বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রোজা রাখলে তখন মানুষের শারীরিক কী পরিবর্তন ঘটে?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১২, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

রমজানের রোজা মুসলমানের জন্য অপরিহার্য একটি ইবাদত। পবিত্র রমজান মাসে বিশ্বের প্রতিটি দেশেই মুসলমানরা রোজা রাখেন। নরওয়ে, আইসল্যান্ড হয়ে ফিজি সব দেশেই গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয় এ মাসটি।

গত কয়েক বছর ধরে উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে রোজা পড়েছে গ্রীষ্মকালে। ফলে গরমের মধ্যে অনেক দীর্ঘসময় ধরে এসব দেশের মুসলিমরা রোজা পালন করছেন। যেমন নরওয়ের মুসলমানরা এবছর প্রায় ২০ ঘন্টা সময় ধরে রোজা রাখছেন।

কিন্তু দীর্ঘ একমাসের সিয়াম সাধনা একজন মানুষের শরীরে কী প্রভাব ফেলে?

বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তি ও গবেষণার যুগে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বলেছেন, মানুষের সুস্থ থাকার ক্ষেত্রে রোজার ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে।

৩০ দিনের রোজায় মানুষের শরীরে স্বাস্থ্যগত কি কি প্রভাব পড়ে, একটি গবেষণায় তা তুলে ধরা হয়েছে।
রোজার প্রথম দিনগুলো সবচেয়ে কষ্টকর: সাধারণত আমরা যেসব খাবার খাই, পাকস্থলীতে তা পুরোপুরি হজম হতে এবং এর পুষ্টি শোষণ করতে আমাদের শরীর অন্তত আট ঘন্টা সময় নেয়। তাই শেষবার খাবার গ্রহণের পর আট ঘণ্টা পার না হওয়া পর্যন্ত মানুষের শরীরে উপোস বা রোজার প্রভাব পড়ে না।

এই খাদ্য যখন পুরোপুরি হজম হয়ে যায়, তখন মানুষের শরীর যকৃৎ এবং মাংসপেশীতে সঞ্চিত থাকে যে গ্লুকোজ, সেটা থেকে শক্তি নেয়ার চেষ্টা করে।

শরীর থেকে যখন এই চর্বি খরচ হওয়া শুরু হয়, তা আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায় এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।

তবে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে। যেহেতু রক্তে সুগার বা শর্করার মাত্রা কমে যায়, সে কারণে হয়তো কিছুটা দুর্বল এবং ঝিমুনির ভাব আসতে পারে।

এছাড়া কারও কারও ক্ষেত্রে মাথাব্যাথা, মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব বা নিশ্বাসে দুর্গন্ধ হতে পারে। এ সময়টাতে মানুষের শরীরে সবচেয়ে বেশি ক্ষুধা লাগে।

৩ থেকে ৭ রোজা: প্রথম কয়েকদিনের পর আপনার শরীর যখন রোজায় অভ্যস্ত হয়ে উঠবে, তখন শরীরে চর্বি গলে গিয়ে তা রক্তের শর্করায় পরিণত হবে। কিন্তু রোজার সময় দিনের বেলায় যেহেতু কিছুই খাওয়া যায় না, তাই রোজা ভাঙ্গার পর অবশ্যই সেটার ঘাটতি পূরণের জন্য প্রচুর পানি পান করতে হবে। না হলে মারাত্মক পানি-শূন্যতায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ সময় খাবারের ক্ষেত্রে কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা এবং চর্বি জাতীয় খাবার খেতে হবে।

আর পড়তে পারেন