শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রবীন্দ্রসাহিত্যে দেশাত্মবোধ: কয়েকটি কিশোর-পাঠ্য নমুনামাত্র

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৭
news-image

 

দেবজানি ভট্টাচারিয়াঃ

বিজেপি মৎস্যপ্রিয় বাঙালীর খাদ্যাভ্যাসে আক্রমণ হানিবে, বিদ্যালয়-শিক্ষায় রবীন্দ্রসাহিত্য পাঠের সুযোগ রাখিবে না, এমন সকল প্রচারবাণী যখন গণমাধ্যমগুলি হইতে নির্গত হইতেছেই, তখন ফিরিয়া দেখার প্রয়োজন রহিয়াছে বৈ কি যে জাতীয়তাবোধের পুনর্জাগরণের জন্যও রবীন্দ্রসাহিত্য এক অব্যর্থ মহৌষধ। তাঁহার সেই কিশোর-পাঠ্য রচনাগুলি আজও সমকালীন ও জাতীয়তাবাদী নৈতিক চরিত্রগঠনের অব্যর্থ ঔষধ।

রবীন্দ্রনাথ সম্বন্ধে লিখিবার কথা হইলেই এক দুর্বহ ধৃষ্টতা-আক্রান্ত হই আমি। জানি না কেন! তাঁহার ভাষার অনুকরনে লিখিবার সাধ যায়! ঐ কুব্জ্য ব্যক্তির আপন পৃষ্ঠে চিৎ হইয়া শয়ন করিবার অলভ্য ও অসম্ভব সাধের ন্যায়! আপনারা যাঁহারা এই লেখাটি পড়িবেন, তাঁহারা দয়া করিয়া, নিজগুণে আমার উক্ত ধৃষ্টতা মার্জনা করিবেন, ইহা আমার একান্ত সনির্বন্ধ অনুরোধ!

মহারত্নাকর হইতে রত্ন সংগ্রহ করিতে গেলে চয়ন করিয়া সংগ্রহ করা অসম্ভব, কারণ সপ্তমহাসমুদ্র সত্যই সর্ব প্রকার রত্নের আকর। তাহার গভীরে একবার নিমজ্জিত হইলে হৃদয়ের সকল বোধ, সকল অনুভূতি এমনই প্রগাঢ়ভাবে তাহাতে মিশে যে তখন আর তাহা হইতে রত্ন বাছিয়া লইবার অবকাশ বা সামর্থ্য থাকে না। বিস্তর বিলাসসামগ্রীর পসরার মাঝে বিলাসী রমনীর যেমন দিশাহীন অবস্থা হয়, কি ছাড়িবে আর কোনটি লইবে তাহাই বুঝিয়া উঠিতে পারে না, এ-ও তেমনি। আপনি সকল আত্মা তাহাতে নিমজ্জমান হয়। আর মুষ্টিবদ্ধ হস্ত সমুদ্রের রত্নগর্ভ হইতে একবারে যতটুকুমাত্র উঠাইয়া লইতে পারে, মুষ্টি প্রসারণ করিলে দেখা যায় যে অতটুকু স্বল্পপরিসরেও সর্বপ্রকার রত্নেরই দীপ্যমান উপস্থিতি। তাহা হইতে আপন পছন্দটি বাছিয়া লইতে কতক্ষণ?

রবীন্দ্রসাহিত্য সেই মহাব্রহ্মরত্নাকর। তাঁহার সাহিত্যের অনন্ত ভাণ্ডার হইতে জাতীয়তাবোধ-প্রকাশের নিমিত্ত কয়েকটি সামান্য নমুনামাত্র রাখিব।

(এবার বাবা ফিরে আসি নিজের স্বাভাবিক ভাষায়! আর ধক্ নেই!😂😂)
প্রতিনিধি: কথা ও কাহিনী

শিবাজির যে গেরুয়া পতাকা আজ মহারাষ্ট্রের শিবসৈনিকদের ভাগবা ঝাণ্ডা তা কিভাবে শিবাজির পতাকা হয়ে উঠেছিল গুরু রামদাসের ভক্তিশিক্ষার প্রভাবে, সেই কাহিনীই বর্ণনা করে এই ‘প্রতিনিধি’ কবিতা। তারই কিছু কিছু অংশ মনে করতে চাই।

