেন।

অ্যারোমা দত্ত জানান, পাঠ্যপুস্তকে সংশোধনী প্রস্তাব ও ভাষণটি অন্তর্ভূক্ত হলে শিক্ষার্থীরা পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস জানার সুযোগ পাবে। কারণ সেই প্রস্তাব থেকেই আমাদের ভাষা আন্দোলনের আনুষ্ঠানিক শুরু। তিনি বলেন, ওই ভাষণে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের সাড়ে ৬ কোটি মানুষের মধ্যে সাড়ে ৪ কোটি সংখ্যা গরিষ্ঠ বাঙ্গালীর ভাষার দাবি উত্থাপিত হয়েছিল। যারা সাধারণ বাঙ্গালী ছিলেন। তিনি বলেন, ওই ভাষণের পর ১০ মার্চ ধীরেন দত্ত ঢাকায় ফিরে এলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাঁকে ফুল ছিটিয়ে বরণ করেন। ১০ মার্চ ভাষা আন্দোলনের জন্যে মোর্চা গঠিত হয়ে যায়। বঙ্গবন্ধু, গাজিউল হকরা ‘মুভমেন্ট’ শুরু করে দেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীতেও তা উল্লেখ রয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের ভাষা সংগ্রামের পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস জানতে হলে ওই প্রস্তাব ও ভাষণের পুরোটা জানতে হবে নতুন প্রজন্মকে। শিক্ষার্থীদের পড়াতে হবে। পড়ার সুযোগ করে দিতে হবে। তিনি একই সাথে ভাষা ইন্সটিটিউটেও ওই ভাষণ প্রদর্শন করার কথা বলেন।

আর পড়তে পারেন