সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসামে ৩টি বেইলী ব্রিজ এখন সাধারনের জন্য মরণ ফাঁদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৯, ২০১৭
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
লাকসাম উপজেলা সড়কের উপর নির্মিত পুরাতন জরাজীর্ণ ৩টি বেইলী ব্রিজ এখন চলাচালকারীদের জন্য মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। মেয়াদউত্তীর্ণ এ বেইলী ব্রিজে পাটাতন ভেঙ্গে প্রতিনিয়তই ঘটছে নানা দূর্ঘটনা। একযুগেরও বেশি সময় আগে সড়ক ও জনপদ বিভাগে তৈরী করা এসব সেতু বছর পর বছর কোন রকম জোড়াতালি দিয়ে মেরামত করে আসায় সেগুলো এখন চরম ঝুঁকিপূর্ন । বিকল্প সড়ক না থাকায় প্রতিদিন বাধ্য হয়ে ঝুঁকিপূর্ন এসব সেতু দিয়ে চলাচল করছে ভারী যানবাহনসহ হাজার হাজার যাত্রী আর যাতায়াতের অনুপযোগী এসব সেতুর উপর দিয়ে অতিরিক্ত মালামাল ট্রাকসহ ভারী যানবাহন চলাচল করায় প্রতিমাসেই ঘটেছে ছোট বড় দূর্ঘটনা। এক যুগের বেশি সময় আগে নিমার্ণ করা এসব ইষ্পাত সেতুর নাট-বল্টু এবং প্লেট নষ্ট হয়ে যাওয়ায় মাঝে মধ্যে জোড়াতালি দিয়ে মেরামত করা হলেও সেগুলো এখন মরনফাঁদে পরিনত হচ্ছে। অথচ নরবড়ে আর ভাঙ্গাচোরা সেতুগুলো দিয়ে প্রতিদিন লাকসাম থেকে মুদাফরগঞ্জ বাজার সড়কে যাতায়াত করছে ২০ থেকে ২৫ হাজার মানুষ।


এদিকে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সেতুগুলো ঝুঁকিপূর্ন উল্লেখ করে ৫ টনের অধিক ভারী যানবাহন চলাচল নিষেধ করে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিলেও এ সর্তক বার্তাকে তোয়াক্কাই করছে না এ পথ দিয়ে চলাচল কারীরা যানবাহন চালককরা। ১৫/২০ টন ওজনের মালামাল নিয়ে ঝুঁকিপূর্ন সেতুগুলো উপর দিয়ে হর-হামেশাই চলাচল করছে ট্রাকসহ ভারী যানবাহন। গত ১০ মাস আগে বালুর ট্রাক নিয়ে লাকসাম থেকে মুদাফরগঞ্জ-হাজীগঞ্জ উপজেলা যাওয়ার সময় ঝুঁকিপূর্ন খুন্তা নামকস্থানে ডাকাতিয়া নদীর উপর বেইলী ব্রিজটি সেতুর একাংশ ভেঙ্গে ট্রাক নদীতে পড়ে যায়। ২০১৫ সালে শেষের দিকে অতিরিক্ত মালামাল নিয়ে পার হওয়ার সময় ওই খুন্তা ডাকাতিয়া সেতু একাংশ ভেঙ্গে মারাত্মক দূর্ঘটনা ঘটে।গতকাল রোববার বিকালে নাঙ্গলকোট থেকে মুদাফরগঞ্জ হয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে গাছবোঝাই ট্রাকটি ওই ঝুকিপূর্ন ব্রিজটি দিয়ে পারাপারের সময় একাংশে ডেবে যায়। অপরদিকে সেতুগুলো একমুখী হওয়ায় ট্রাক, বাসসহ বড় যানবাহন পারাপারের সময় সেতু উভয় প্রান্তে সৃষ্টি হয় যানজটের। এতে করে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে চালকসহ এ পথের যাত্রীরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুমিল্লা লাকসাম উপজেলা খুন্তা ডাকাতিয়া নদীর, ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন কুচাইতলি পুল, কাদ্রাসহ সড়কের ছোটবড় ৩টি সেতু দীর্ঘদিনে ইস্পাতে পাটাতনগুলোতে অসংখ্য ফাটল আর সেই ফাটলের উপর দিয়ে দেখা যাচ্ছে নীচে নদীর পানিসহ বালুচর। পাটাতনের ফাটলগুলো বন্ধ করতে ব্রিজের একপ্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত দেখা হচ্ছে লোহার ঝালাইয়ের অষংখ্য জোরাতালি। ব্রিজের উপর দিয়ে গাড়ী চলাচলের সময় শুনা যায় নরবড়ে ষ্টীলের পাটাতনের বিকট শব্দ। আর কিছূ কিছূ জায়গা লোহার ফ্রেমের উপর বসানো পাটাতনগুলো নড়বরে হয়ে যাওয়া ছোটবড় কোন গাড়ী ব্রিজের উপর দিয়ে চলাচলের সময় গাড়ীর চাকা ভারে পাটাতনের এক পাশে নীচে আর অপরপাশে উপরে উঠে যাচ্ছে। ফলে যে কোন সময় লোহার ফ্রেম উপর অস্থায়ী অবস্থায় বসানো পাটাতন সরে গিয়ে হরহামেশাই ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা।

আর পড়তে পারেন