বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসামে ছেলে ধরা গুজবে আতঙ্কিত শিশু ও অভিভাবকরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৩, ২০১৯
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরা ঃ
কুমিল্লার লাকসাম উপজেলায় ‘ছেলে ধরা’ আতঙ্ক বিরাজ করছে। ছেলে ধরা চক্র এলাকায় ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং শিশুদের অপহরণ করে নিয়ে হত্যা করে মাথা কেটে নিয়ে যাচ্ছে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়েছে উপজেলার সর্বত্র। এ গুজব নিয়ে প্রতিদিন চায়ের দোকানের টেবিল থেকে উপজেলার সব খানেই চলছে এ আলোচনা। তবে কেউ সঠিক ভাবে বলতে পারছেনা কল্লা কাটা কিংবা ছেলে ধরার গুজবের বাস্তবতা। সবাই শুনেছে একে অপরের কাছ থেকে।

গত চার দিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন বাজারে বিভিন্ন মানুষের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, পদ্মা সেতুতে শিশুদের মাথা লাগবে নামে একটা গুজব ছড়িয়ে দিয়েছে  অপপ্রচারকারিরা।  লাকসাম উপজেলা থেকে কল্লা কাটা ও ছেলে ধরার জন্য কিছু মানুষ এসেছে। তারা ছোট ছোট ছেলেদের কল্লা কেটে নিয়ে যাবে এমন গুজব চলছে।

ফলে এমন গুজবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন গ্রামাঞ্চলের শিশু ও অভিভাবকরা। ‘ছেলে ধরা’ আতঙ্কে গ্রামের শিশুরা বাড়ি থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে। অপরিচিত লোক দেখলেই মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। এতে বিপাকে পড়েছে পাগল, মানসিক প্রতিবন্ধী ও ভিক্ষুকরা। অপরিচিত কেউ ভিক্ষা চাইতে গেলে গৃহস্থরা ভিক্ষা না দিয়ে ফিরিয়ে দিচ্ছেন।

উপজেলার কোথাও না কোথাও শিশু ধরে নিয়ে গলা কাটছে এমন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে মানুষের মাঝে। প্রতিদিনই গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে ‘ছেলে ধরা’র খবর আসছে। তবে ঘটনা অনুসন্ধান করতে গেলে তার সুনির্দিষ্ট কোনো সত্যতা মিলছে না।

পৌরশহরের উত্তর লাকসামের  শিল্পী রানী পাল জানান, ‘শুনেছি পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে মানুষের মাথা লাগবে এমন একটা  অপপ্রচার চলছে। ছেলে ধরারা বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে সুযোগ বুঝে শিশুদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে , এমন কথা ছড়িয়েছে। বিষয়টি গুজব মনে হলেও আমরা বেশ আতংকিত।

উপজেলার চিকুনিয়া গ্রামের জালাল মিয়া বলেন, ছেলে ধরার কথা শুনে আমার স্ত্রী সন্ধ্যার সাথে সাথে দরজা-জানালা আটকে ঘরে বসে থাকেন। ভয়ে রাতের বেলায় ঘরের বাইরে বের হয় না।

ফেইসবুকে গুজব ছড়ানোর দায়ে গত শুক্রবার ভোরে লাকসাম থেকে হায়াতুন নবী (৩০) নামে এক যুবককে আটক করেছে কুমিল্লা র‌্যাব-১১। সে লাকসাম পুর্ব ইউনিয়নের আশাগী গ্রামের উত্তরপাড়ার আবদুল খালেকের ছেলে।

অপরদিকে ছেলেধরা সন্দেহে আবু বক্কর ছিদ্দিক (৩২) নামে এক যুবককে শুক্রবার দুপুরে দৌলতগঞ্জ বাজারের পৌর হর্কাস মার্কেটে গণধোলাই দিয়েছে জনতা। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাকসাম থানা পুলিশের এসআই নাজিম উদ্দিন ভুঁইয়া তাকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে রেখেছে। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ছেলে ধরা ওই ব্যক্তিকে দেখতে উৎসক জনতা লাকসাম থানা গেইটে ভিড় জমায়।

লাকসাম থানার তদন্ত (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত ছেলে ধরার কোনো সত্যতা পাইনি। এটা সম্পূর্ণ গুজব। তবে গুজবে কান না দেয়ার জন্য শহরের সর্বত্র মাইকিং করা হয়েছে। ছেলেধরা গুজবে যাচাই ছাড়া কাউকে মারা ঠিক হবেনা।

আর পড়তে পারেন