মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসামে চলতি মৌসুমে ইরি-বোরো উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২২, ২০২০
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ

চলতি মৌসুমে কুমিল্লার লাকসামের কৃষকরা ইরি-বোরো ধান রোপন শুরু করছেন। যাতে করে বর্তমানে ফশলী মাঠে সবুজ আবরণ সৃষ্টি হয়েছে। ইরি-বোরো উৎপাদন লক্ষ মাত্রা অর্জনে কৃষকরা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ইরি-বোরো আবাদের জন্য ৩ হাজার ৭শ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে হাইব্রিড ধানের লক্ষ্যমাত্রা ৫ হাজার ২শত হেক্টর ও উপষী ধানের লক্ষ্যমাত্রা ৩ হাজার ৫শ ৮০ হেক্টর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা চালের হিসেবে হাইব্রিড ২৪ হাজার ৯শত ৫০ মেট্রিক টন, উপষী ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা চালের হিসেবে ১৩ হাজার ৮শত ২০ মেট্রিক টন এবং মোট উৎপাদন ৩৮ হাজার ৭শত ৭০ মেট্রিক টন ধরা হয়। বোরো বীজতলা তৈরির জন্য মোট ৩ শত ৯০ হেক্টর মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে।

কৃষি কর্মকর্তাদের জোরালো নজরদারি আর কৃষকদের সচেতনতার কারণে রোগ বালাই মুক্ত থাকে চলতি মৌসুমের বীজতলা।
এলাকার বিভিন্ন কৃষকরা জানান আবহাওয়া ভালো থাকায় এবং কৃষি স¤প্রসারণ বিভাগের পরামর্শে সঠিক পরিচর্যা করার কারণে বীজতলায় কোন সমস্যা হয়নি। কৃষকরা ধানের চারা রোপন করতে শুরু করেছে কিছু কিছু জায়গায় ফশলী মাঠ ভোরতে শুরু করেছে। আগামী কিছু দিনের মধ্যে গাঢ় সবুজ আবরণ সৃষ্টি হবে।

লাকসাম উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তা মোঃ রেজাউল হক বলেন চলতি মৌসুমে আবাদে লক্ষ্যমাত্রা ও উৎপাদন নির্ধারণ করা হয়েছে। বীজতলায় রোগবালাই দমনের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ ও পরামর্শ কৃষকরা অনুসরণ করায় ধানের চারাগুলো রোগ মুক্ত হয়েছে।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আবাদের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হতে পারে। তিনি আরো বলেন, তবে গত মৌসুমে ধানের দাম কম থাকায় প্রান্তিক কৃষকরা ভীতিতে রয়েছে। এ অবস্থা বিধমান থাকলে লক্ষমাত্রা অর্জনে কিছুটা ঘাটতি হতে পারে।

আর পড়তে পারেন