মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাজনীতিতে সঙ, ভাঁড় বা জোকার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৫, ২০১৭
news-image

ব্যারিষ্টার সোহরাব খান চৌধুরীঃ
আগে রাজা বাদশাহরা মনোরঞ্জনের জন্য হাতি, ঘোড়া ও অন্যান্য জীবজন্ত লালন পালন করতো । দিনের শেষে এদের দিয়ে বিভিন্ন নৃত্য ও কলাকৌশল করিয়ে এক ধরনের পুলক সঞ্চার হতো রাজ দরবারের লোকদের। এতে তাদের পরবর্তী দিনের কাজের গতি আসতো। এখন কিছু কিছু নেতাকর্মী বা ভাড়া করা লোকেরা সেই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। কিছু চাহিবার আগেই মাথার উপরে এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকা সেই সঙ, ভাঁড় বা জোকাররা কোমর দোলাতে দোলাতে এসে হাজির হয়ে বলতে থাকে “হুকুম করুন মালিক”। মনে হয় যেন তাদের জন্ম হয়েছে অন্যের গোলামি করার জন্য। তারা নিজেদেরকে স্বাবলম্বী করতে কোন চেষ্টা তদবিরতো করেই না উপরšু— তাদের নেতার ঘাড়ের উপর দাঁড়িয়ে থাকার কারনে কোন সাহায্য নিতে আসা আবেদন কারীরা মন খুলে তাদের নেতার কাছে কথাটুকু পর্যন্ত বলতে পারে না। কোণঠাসা হয়ে থাকা নিবেদিত দলিয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে অরাজনৈতিক ব্যক্তি, বিএনপি, জামাত শিবির ও সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও দখলবাজরা একাকার হয়ে মিলেমিশে ক্ষমতায় থাকা ব্যক্তিদের ক্ষমতায় থাকার জন্য যেভাবে নৃত্য প্রর্দশন করছে, তাতে নেতারাও নৃত্যের তালে তালে মঞ্চে রক্ষিত টেবিলের দুপাশে চাঁদাবাজ, মাদকসেবী সন্ত্রাসী, একাধিক হত্যা মামলার আসামী বসিয়ে রেখে বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছে আওয়ামীলীগে চাঁদাবাজ, মাদকসেবী সন্ত্রাসীদের ঠাই নাই। প্রহসনের ও একটা মাত্রা থাকে। বাকরুদ্ধ হয়ে যাওয়া দর্শক তখন একে অপরের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি হাসে আর টিপ্পনী কাটে। মানুষ এখন আর আগের মত অন্যের কথায় ভোট দেয় না, ডিজিটাল যুগের মানুষ এখন অনেক সচেতন। বিবেক দিয়ে অনেক কিছু হৃদয়াঙ্গম করে এবং তার প্রতিফলন ঘটায়। নীতিবান বা আদর্শিক নেতারা এই সঙ, ভাঁড় বা জোকারদের ভিড় দেখে নিজেদেরকে আড়াল করে নিয়েছে বিধায় এই সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়। যার ফলে প্রতিদিনই ধর্ষণের ঘটনা, বাল্য বিবাহসহ সমস্ত অপরাধের সৃষ্টি। অপরাধীরাও জেনে গেছে তাদের কৃতকর্মের কোন বিচার হয়না বা প্রতিবাদ করার কেউ নেই।

আর পড়তে পারেন