সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মুনিয়া চলে গেলো অসময়ে আমাদের সবাইকে আসামী বানিয়ে!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১, ২০২১
news-image

এ কে সরকার শাওন:

মুনিয়া নামের অর্থ আশা! বাবা মায়ের শত শত আশায় গুড়ে বালি দিয়ে সমাজকে কষে একটা চড় দিয়ে মুনিয়া চলে গেলো অসময়ে আমাদের সবাইকে আসামী বানিয়ে!

মুনিয়ার বাড়ি কুমিল্লায়। তার বাবা মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা। ঢাকার একটি কলেজে ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারের ছাত্রী। গত মার্চে গুলশানের একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেয়, যার মাসিক ভাড়াই ছিল ১ লাখ টাকা৷ সে লোভী ছিলো বোঝা যায়। লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু!  উচ্চাভিলাষী, লোভী, স্টাইলিষ্ট মেয়েদের বাবা মায়ের জন্য এটা আরো একটি মেসেজ! মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা বার বার হেরে যায় ভূমিদস্যু ও উমিচাঁদ গং বনিকদের নিকট! কারণ অর্থনৈতিক আনব্যালেন্সড বা অর্থের অসম বন্টননীতি! যে পর্যন্ত অর্থনৈতিক মুক্তি না আসবে এসব সংবাদ আমাদের হজম করতে হবে।

এখানে একটি কথা স্পষ্ট বলে রাখি কোন মেয়ের সাথে কোন ছেলের উদ্দেশ্যহীন বন্ধুত্ব হতে পারে না! এটা মনীষীরা বলে গেছেন! কোন ছেলে কোন একটি মেয়েকে এমনি এমনি গাড়ীর লিফ্ট দিবে না! এমনি এমনি উপকার করবে না। সব দানই প্রতিদান চায়। ছেলেটি ভিলেন হলে সরাসরি এটাক। নায়কোচিত হলে তলে তলে সুযোগ খোঁজে! এক সময় আগুনে মোমে গলে ভেসে বঙ্গোপসাগর হয়ে ভারত মহাসাগরে বিলীন!

অন্যদিকে মুনিয়ার বয়ফ্রেন্ড ছিল বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকের ছেলে। তার নামে মামলাও হয়েছে। তবুও কোন কোন পত্রিকা অভিযুক্তের নাম পর্যন্ত উল্লেখ করার সাহস প্রায়শই পায় না! অথচ মুনিয়ার বিস্তারিত পরিচয় উল্লেখ করেছে। ক্ষমতা ও বিত্তের সামনে ন্যায়বিচার নতজানু অসহায়।

কোটিপতির ছেলে তথা সমাজের এলিট শ্রেণীর কাছে এক বা একাধিক রক্ষিতা রাখা কোনো সমস্যা নয়, সমস্যা কেবল শরিয়ত মেনে একাধিক বিয়ে করায়! কাবিন ও রেজিষ্ট্রেশনের সমস্যা! চুপি চুপি ভোগ করে কলার ছোলার মত ছূড়ে ফেলা সহজ। নারীকে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে তার সন্তানের বাবা মেনে নেয়া বীরত্বের প্রতীক। ওটা কাপুরুষের কাজ নয়। প্রেমিকার সমুদয় দায়িত্ব পালন করে চিরদিন রাণীর আসনে বসানো প্রেমিকের কাজ। লম্পটের কাজ ইনিয়ে বিনিয়ে রিনরিনিয়ে জেনা করা। এরা নির্ঘাৎ জেনাকারী! সমাজে পথে ঘাটে ড্রেনের পাশে মশা মাছির মত জেনাকারী মেলে! প্রেমিক মিলে কোটিতে একজন!

কোটিপতির ছেলেদের বেশীর ভাগই দাম্ভিক ও বদ চরিত্রের। যেন তেন ভাবে কোটি কোটিপতি হলে যা হয়! যেই ভাবে উৎপত্তি সেইভাবেই বিনাশ তো হতে হবে!  বসুন্ধরার বিরুদ্ধে এর আগেও বসুন্ধরারই পরিচালক সাব্বির হত্যাকান্ডসহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে!  এবার দেখি আইন কোথায় গড়ায় না কি আইন নিজেই পালায় নাকি আত্মহত্যা করে!

লেখক: এ কে সরকার শাওন

আর পড়তে পারেন