“বসিয়া প্রভাতকালে সেতারার দুর্গভালে
শিবাজি হেরিলা এক দিন–
রামদাস, গুরু তাঁর, ভিক্ষা মাগি দ্বার দ্বার
ফিরিছেন যেন অন্নহীন।…

সমাপন করি গান সারিয়া মধ্যাহ্নস্নান
দুর্গদ্বারে আসিলা যখন
বালাজি নমিয়া তাঁরে দাঁড়াইল এক ধারে
পদমূলে রাখিয়া লিখন।
গুরু কৌতূহলভরে তুলিয়া লইলা করে,
পড়িয়া দেখিলা পত্রখানি–
বন্দি তাঁর পাদপদ্ম শিবাজি সঁপিছে অদ্য
তাঁরে নিজ রাজ্য-রাজধানী।

পরদিনে রামদাস গেলেন রাজার পাশ;
কহিলেন, “পুত্র, কহো শুনি,
রাজ্য যদি মোরে দেবে কী কাজে লাগিবে এবে–
কোন্ গুণ আছে তব গুণী।”
“তোমারি দাসত্বে প্রাণ আনন্দে করিব দান”
শিবাজি কহিলা নমি তাঁরে।
গুরু কহে, “এই ঝুলি লহ তবে স্কন্ধে তুলি,
চলো আজি ভিক্ষা করিবারে।”…

গুরু কহে, “তবে শোন, করিলি কঠিন পণ,
অনুরূপ নিতে হবে ভার–
এই আমি দিনু কয়ে মোর নামে মোর হয়ে
রাজ্য তুমি লহ পুনর্বার।
তোমারে করিল বিধি ভিক্ষুকের প্রতিনিধি,
রাজ্যেশ্বর দীন উদাসীন;
পালিবে যে রাজধর্ম জেনো তাহা মোর কর্ম,
রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন।
বৎস, তবে এই লহো মোর আশীর্বাদ-সহ
আমার গেরুয়া গাত্রবাস;
বৈরাগীর উত্তরীয় পতাকা করিয়া নিয়ো।”
কহিলেন গুরু রামদাস।

“রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন”, এই উপদেশটি, আমাদের আপাদমস্তক দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে কেউ বোধ করি দেয় নি! তাঁদের তো কোন গুরু রামদাস নেই! তাই আজ ‘ভ্রষ্টাচার-মুক্ত ভারত’ গঠন করতে গেলেও রবীন্দ্রসাহিত্যের শরনাপন্ন হতে হবে বৈকি।

“রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন”, এর মর্মার্থ আজ আরও বেশী প্রাসঙ্গিক। কারণ গুরু রামদাস চেয়েছিলেন রাজা হওয়া সত্ত্বেও শিবাজি রাজকর্ম করবেন রাজমোহ থেকে মুক্ত হয়ে। আর আজ যাঁরা দেশপাট সামলাচ্ছেন তাঁরা তো রাজাও নন, সামান্য জনপ্রতিনিধিমাত্র। তাঁদের তো পূর্ণ মোহমুক্তই থাকা উচিত। কিন্তু বাস্তব কি নির্লজ্জ রকমভাবে আলাদা তা ভারতবর্ষের সাধারণ নাগরিকমাত্রেই জানি।

আজ সেই সন্ন্যাসীর উত্তরীয় ভাগবা ঝাণ্ডা নিয়ে শিবাজি মহারাজের শিবসৈনিকরা কি করছেন, তা-ও অতি অনায়াসেই দ্রষ্টব্য! আজ, ২৫ শে জুলাই, মুম্বই এর ঘাটকোপরে চারতলা বাড়ি ভেঙ্গে পড়েছে এবং BMC বাস্তবে তার নৈতিক দায় অস্বীকার করতে চাইছে। অথচ BMC র জন্য বরাদ্দ অর্থের কোন ঘাটতি আছে, এমন কথা বিশ্বনিন্দুকেও বলবে না। অতএব বোঝাই যাচ্ছে গুরু রামদাসের সেই উপদেশ রবীন্দ্রলেখনীতে “রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন” কত গভীর ও বিস্তৃতভাবে প্রচারিত হওয়া দরকার!

