সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শর্ত ভঙ্গ করায় দাউদকান্দি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভিতরে ন্যায্য মূল্যের ফার্মেসি বন্ধ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
শর্ত ভঙ্গ এবং চুক্তির মেয়াদ না থাকায় কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অভ্যন্তরে ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকানটি বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম শোভন সোমবার দোকানটি বন্ধ করে দিয়েছেন।

জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অভ্যন্তরে ন্যায্য মূল্যে ঔষধের দোকান পরিচালনার জন্য ২০১০ সালের মে মাস থেকে তিন বছরের জন্য মেসার্স সরকার মেডিকেল হল কে পরিচালনার জন্য দায়িত্ব দেয় জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়। শর্তানুযায়ী দোকানটি সার্বক্ষনিক ২৫ডিগ্রী সেঃসিঃ তাপমাত্রার নিচে থাকার কথা, ১৫.৭৫ শতাংশ কমমূল্যে ঔষুধ বিক্রী করা হয় এমন সাইনবোর্ড দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন রাখার কথা থাকলেও মেসার্স সরকার মেডিকেল হল এর কোনটিই তোয়াক্কাই করেননি। সরকারী নিয়মনীতি অমান্য করায় গত বছর ২৬ আগষ্ট তৎকালীন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শাহীনুর আলম সুমন ৫দিনের সময় বেধে দিয়ে দোকান খালি করার লিখিত চিঠি দেন, অন্যথায় বিধিমোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার কথাও উল্লেখ করা হয় ওই চিঠিতে। কিন্তু কি কারনে ওইসময় ব্যবস্থা নেয়া হয়নি তা জানা যায়নি।

মেসার্স সরকার মেডিকেল হলের মালিক মোঃ মহিউদ্দিন বলেন, ২০১০ সালের পর আর কোন টেন্ডার হয়নি, আগের টেন্ডারেই আমি চালাচ্ছি। এখন নতুন টিএইচ(স্বাস্থ্য কর্মকর্তা) দোকানটি বন্ধ করে দিয়েছে। আমি প্রতি মাসেই দোকান ভাড়ার টাকা সরকারী কোষাগারে জমা দিচ্ছি। নিয়মনীতি ভঙ্গের বিষয়ে জানতে চাইলে পরে বিস্তারিত বলবেন বলে জানান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম শোভন বলেন, তিন মাস আগে আমি যোগদান করার পর সিভিল সার্জন মহোদয় ভিজিটে আসলে ফার্মেসিটির ব্যাপারে আমাকে খোঁজখবর নিতে বলে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীরা যেন সহজে ঔষুধ ক্রয়ের জন্য বেশ কিছু শর্তসাপেক্ষে দোকানটি ২০১০ সালে মেসার্স সরকার মেডিকেল হল কে বরাদ্দ দেয়া হয়। পরবর্তীতে সরকার আর মেয়াদ বৃদ্ধি করেনি। আমি ফার্মেসির মালিককে ডেকে কাগজপত্র চাইলে সে মাননীয় এমপি স্যার ও উপজেলা চেয়ারম্যানের সুপারিশের কথা বলেছেন। সময় সুযোগে এমপি মহোদয় ও উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করে জেনেছি এব্যাপারে তাদের কোন সংশ্লিষ্টতা বা সুপারিশ নেই। যেহেতু পুরো বিষয়টি ভিত্তিহীন সুতরাং ওনি কোথায় টাকা জমা দিচ্ছেন বা দেন সেটা আমার দেখার বিষয় না।

কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোবারক হোসন বলেন, নিশ্চয় এখানে কোন বিষয় আছে, তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বন্ধ করে দিয়েছে। আমি বিস্তারিত খবর নিব। আর চুক্তি অনুযায়ী সরকারী নিয়মনীতি ভঙ্গ করে থাকলে অবশ্যই বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আর পড়তে পারেন