সোমবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লিভার ক্যান্সারের ৭টি পূর্ব লক্ষণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২২, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

চলুন তাহলে দেখে নেওয়া যাক লিভার ক্যান্সারের পূর্ব লক্ষণ গুলো..

১) পেটে ব্যথা

যদি আপনার পেটে ব্যথা অনুভব করেন , বিশেষ করে পেটের ডান পাশে নিয়মিত ব্যথা হলে তা হতে পারে লিভার ক্যান্সারের জন্য । একজন অনকোলজিস্ট বা লিভার বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলুন সঠিক কারণ জানার জন্য এবং নিরাময়ের জন্য ।

২) পেটে কোন ফোলা বা পিন্ড দেখা গেলে

উপরের বা নীচের পেটে ফোলা বা পিন্ডের মত অংশ দেখা দিলে তা হতে পারে লিভার ক্যান্সারের লক্ষণ । এর পাশাপাশি পেট ভরা থাকার অনুভূতি থাকলে তা লিভার ক্যান্সারের প্রধান লক্ষণ হতে পারে ।

৩) পেট ফুলে যাওয়া

পেট ফুলে গেলে তা অবহেলা করা উচিৎ নয় । কারণ এটি হতে পারে ক্যান্সার কোষের অতিরিক্ত বৃদ্ধির কারণে অথবা লিভারে তরল জমে যাওয়ার কারণে । এর ফলে পেটে ও লিভারের মধ্যে চাপ বৃদ্ধি পায় । এতে শুধু লিভারের কাজেই প্রভাব পড়েনা বরং লিভারের অকার্যকারিতাও দেখা দিতে পারে ।

৪) জন্ডিস

যদিও জন্ডিসে আক্রান্ত হলেই তা লিভার ক্যান্সারের জন্য হবে এমন নয় । কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি লিভার ড্যামেজের প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশ করে । যা পরবর্তীতে লিভার ক্যান্সারে পরিণত হতে পারে । ত্বক ও চোখ হলুদ হয়ে যাওয়া , ফ্যাকাসে মল ও গাঁড় প্রস্রাব হলে অবহেলা করা উচিৎ নয় বরং দ্রুত নিরাময়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিৎ ।

৫) অবসাদ

অবসাদ অনুভব করা লিভার ক্যান্সারের তেমন কোন তীব্র লক্ষণ প্রকাশ করেনা । কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিশ্রাম নেয়ার পরেও অনেক বেশি ক্লান্ত অনুভব করা অথবা দৈনন্দিন টুকিটাকি কাজ করলেই পরিশ্রান্ত হয়ে পড়লে অবহেলা করা উচিৎ নয় । এগুলোর পাশাপাশি যদি পেটে ব্যথা ও জ্বর থাকে তাহলে দ্রুত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন ।

৬) জ্বর

জ্বরকে লিভার ক্যান্সারের লক্ষণ হিসেবে গণ্য করাটা কঠিন । কারণ অনেক রোগের বা ইনফেকশনের সাধারণ লক্ষণ হচ্ছে জ্বর । পেট ফুলে যাওয়া বা পেটে ব্যথা হওয়ার সাথে যদি নিম্ন মাত্রার জ্বরে ভুগে থাকেন তাহলে আপনার চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন মূল কারণ নির্ণয়ের জন্য ।

৭) ক্ষুধা কমে যাওয়া

কিছু ক্ষেত্রে পেট ভরা অনুভব করা বা ক্ষুধা কমে যাওয়া লিভার ড্যামেজের বা লিভার ক্যান্সারের লক্ষণ হতে পারে । ক্ষুধা কমে গেলে শরীরের ওজন কমে যায় । শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের না হয়ে লিভারের কাজে বাঁধা সৃষ্টি করে বলে এমন হয় ।

নারীর চেয়ে পুরুষের লিভার ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে । ক্রনিক ইনফেকশন যেমন – হেপাটাইটিস সি বা হেপাটাইটিস বি থাকলে লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় । লিভারে অনেক বেশি আয়রন জমা হয়ে গেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় , যাকে হেমোক্রোমাটোসিস বলে , এটি উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত রোগ । এছাড়াও লিভার  সিরোসিসে আক্রান্ত হলে , ডায়াবেটিস থাকলে , লিভারের রোগে আক্রান্ত স্থূল মানুষদের ,  টোব্যাকো ও অ্যালকোহল সেবন করলে এবং দীর্ঘদিন যাবত এনাবোলিক স্টেরয়েড সেবন করলে লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় ।

MRI , CT স্ক্যান , আল্ট্রাসনোগ্রাম ও ব্লাড টেস্টের মাধ্যমে লিভার ক্যান্সার নির্ণয় করা যায় । টিউমারের গঠন ও ছড়িয়ে পড়ার উপর লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসা নির্ভর করে । টিউমারের আকার বৃদ্ধি পেলে নিরাময়ের হার কমতে থাকে । লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসা সার্জারি , রেডিয়েশন থেরাপি , কেমোথেরাপি বা লিভার ট্রান্সপ্লান্ট এর মাধ্যমে করা হয় ।

আর পড়তে পারেন