যে অখণ্ড ভারত গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন শিবাজি, তাকেও যথার্থ লিপিবদ্ধ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। উদ্ধৃত করছি তারও কিছু অংশ। আজ আবারও প্রাসঙ্গিক সেই রচনা। এখন যখন ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী ‘এক ভারত, উন্নত ভারত’ মন্ত্রে সমস্ত ভারতবর্ষকে এক করে দেখতে চাইছেন তখন রবীন্দ্রনাথের এই কবিতাটি নতুন করে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। বিশাল এই কবিতার কয়েকটি লাইন সকলকে মনে করিয়ে দিতে চাই…

‘শিবাজি উৎসব’

…হে রাজা শিবাজি,
তব ভাল উদ্ভাসিয়া এ ভাবনা তড়িৎপ্রভাবৎ
এসেছিল নামি–
‘একধর্মরাজ্যপাশে খণ্ড ছিন্ন বিক্ষিপ্ত ভারত
বেঁধে দিব আমি।’

সেদিন শুনি নি কথা — আজ মোরা তোমার আদেশ
শির পাতি লব।
কণ্ঠে কণ্ঠে বক্ষে বক্ষে ভারতে মিলিবে সর্বদেশ
ধ্যানমন্ত্রে তব।
ধ্বজা করি উড়াইব বৈরাগীর উত্তরীবসন —
দরিদ্রের বল।
‘একধর্মরাজ্য হবে এ ভারতে’ এ মহাবচন
করিব সম্বল।।

মারাঠির সাথে আজি, হে বাঙালি, এক সঙ্গে চলো
মহোৎসবে সাজি।
আজি এক সভাতলে ভারতের পশ্চিম-পুরব
দক্ষিণে ও বামে
একত্রে করুক ভোগ একসাথে একটি গৌরব
এক পুণ্য নামে।।

অর্থাৎ যে অখণ্ডতার ডোরে বর্তমানে বাঁধার চেষ্টা চলছে সমগ্র ভারতবর্ষকে ঐক্য, সংহতি, অগ্রগতি ও নিরাপত্তার স্বার্থে, এই কবিতাটি সেই বার্তাই বহন করছে। আঞ্চলিকতার ক্ষুদ্র স্বার্থ ভুলে বৃহত্তর স্বার্থে কোন একজনকে নেতৃত্বে বরণ করে নিয়ে তাঁর প্রতি পূর্ণ সহযোগিতার কথাই বলেছেন রবীন্দ্রনাথ এই ‘শিবাজি-উৎসব’ কবিতায়।

চরিত্রগঠনের জন্য নৈতিকতা, আত্মমর্যাদাবোধ ও জাতীয়তাবোধের একাত্মীকরণ প্রতিফলিত হয়েছে ‘প্রার্থনাতীত দান’ কবিতাটিতে। একজন শিখকে জাতিগতভাবে অপমান করতে চায় পাঠান নবাব। তরুসিং শিখেদের অপমান সহ্য করে নিজের প্রাণরক্ষা করার চেয়ে নিজের প্রাণত্যাগ করে জাতির মানরক্ষা করাই শ্রেয় মনে করে। জাতীয়তাবাদী চরিত্রগঠনে প্রতিটি কিশোর-কবিতাই নিজগুণে অনন্য।

পাঠানেরা যবে বাঁধিয়া আনিল
বন্দী শিখের দল–
সুহিদ্গঞ্জে রক্তবরন
হইল ধরণীতল।

নবাব কহিল, “শুন তরুসিং,
তোমারে ক্ষমিতে চাই!”
তরুসিং কহে, “মোরে কেন তব
এত অবহেলা, ভাই।”
নবাব কহিল, “মহাবীর তুমি,
তোমারে না করি ক্রোধ;
বেণীটি কাটিয়া দিয়ে যাও মোরে,
এই শুধু অনুরোধ।”
তরুসিং কহে, “করুণা তোমার
হৃদয়ে রহিল গাঁথা —
যা চেয়েছ তার কিছু বেশি দিব,
বেণীর সঙ্গে মাথা।”

কিংবা ধরুন যুদ্ধের ডাক (war cry) তাঁর “শঙ্খ” কবিতায়! চারদিকে যখন এত অস্থিরতা, অন্যায়, তখন সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে ধর্মযুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান!

