সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লকডাউন ও মহামারী; উভয় সংকটে নিম্নআয়ের মানুষ, মৃত্যুই যেন একমাত্র গন্তব্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৪, ২০২১
news-image

 

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক:

করোনা ভাইরাস ২০১৯ সালের ৩১ শে ডিসেম্বর চীনের হুবাই প্রদেশের রাজধানী উহানে সর্বপ্রথম সনাক্ত হলেও সময়ের সাথে সাথে এটি বৈশ্বিক মহামারীতে রুপ নিয়েছে । এমতাবস্থায়, একদিকে উচ্চ মৃত্যু হার অন্যদিকে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে পৃথিবী আজ বিপর্যস্ত ৷ বাংলাদেশও তার ব্যতিক্রম নয় তার মধ্যে সবচেয়ে বেশী ক্ষতির সম্মুখীন নিম্নআয়ের মানুষ ৷

বাংলাদেশে ২০২০ সালের মার্চে করোনা ভাইরাসে প্রথম সনাক্ত এবং মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ বিপর্যয়ের সূত্রপাত ঘটে ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে সরকার লকডাউন ঘোষণা করেন ৷ লকডাইনের ঘোষণার ফলে পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হলেও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় নি বরং দেশ দীর্ঘমেয়াদি অর্থনৈতিক ক্ষতির সামনে দাড়িয়ে আছে ৷ যার সবচেয়ে বেশী প্রভাব পড়েছে নিম্নআয়ের ও দিনমজুর মানুষদের উপর ৷ একদিকে দৈনিক উচ্চ মৃত্যু হার, অপর দিকে অর্থনৈতিক অস্বচ্ছলতা ফলে মানুষ মৃত্যুকে উপেক্ষা করে বিধিনিষেধ ভঙ্গ করতেও দ্বিধাবোধ করছে না ৷ এ যেন শাঁখের করাত ঘরে থাকলে ক্ষুধায় মৃত্যু বের হলে মহামারীতে মৃত্যু, যেন মৃত্যুই কাম্য এবং সস্তা ৷

দেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় চলমান লকডাউনের বিধিনিষেধ আরো কঠোর করে ১ জুলাই ২০২১ থেকে নতুন প্রজ্ঞাপন জারি করা হয় যা পরিচিতি পায় সাটডাউন হিসেবে ৷ ফলে আবারও নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্যের দোকান ও কাঁচা বাজার ছাড়া সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস, গনপরিবহণ, শপিং মল, মার্কেটসহ সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে। ফলে এসবের সাথে যুক্ত এবং অন্যান্য পেশায় সংযুক্ত মানুষ জীবিকার তাড়নায় লকডাউন অমান্য করছেন এবং প্রতিদিন শত শত মানুষ গ্রেপ্তার হচ্ছেন যার একটা বড় অংশ জুরে রয়েছেন দৈনন্দিন রোজগারের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হওয়া দরিদ্ররা ৷কারণ করোনাভাইরাস মহামারির কারণে নিয়মিত বিরতিতে আরোপিত লকডাউন হাজারো পরিবারের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশে দারিদ্র্যের হার বেড়ে গেছে এবং যখনই নতুন করে লকডাউন দেওয়া হয়, তখনই নিম্নআয়ের মানুষের কষ্ট বেড়ে যায় ৷

পরিস্থিতি এমন দাড়িয়েছে যে ১ জুলাই ২০২১ থেকে কঠোর লকডাউনের প্রথম ১৩ দিনে শুধুমাত্র রাজধানীতে ৮৫৪০ জন গ্রেপ্তার, ৩৭ লাখ ৭৯ হাজার ৬৩০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে কিন্তু করোনায় মৃত্যু এখন প্রায় ২০০ উপরে এবং প্রতিনিয়ত মৃত্যুর রেকর্ড করে যাচ্ছে ৷২৩ জুলাই থেকে দ্বিতীয় দফায় আবারও লকডাউন শুরু হয়েছে, কিন্তু জীবিকার প্রয়োজনে মানুষজন বিধিনিষেধ ভঙ্গ করছেন প্রতিনিয়ত ৷

প্রায় প্রতিদিনই রেকর্ড পরিমাণ শনাক্ত ও মৃত্যুর হার বিবেচনায় আমরা কঠোর লকডাউনের প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারছি। কিন্তু, দরিদ্ররা ঘরে বসে থেকে অনাহারে মারা যাবেন তাও কাম্য নয় । কঠোর লকডাউনের উপযোগিতা নিশ্চিত করার জন্যে সরকারের উচিত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্রদের জন্যে জরুরি সহায়তার ব্যবস্থা করা। কারণ কীভাবে মানুষ বাসায় থাকার নির্দেশনা মানবে, যখন তারা অভুক্ত থাকার মতো অবস্থায় পৌঁছে যাচ্ছে? এই উদ্যোগটি বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে একইসঙ্গে অত্যাবশ্যক, মানবিক ও সময় উপযোগী ৷

এ ছাড়াও, দরিদ্ররা গ্রেপ্তার হচ্ছেন এবং তাদেরকে জরিমানা দিতে হচ্ছে। যা তাদের অর্থনৈতিক অবস্থানকে আরও নড়বড়ে করে দিচ্ছে। ফলে তাদের পরিবারের সদস্যরা আদালত প্রাঙ্গণের বাইরে ভিড় জমাচ্ছেন এবং করোনাভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি বাড়াচ্ছেন এবং প্রতারকরা তাদের ছাড়িয়ে আনার কথা বলে তাদের পরিবার থেকে অর্থ নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে ৷

পরিশেষে, কোভিডের সংক্রমণের হারের পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায়, আরও বেশ কিছুদিন লকডাউন চালু রাখতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের এখনই অর্থনৈতিক দুরবস্থায় থাকা মানুষদের ত্রাণ আওতায় নিয়ে আশা উচিত এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বিধান করা উচিত । তা না হলে চলমান লকডাউন কার্যকরী তো হবেই না বরং নিম্নআয়ের মানুষদের জন্য গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়াবে ৷

লেখকঃ

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক;

শিক্ষার্থী; আইন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷

আর পড়তে পারেন