সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মুরাদনগরে প্যারাসিটামল ও এন্টিবায়োটিক ঔষধের সংকট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১, ২০২১
news-image

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগরঃ

কুমিল্লার মুরাদনগরে বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজারে সকল প্রকার প্যারাসিটামল, এজিথ্রোমাইসিন, সেফিক্সিম, সেফুরক্সিম, ফেক্সোফেনাডিন ও মন্টিলুকাস্ট জাতীয় ঔষধের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন রোগী এবং তাদের স্বজনরা। চাহিদা অনুযায়ী ঔষধ না পেয়ে ব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা।

সরেজমিনে দেখা যায়, মুরাদনগর উপজেলার সর্ববৃহৎ বাজার কোম্পানীগঞ্জ, উপজেলা সদর, বাঙ্গরাবাজার, রামচন্দ্রপুর বাজার, মেটংঘর, শ্রীকাইল, গাজীরহাট, বিষ্ণুপুর, বাখরাবাদ, ছালিয়াকান্দিসহ সকল বাজারে নামীদামী কোম্পানী গুলোর প্যারাসিটামল, এজিথ্রোমাইসিন, সেফিক্সিম, সেফুরক্সিম, ফেক্সোফেনাডিন ও মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের ঔষধের সংকট দেখা যায়। মহামারীর এসময়ে ঔষধ সংকটের কারনে ভোক্তারা ফার্মেসী মালিকদের দোষারোপ করলেও অনুসন্ধানে চোখে পড়ে ভিন্ন চিত্র। হঠাৎ করে মানুষের জ্বর, ঠান্ডা,কাশিতে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থতার পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকের তুলনায় সরবরাহের তিন থেকে চার গুন বৃদ্ধি পেয়েছে এসব ঔষধের চাহিদা। তাই চাহিদার তুলনায় সরবরাহ না থাকায় বাজারে এসব ঔষধের সংকট দেখা দিয়েছে। কিছু কিছু ফার্মেসীতে অল্প পরিমাণ ঔষধ পাওয়া গেলেও তা বিক্রি হচ্ছে বেশি দামে।

কোম্পানীগঞ্জ বাজারের টি ভূইয়া ফার্মেসীর কর্ণধার নাইম ভূইয়া জানান, এসব গ্রুপের ঔষধের চাহিদা কয়েকগুন বেড়ে যাওয়ার কারণে আমরা কোম্পানী থেকে মাল পাচ্ছি না তাই এ সংকট দেখা দিয়েছে।

কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির কুমিল্লা জেলা কমিটির নির্বাহী পরিচালক আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, চাহিদার তুলনায় মার্কেটে ঔষধ সরবরাহ অনেক কম। তাই এ সংকট, এখানে ব্যবসায়ীদের কোন হাত নেই। কেউ বেশি দামে ঔষধ বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের মার্কেটিং রিপ্রেজেন্টিভ শাহাদাত আলী ও বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের মোশাররফ হোসেন জানান, স্বাভাবিকের তুলনায় মার্কেটে ঔষধের চাহিদা দশগুন বেড়ে গেছে সে অনুযায়ী কোম্পানীর উৎপাদন বাড়েনি। তাই চাহিদামত ঔষধ দেয়া যাচ্ছে না।

এই ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ নাজমুল আলম বলেন, বিষয়টি আমাকে কেউ অবগত করেনি। ব্যাপারটা খতিয়ে দেখা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিষেক দাশ বলেন, করোনার এই প্রকোপের সময় এসব ঔষধের সরবরাহ কম থাকা মোটেও কাম্য নয়। সংশ্লিষ্টদের কথা বলে ঔষধের সংকট সমাধানে সকলের সহযোগিতা চাওয়া হবে।

 

আর পড়তে পারেন