তোমার শঙ্খ ধুলায় প’ড়ে, কেমন করে সইব!
বাতাস আলো গেল মরে, একি রে দুর্দৈব!
লড়বি কে আয় ধ্বজা বেয়ে, গান আছে যার ওঠ-না গেয়ে,
চলবি যারা চল্ রে ধেয়ে— আয় না রে নিঃশঙ্ক।
ধুলায় প’ড়ে রইল চেয়ে ওই-যে অভয় শঙ্খ।।…

তোমার কাছে আরাম চেয়ে পেলেম শুধু লজ্জা।
এবার সকল অঙ্গ ছেয়ে পরাও রণসজ্জা।
ব্যাঘাত আসুক নব নব— আঘাত খেয়ে অচল রব,
বক্ষে আমার দুঃখে তব বাজবে জয়ডঙ্ক।
দেব সকল শক্তি, লব অভয় তব শঙ্খ।।

যদিও এমন একটা একটা করে উদাহরণ দিতে যাওয়া চরম মূর্খামি। কারণ শেষ হবে না। আমি কেবল বলতে চেয়েছি যে জাতীয়তার আদর্শ যাঁরা প্রকাশ ও বিস্তার করতে চাইবেন তাঁরা রবীন্দ্রনাথকে বর্জন করবার অবিমৃশ্যকারিতা কেন করবেন? রবীন্দ্রসাহিত্যে জাতীয়তাবোধের যত রসদ আছে, তার সবটা যদি পাঠ্য তালিকায় আনতে হয়, তবে ছাত্রদের অন্য কোন সাহিত্য পড়ার অবকাশ আর থাকবে না।

অতএব যাঁরা এই অপপ্রচার করছেন বা অপপ্রচার হোক, এটা চাইছেন, তাঁরা দয়া করে বিরত হোন কারণ ব্যাপারটি ক্রমশঃ হাস্যকর হয়ে উঠছে এবং যাঁরা করছেন, তাঁরা দ্রুততর গতিতে বিশ্বাসযোগ্যতা হারাচ্ছেন।

রবীন্দ্রসাহিত্যে দেশাত্মবোধ: কয়েকটি কিশোর-পাঠ্য নমুনামাত্র

বিজেপি মৎস্যপ্রিয় বাঙালীর খাদ্যাভ্যাসে আক্রমণ হানিবে, বিদ্যালয়-শিক্ষায় রবীন্দ্রসাহিত্য পাঠের সুযোগ রাখিবে না, এমন সকল প্রচারবাণী যখন গণমাধ্যমগুলি হইতে নির্গত হইতেছেই, তখন ফিরিয়া দেখার প্রয়োজন রহিয়াছে বৈ কি যে জাতীয়তাবোধের পুনর্জাগরণের জন্যও রবীন্দ্রসাহিত্য এক অব্যর্থ মহৌষধ। তাঁহার সেই কিশোর-পাঠ্য রচনাগুলি আজও সমকালীন ও জাতীয়তাবাদী নৈতিক চরিত্রগঠনের অব্যর্থ ঔষধ।

রবীন্দ্রনাথ সম্বন্ধে লিখিবার কথা হইলেই এক দুর্বহ ধৃষ্টতা-আক্রান্ত হই আমি। জানি না কেন! তাঁহার ভাষার অনুকরনে লিখিবার সাধ যায়! ঐ কুব্জ্য ব্যক্তির আপন পৃষ্ঠে চিৎ হইয়া শয়ন করিবার অলভ্য ও অসম্ভব সাধের ন্যায়! আপনারা যাঁহারা এই লেখাটি পড়িবেন, তাঁহারা দয়া করিয়া, নিজগুণে আমার উক্ত ধৃষ্টতা মার্জনা করিবেন, ইহা আমার একান্ত সনির্বন্ধ অনুরোধ!

