সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মোবাইলে বাবুলের পরকীয়ার বার্তা দেখেছিলেন মিতু!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৫, ২০১৭
news-image

 

*আপত্তিকর ২৯টি মেসেজ খাতায় লিখে রাখে মিতু *এ নিয়ে দাম্পত্য কলহ চরমে ওঠে

ডেস্ক রিপোর্টঃ

পরকিয়া প্রেমের এসএমএস নিয়ে পুলিশের সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতুর সঙ্গে দাম্পত্য কলহ ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গিয়েছিল হত্যার সাত মাস আগে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে বাবুল আক্তারের মোবাইল ফোনে মিতু আপত্তিকর কিছু এসএমএস দেখতে পান। সেখানে গায়েত্রী এম্মারর্সিং নামের এক ভারতীয় নারীর সঙ্গে তার শারীরিক সম্পর্কের তথ্য জানতে পারেন মিতু। এ নিয়ে বাবুল আক্তারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা শুরু হয় দুজনের মধ্যে।

মিতুর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, একদিন বাবুল আক্তার বিছানার উপর মোবাইল ফোন রেখে বাথরুমে যান। এসময় একটি এসএমএস আসে বাবুলের মোবাইলে। তখন মিতু এসএমএসটি চেক করে দেখতে পান একটি আপত্তিকর বার্তা। তখন মিতু মোবাইলটি বন্ধ করে বাসার স্টোর রুমে ফোনটি লুকিয়ে রাখেন। এরপর বাবুল আক্তার ফোন খোঁজাখুজি করলে মিতু ফোনের কথা পুরোপুরি অস্বীকার করেন। পরদিন বাবুল আক্তার বাসা থেকে বের হলে মিতু মোবাইলের সিম বের করে মোবাইলটি অন করেন। এরপর ওই মোবাইল থেকে ২৯টি এসএমএস পড়েন। পরে মিতু প্রমাণ হিসেবে ছেলের ছবি আঁকার আর্ট পেপারে তা লিখে রাখেন।

এদিকে মোবাইল না পেয়ে বাবুল আক্তার ট্রাকিং করে নিশ্চিত হন যে তার মোবাইল ফোনটি বাসাতেই রয়েছে। এই মোবাইল ফোন নিয়ে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চরমে পৌঁছে। বিষয়টি নিয়ে পরদিন মিতু ফোন দেন তার মায়ের কাছে।

মিতুর মা শাহেদা মোশারফ বলেন, “মেয়ে খুনের পর আমরা বাসা থেকে তার জিনিসপত্র ঢাকায় নিয়ে আসি। সেখানে মিতুর ছেলের স্কুলের আর্ট পেপারে ইংরেজি লেখা দেখতে পাই। লেখাগুলো মিতুর হাতের। পড়ে দেখি যে ঐসব মেসেজ বাবু’র (বাবুল আক্তার) মোবাইল ফোনে ভারতীয় নারী গায়ত্রী পাঠিয়েছিল। বাবুর মোবাইল ফোনে ঐসব মেসেজ দেখে মেয়ে আমার কাছে কাঁদতে কাঁদতে বলেছিল, ‘মা আমি এখন কী করব?’ তখন আমি বলেছিলাম, ‘কী করবি মা, মেয়ে মানুষের বিয়ে একবারই হয়। ধরে নিলাম তুই মরে গেছিস। এখন স্বামীর ঘরে কষ্ট করে থাক।”

ঐসব মেসেজ মিতুর হাতের লেখা কী না– এ ব্যাপারে          শাহেদা মোশারফ বলেন, ‘আমরা প্রয়োজনে এসব কাগজপত্র মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাদের কাছে দিব। তারা পরীক্ষা করে দেখুক এটি মিতুর হাতের লেখা কিনা।’

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান ইত্তেফাককে বলেন, ভারতীয় নারী গায়ত্রী ও বাবুল আক্তারের মধ্যে মোবাইল ফোনে মেসেজ আদান-প্রদানের কোনো তথ্য তিনি পাননি। মিতুর পরিবারের পক্ষ থেকে মিতুর হাতে লেখা এরকম মেসেজ তার কাছে জমা দেননি।

সাবেক এসপি বাবুল আক্তার এ ব্যাপারে বলেন, ‘সেটা মিতুর হাতের লেখা কিনা-সেটা তদন্ত করা হোক। গায়ত্রী নামের সেই কর্মকর্তা তো ৫ বছর আগে কক্সবাজারে কর্মরত ছিলেন। তখন তো আমি কক্সবাজারে ছিলাম না। কেউ হয়তো এ ধরনের মেসেজ তৈরি করে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।’

কি ছিল সেসব মেসেজে: মিতুর মায়ের দাবি করা একটি আর্ট পেপারে লেখা ২৯ টি মেসেজের সবগুলোই ইংরেজিতে লেখা। মেসেজগুলোতে গায়ত্রী ও বাবুলের মধ্যে গভীর ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। একটি মেসেজে এমন লেখা হয়েছে, ‘মাই পোয়েট মাই লাভ কাম টু মি’, ‘লাভ ইউ বেবি, গুড মর্নিং, কাম টু স্লিপ টু মি’।

গায়ত্রী এম্মারসিং জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক ইউএনএইচসিআর প্রতিষ্ঠানের বাংলাদেশে প্রতিরোধ শাখার একজন কর্মকর্তা হিসাবে কক্সবাজারে কর্মরত ছিলেন। ২০১৩ সালে তখন বাবুল আক্তার কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। বর্তমানে গায়ত্রী এম্মারসিং সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় কর্মরত আছেন।

 

আর পড়তে পারেন