শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসাম জংশনে পথ শিশু রফিকের ঈদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৬, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

কারোর শেষ মুহূর্তের কেনাকাটা, আবার কারোর জন্য কেনাকাটাই হতে পারে জীবনের শ্রেষ্ঠ মুহূর্ত। ঈদ মানেই আনন্দ এবং এর তাৎপর্য আমরা উপলব্ধি করতে পারি সেই আনন্দকে সকলের মাঝে ভাগাভাগির মাধ্যমে। ঠিক এমনই একটি আনন্দ হচ্ছে ঈদকে কেন্দ্র করে নতুন পোষাক কেনাকাটা এবং বাবা-মা কিংবা পরিবারের ছোটদের উপহার দিয়ে সেই আনন্দ ভাগাভাগি করা। ছবিতে যে ছেলেকে দেখছেন তার নাম রফিক তার দেখা পাই লাকসাম রেলস্টেশন, পান ও সিগারেট বিক্রি করে তিন বোন এবং এক ভাইয়ের সংসার চালায়, আমি তাকে বললাম ভাই ঈদের জামা কিনছো? সে বললো ভাই আমাদের আর গরীবলোক এর ঈদ। কাল পবিত্র ঈদুর ফিতর। সবাই ঈদের আনন্দে ব্যস্ত। ঈদকে নিয়ে কতই প্রস্তুতি। যেন প্রতিযোগিতায় নেমেছে কে কত নতুন জামা কিনতে পারে। বড়দের তুলনায় ছোট শিশুদের মাঝেই ঈদের আনন্দ বেশি। নতুন জামা ছাড়া ঈদই যেন চিন্তা করতে পারে না শিশুরা। অন্যদিকে রফিকের মতো দরিদ্র-অসহায় পথ শিশুদের জুটছে না একটি জামাও। অন্যান্য শিশুদের মত তাদের মনে ঈদের আনন্দই নেই। একটি জামার অভাবে এই কোমলমতি পথশিশুদের মন খারাপ থাকে পবিত্র ঈদের দিনে। একটু চেষ্টা আর আন্তরিকতা নিয়ে এগোলেই পথ শিশুদের মুখে হাঁসি ফুটানো যায় একটি জামার বিনিময়ে। এমনটাই বলছে সচেতন লোকজন। মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, মার্কেটগুলো গিজ গিজ করছে ক্রেতাদের ভিড়ে। তাদের যেন চাহিদার শেষ নেই। অনেকে ১-২ টি জামা দিয়ে সন্তুষ্ট নয়। তাদের দরকার আরো ৪-৫ টি নতুন জামা। প্রিয় শিশু সন্তানের জন্য সেন্ডেল, প্যান্ট, শার্ট, ত্রি-পিচ, প্রসাধনি ছাড়াও কত কিছুই না কিনছে। আর অন্যদিকে সেই বয়সের পথ শিশুরা ছেড়া কাপড় অথবা খালি গায়ে কাধে বস্তা ঝুলিয়ে দিন-রাত হেটে যাচ্ছে কাগজ এবং প্লাষ্টিক কুড়াচ্ছে। মার্কেটের এই ব্যস্ততা, নতুন কাপড় যেন তাদের কাছে স্বপ্নের ব্যাপার। অনেক শিশুকে দেখা যায়, কিছুক্ষনের জন্য ব্যস্ত মানুষ আর বিপনী বিতানগুলোর দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে। যেখানে রয়েছে শিশুদের শার্ট, পেন্ট, জুতা সহ অনেক কিছু। আবার দৃষ্টি ফিরিয়ে দু’ মুটো খাবার যোগাতে ব্যস্ত হয়ে উঠে কাগজ আর প্লাষ্টিক কুড়াতে। খালি গায়ে বস্তা কাঁধে ৭ বছর বয়সের শিশু সুমন জানায়, তার দাদী ও ছোট বোন বৃষ্টিকে নিয়ে সে লাকসাম জংশন ২৫০ টাকা দামের ভাড়া বাসায় থাকে। দাদী ভিক্ষা করে আর তারা ভাই-বোন কাগজ ও প্লাষ্টিক কুড়ায়। এই দিয়েই তাদের জীবন চলে। কিন্তু ২ বছর আগেও তাদের খুব আনন্দের মধ্য দিয়ে ঈদ কেটেছে। তাদের বাবা রহিম উল্লাহ্ ভাই-বোনকে নতুন জামা কিনে দিত প্রতি বছর ঈদে। দেড় বছর আগে তার বাবা না ফিরার দেশে চলে যান। এদিকে মা’ও আরেকটি বিয়ে করে অনত্রে চলে গেছেন। এই অবস্থায় ঈদের কাপড় দূরের কথা ঠিকমত গায়ে দেওয়ার কাপড়ই নেই। সুমন বিত্তবানদের কাছে একটি জামা চায়। তার জন্য নয় ছোট বোন বৃষ্টির জন্য। শাওন নামে এক যুবক জানান, রমজানের শুরু থেকে তার বন্ধুদের মাঝে ঈদের কেনাকাটার ব্যস্ততা দেখা যাচ্ছে। তাদের একেক জনের ঈদের বাজেট ৫ থেকে ১০ হাজার টাকারও বেশি। অথচ এই সমাজে একটি অংশ রয়েছে যাদের কাছে ঈদ আনন্দ কেবল বেচেঁ থাকার লড়াই, দুই বেলা খাবারের সংগ্রাম। কেউ কি ভাবছে না সেই সব অসহায় পথশিশু, বৃদ্ধ নারী ও পুরুষের কথা। যারা বঞ্চিত ঈদের খুশি থেকে। বিশেষ করে কোমল মতি শিশুদের প্রতি কারোই যেন নজর নেই। এতগুলো দুঃখী মানুষকে পাশে রেখে কিভাবে এত আনন্দ করতে পারে লোকজন এই প্রশ্নই যেন ঘুরপাক খায় সুবিধা বঞ্চিত পথশিশুদের মনে। অথচ সবাই চাইলে এই ঈদে অন্তত কিছু সংখ্যক পথ শিশুদের আনন্দ দেওয়া যায়। তাদের মুখে হাসি ফোটানো যায়।

আর পড়তে পারেন