মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসামে ইউপি চেয়ারম্যানের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৩, ২০১৯
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
লাকসামে অবৈধভাবে সংযোগ দিয়ে গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগে এক ইউপি চেয়ারম্যানের মালিকানাধিন ভবন, বাণিজ্যিক ও আবাসিকসহ ৮টি চুলার গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

অন্যদিকে, বিল পরিশোধ থাকার পরও একটি ভবনের ৯টি চুলার বৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে স্থানীয়দের চাপের মুখে ক্ষমা চেয়ে পূনঃরায় সংযোগ দিয়ে কর্মকর্তারা ফিরে আসে। গত সোমবার লাকসাম রাজঘাট ও দক্ষিণ বাইপাস এলাকায় বাখরাবাদ গ্যাস লিঃ -এর ডিজিএম মাহবুবুল আলম ছিদ্দিকির নেতৃত্বে একটি দল এ অভিযান চালায়।

বাখরাবাদ গ্যাস কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণ বাইপাস এলাকায় সুরক্ষা হাসপাতালের বিপরীতে পার্শ্ববর্তী মনোহরগঞ্জ উপজেলার খিলা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আল আমিনের মালিকানাধিন ভবনের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ- ১টি চুলার সংযোগ নিয়ে ৪টি চুলায় গ্যাস ব্যবহার করছেন। এছাড়াও তার ভবনের পাশে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী মোশারফ হোসেন ১টি চুলার সংযোগ নিয়ে ২টি চুলায় গ্যাস ব্যবহার করছিলেন।
অপরদিকে, পৌরসভার রাজঘাট এলাকায় আবু বকর ছিদ্দিক নামে এক ব্যক্তি সম্পূর্ণ অবৈধ সংযোগ দিয়ে বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার দায়ে মিনহাজ বেকারি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে মাটির সাথে মিশিয়ে দেয়া হয়। একইদিন ওই এলাকার আলী আলমাছ নামে অপর একজনের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এ সময় আরো বাখরাবাদ গ্যাস লিঃ -এর লাকসাম (এবিকা) ইনচার্জ মোবারক হোসেনসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়া গ্রাহক প্রবাসীর স্ত্রী কিরণ আক্তারসহ অন্যান্যরা জানান, বাখরাবাদের লাকসাম অফিসকে ম্যানেজ করেই এ সকল গ্যাস সংযোগ নেয়া হয়েছে। অন্যদিকে, গ্যাস বিল পরিশোধ থাকা সত্ত্বেও শাহাদাত হোসেন নামে এক ভবন মালিকের ৯টি চুলার সংযোগ কেটে দিয়ে বিপাকে পড়ে কর্মকর্তারা। পরে স্থানীয়দের চাপের মুখে ক্ষমা চেয়ে পূনঃরায় সংযোগ দিয়ে কর্মকর্তারা ফিরে যায়।

তবে এ বিষয়ে বাখরাবাদ গ্যাস লিঃ -এর লাকসাম (এবিকা) ইনচার্জ মোবারক হোসেনের বলেন, অভিযোগ পেয়ে অবৈধ সংযোগ বিছিন্নকালে পাশাপাশি আরো কিছু সংযোগ বিছিন্ন করা হয়। বিল পরিশোধ থাকার পরও একটি ভবনের ৯টি চুলার বৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় বিষয় নিয়ে জানতে তিনি বলেন, বিল পরিশোধ না থাকা সন্দেহে সংযোগ বিছিন্ন করা হয়। পরে বিল কপি দেখালে পুনরায় সংযোগ দেয়া হয়।

আর পড়তে পারেন