বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লাকসামের কবিতা রাণী আমেরিকা না গিয়ে অভিমানে আত্মহত্যা!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২১, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কবিতা রাণী দাস (২৭) একমাত্র সন্তান ও মাকে নিয়ে কুমিল্লার লাকসামে আবাসিক এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। আমেরিকা প্রবাসী স্বামী রনজিৎ দাস স্ত্রীকে আমেরিকা নেয়ার জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কবিতা রাণী আমেরিকা না গিয়ে অজানা অভিমানে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়ে পরলোকগমন করেন। গত সোমবার গভীর রাতে পৌর শহরের জগন্নাথদিঘীর দক্ষিণ পাড়ে ভাড়া বাসায় সিলিং ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে সে।

জানা যায়- লাকসাম পৌরসভার কোমারডোগা গ্রামের সুবল চন্দ্র দাসের একমাত্র কন্যা কবিতা রানী দাস (২৭) এর নোয়াখালির আমিশাপাড়া এলাকার আমেরিকা প্রবাসী রনজিৎ দাসের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর সুখেই চলছিল তাদের সংসার। দাম্পত্য জীবনে তাদের অর্জুন চন্দ্র দাস (৪) নামে একমাত্র পুত্র সন্তান রয়েছে। কবিতা রাণী একমাত্র ছেলে ও মাকে নিয়ে লাকসাম শহরের আবাসিক এলাকার ৫০৮নং ভবনে ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিলেন। সে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ থেকে চলতি বছর হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করে।

গত সোমবার গভীর রাশে মাকে শরীর জ্বালা-পোড়া করে বলে কবিতা রাণী তার শয়ন কক্ষে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। ভোরে রুমের দরজা না খোলায় তার মা ভবনের দারোয়ানকে নিয়ে এসে দরজা ভাঙ্গতে বলে। পরে দারোয়ান বাড়ির মালিক ও আশপাশের ভাড়াটিয়াদের ডেকে এনে দরজার ছিটিকিনি ভেঙ্গে কবিতা রাণীকে সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলে থাকতে দেখা যায়। খবর পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থল এসে লাশ উদ্ধার করে।

কবিতা রাণীর পিতা সুবল চন্দ্র দাস জানান, কবিতার স্বামী রনজিৎ দাস স্ত্রী ও একমাত্র সন্তানকে আমেরিকা নিয়ে যাওয়ার যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। কিন্তু আমেরিকা যাওয়ার আগেই কবিতা রাণী গত সোমবার গভীর রাতে বাসার সিলিং ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কবিতার আত্মহত্যার সুনির্দিষ্ট কারণ জানা যায়নি। অজানা কোন অভিমান থেকেই সে আত্মহত্যা করতে পারেন বলে স্থানীয়রা ধারণা করছে।

লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.নিজাম উদ্দিন বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে বলে তিনি জানান।

আর পড়তে পারেন