মহারত্নাকর হইতে রত্ন সংগ্রহ করিতে গেলে চয়ন করিয়া সংগ্রহ করা অসম্ভব, কারণ সপ্তমহাসমুদ্র সত্যই সর্ব প্রকার রত্নের আকর। তাহার গভীরে একবার নিমজ্জিত হইলে হৃদয়ের সকল বোধ, সকল অনুভূতি এমনই প্রগাঢ়ভাবে তাহাতে মিশে যে তখন আর তাহা হইতে রত্ন বাছিয়া লইবার অবকাশ বা সামর্থ্য থাকে না। বিস্তর বিলাসসামগ্রীর পসরার মাঝে বিলাসী রমনীর যেমন দিশাহীন অবস্থা হয়, কি ছাড়িবে আর কোনটি লইবে তাহাই বুঝিয়া উঠিতে পারে না, এ-ও তেমনি। আপনি সকল আত্মা তাহাতে নিমজ্জমান হয়। আর মুষ্টিবদ্ধ হস্ত সমুদ্রের রত্নগর্ভ হইতে একবারে যতটুকুমাত্র উঠাইয়া লইতে পারে, মুষ্টি প্রসারণ করিলে দেখা যায় যে অতটুকু স্বল্পপরিসরেও সর্বপ্রকার রত্নেরই দীপ্যমান উপস্থিতি। তাহা হইতে আপন পছন্দটি বাছিয়া লইতে কতক্ষণ?

রবীন্দ্রসাহিত্য সেই মহাব্রহ্মরত্নাকর। তাঁহার সাহিত্যের অনন্ত ভাণ্ডার হইতে জাতীয়তাবোধ-প্রকাশের নিমিত্ত কয়েকটি সামান্য নমুনামাত্র রাখিব।

(এবার বাবা ফিরে আসি নিজের স্বাভাবিক ভাষায়! আর ধক্ নেই!😂😂)
প্রতিনিধি: কথা ও কাহিনী

শিবাজির যে গেরুয়া পতাকা আজ মহারাষ্ট্রের শিবসৈনিকদের ভাগবা ঝাণ্ডা তা কিভাবে শিবাজির পতাকা হয়ে উঠেছিল গুরু রামদাসের ভক্তিশিক্ষার প্রভাবে, সেই কাহিনীই বর্ণনা করে এই ‘প্রতিনিধি’ কবিতা। তারই কিছু কিছু অংশ মনে করতে চাই।

“বসিয়া প্রভাতকালে সেতারার দুর্গভালে
শিবাজি হেরিলা এক দিন–
রামদাস, গুরু তাঁর, ভিক্ষা মাগি দ্বার দ্বার
ফিরিছেন যেন অন্নহীন।…

সমাপন করি গান সারিয়া মধ্যাহ্নস্নান
দুর্গদ্বারে আসিলা যখন
বালাজি নমিয়া তাঁরে দাঁড়াইল এক ধারে
পদমূলে রাখিয়া লিখন।
গুরু কৌতূহলভরে তুলিয়া লইলা করে,
পড়িয়া দেখিলা পত্রখানি–
বন্দি তাঁর পাদপদ্ম শিবাজি সঁপিছে অদ্য
তাঁরে নিজ রাজ্য-রাজধানী।

পরদিনে রামদাস গেলেন রাজার পাশ;
কহিলেন, “পুত্র, কহো শুনি,
রাজ্য যদি মোরে দেবে কী কাজে লাগিবে এবে–
কোন্ গুণ আছে তব গুণী।”
“তোমারি দাসত্বে প্রাণ আনন্দে করিব দান”
শিবাজি কহিলা নমি তাঁরে।
গুরু কহে, “এই ঝুলি লহ তবে স্কন্ধে তুলি,
চলো আজি ভিক্ষা করিবারে।”…

গুরু কহে, “তবে শোন, করিলি কঠিন পণ,
অনুরূপ নিতে হবে ভার–
এই আমি দিনু কয়ে মোর নামে মোর হয়ে
রাজ্য তুমি লহ পুনর্বার।
তোমারে করিল বিধি ভিক্ষুকের প্রতিনিধি,
রাজ্যেশ্বর দীন উদাসীন;
পালিবে যে রাজধর্ম জেনো তাহা মোর কর্ম,
রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন।
বৎস, তবে এই লহো মোর আশীর্বাদ-সহ
আমার গেরুয়া গাত্রবাস;
বৈরাগীর উত্তরীয় পতাকা করিয়া নিয়ো।”
কহিলেন গুরু রামদাস।

“রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন”, এই উপদেশটি, আমাদের আপাদমস্তক দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে কেউ বোধ করি দেয় নি! তাঁদের তো কোন গুরু রামদাস নেই! তাই আজ ‘ভ্রষ্টাচার-মুক্ত ভারত’ গঠন করতে গেলেও রবীন্দ্রসাহিত্যের শরনাপন্ন হতে হবে বৈকি।

“রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন”, এর মর্মার্থ আজ আরও বেশী প্রাসঙ্গিক। কারণ গুরু রামদাস চেয়েছিলেন রাজা হওয়া সত্ত্বেও শিবাজি রাজকর্ম করবেন রাজমোহ থেকে মুক্ত হয়ে। আর আজ যাঁরা দেশপাট সামলাচ্ছেন তাঁরা তো রাজাও নন, সামান্য জনপ্রতিনিধিমাত্র। তাঁদের তো পূর্ণ মোহমুক্তই থাকা উচিত। কিন্তু বাস্তব কি নির্লজ্জ রকমভাবে আলাদা তা ভারতবর্ষের সাধারণ নাগরিকমাত্রেই জানি।

আজ সেই সন্ন্যাসীর উত্তরীয় ভাগবা ঝাণ্ডা নিয়ে শিবাজি মহারাজের শিবসৈনিকরা কি করছেন, তা-ও অতি অনায়াসেই দ্রষ্টব্য! আজ, ২৫ শে জুলাই, মুম্বই এর ঘাটকোপরে চারতলা বাড়ি ভেঙ্গে পড়েছে এবং BMC বাস্তবে তার নৈতিক দায় অস্বীকার করতে চাইছে। অথচ BMC র জন্য বরাদ্দ অর্থের কোন ঘাটতি আছে, এমন কথা বিশ্বনিন্দুকেও বলবে না। অতএব বোঝাই যাচ্ছে গুরু রামদাসের সেই উপদেশ রবীন্দ্রলেখনীতে “রাজ্য লয়ে রবে রাজ্যহীন” কত গভীর ও বিস্তৃতভাবে প্রচারিত হওয়া দরকার!

যে অখণ্ড ভারত গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন শিবাজি, তাকেও যথার্থ লিপিবদ্ধ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। উদ্ধৃত করছি তারও কিছু অংশ। আজ আবারও প্রাসঙ্গিক সেই রচনা। এখন যখন ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী ‘এক ভারত, উন্নত ভারত’ মন্ত্রে সমস্ত ভারতবর্ষকে এক করে দেখতে চাইছেন তখন রবীন্দ্রনাথের এই কবিতাটি নতুন করে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। বিশাল এই কবিতার কয়েকটি লাইন সকলকে মনে করিয়ে দিতে চাই…

‘শিবাজি উৎসব’

…হে রাজা শিবাজি,
তব ভাল উদ্ভাসিয়া এ ভাবনা তড়িৎপ্রভাবৎ
এসেছিল নামি–
‘একধর্মরাজ্যপাশে খণ্ড ছিন্ন বিক্ষিপ্ত ভারত
বেঁধে দিব আমি।’

সেদিন শুনি নি কথা — আজ মোরা তোমার আদেশ
শির পাতি লব।
কণ্ঠে কণ্ঠে বক্ষে বক্ষে ভারতে মিলিবে সর্বদেশ
ধ্যানমন্ত্রে তব।
ধ্বজা করি উড়াইব বৈরাগীর উত্তরীবসন —
দরিদ্রের বল।
‘একধর্মরাজ্য হবে এ ভারতে’ এ মহাবচন
করিব সম্বল।।

মারাঠির সাথে আজি, হে বাঙালি, এক সঙ্গে চলো
মহোৎসবে সাজি।
আজি এক সভাতলে ভারতের পশ্চিম-পুরব
দক্ষিণে ও বামে
একত্রে করুক ভোগ একসাথে একটি গৌরব
এক পুণ্য নামে।।

অর্থাৎ যে অখণ্ডতার ডোরে বর্তমানে বাঁধার চেষ্টা চলছে সমগ্র ভারতবর্ষকে ঐক্য, সংহতি, অগ্রগতি ও নিরাপত্তার স্বার্থে, এই কবিতাটি সেই বার্তাই বহন করছে। আঞ্চলিকতার ক্ষুদ্র স্বার্থ ভুলে বৃহত্তর স্বার্থে কোন একজনকে নেতৃত্বে বরণ করে নিয়ে তাঁর প্রতি পূর্ণ সহযোগিতার কথাই বলেছেন রবীন্দ্রনাথ এই ‘শিবাজি-উৎসব’ কবিতায়।

চরিত্রগঠনের জন্য নৈতিকতা, আত্মমর্যাদাবোধ ও জাতীয়তাবোধের একাত্মীকরণ প্রতিফলিত হয়েছে ‘প্রার্থনাতীত দান’ কবিতাটিতে। একজন শিখকে জাতিগতভাবে অপমান করতে চায় পাঠান নবাব। তরুসিং শিখেদের অপমান সহ্য করে নিজের প্রাণরক্ষা করার চেয়ে নিজের প্রাণত্যাগ করে জাতির মানরক্ষা করাই শ্রেয় মনে করে। জাতীয়তাবাদী চরিত্রগঠনে প্রতিটি কিশোর-কবিতাই নিজগুণে অনন্য।

পাঠানেরা যবে বাঁধিয়া আনিল
বন্দী শিখের দল–
সুহিদ্গঞ্জে রক্তবরন
হইল ধরণীতল।

নবাব কহিল, “শুন তরুসিং,
তোমারে ক্ষমিতে চাই!”
তরুসিং কহে, “মোরে কেন তব
এত অবহেলা, ভাই।”
নবাব কহিল, “মহাবীর তুমি,
তোমারে না করি ক্রোধ;
বেণীটি কাটিয়া দিয়ে যাও মোরে,
এই শুধু অনুরোধ।”
তরুসিং কহে, “করুণা তোমার
হৃদয়ে রহিল গাঁথা —
যা চেয়েছ তার কিছু বেশি দিব,
বেণীর সঙ্গে মাথা।”

কিংবা ধরুন যুদ্ধের ডাক (war cry) তাঁর “শঙ্খ” কবিতায়! চারদিকে যখন এত অস্থিরতা, অন্যায়, তখন সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে ধর্মযুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান!

তোমার শঙ্খ ধুলায় প’ড়ে, কেমন করে সইব!
বাতাস আলো গেল মরে, একি রে দুর্দৈব!
লড়বি কে আয় ধ্বজা বেয়ে, গান আছে যার ওঠ-না গেয়ে,
চলবি যারা চল্ রে ধেয়ে— আয় না রে নিঃশঙ্ক।
ধুলায় প’ড়ে রইল চেয়ে ওই-যে অভয় শঙ্খ।।…

তোমার কাছে আরাম চেয়ে পেলেম শুধু লজ্জা।
এবার সকল অঙ্গ ছেয়ে পরাও রণসজ্জা।
ব্যাঘাত আসুক নব নব— আঘাত খেয়ে অচল রব,
বক্ষে আমার দুঃখে তব বাজবে জয়ডঙ্ক।
দেব সকল শক্তি, লব অভয় তব শঙ্খ।।

যদিও এমন একটা একটা করে উদাহরণ দিতে যাওয়া চরম মূর্খামি। কারণ শেষ হবে না। আমি কেবল বলতে চেয়েছি যে জাতীয়তার আদর্শ যাঁরা প্রকাশ ও বিস্তার করতে চাইবেন তাঁরা রবীন্দ্রনাথকে বর্জন করবার অবিমৃশ্যকারিতা কেন করবেন? রবীন্দ্রসাহিত্যে জাতীয়তাবোধের যত রসদ আছে, তার সবটা যদি পাঠ্য তালিকায় আনতে হয়, তবে ছাত্রদের অন্য কোন সাহিত্য পড়ার অবকাশ আর থাকবে না।

অতএব যাঁরা এই অপপ্রচার করছেন বা অপপ্রচার হোক, এটা চাইছেন, তাঁরা দয়া করে বিরত হোন কারণ ব্যাপারটি ক্রমশঃ হাস্যকর হয়ে উঠছে এবং যাঁরা করছেন, তাঁরা দ্রুততর গতিতে বিশ্বাসযোগ্যতা হারাচ্ছেন।

আর পড়তে পারেন