সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মাদকে ভাসছে মেঘনা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২৫, ২০১৭
news-image

 

মেঘনা প্রতিনিধি :

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলা মাদকের জোয়ারে ভাসছে।উপজেলার মুগার চর, রাধানগর, মানিকার চর বাজার, চন্দন পুর বাজার, সাতানী বাজার, তুলাতুলী বাজার, টিটির চর, চালিভাংগা বাজার, রামপুর বাজার লুটেরচর বাজার, মোহাম্মদপুর বাজার, ওমড়াকান্দা ঘাট,আলিপুর ঘাট, সেননগর বাজার, মহেশ খোলা স্কুল মাঠে রাতের আধার হলেই জমে মাদকের হাট।মদ গাজা হেরোইন, ইয়াবা,সহ মাদকের ভয়াল ছোবলে মাদকাসক্ত হয়ে পরছে এলাকার স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রী।রাজধানী ঢাকার খুব কাছাকাছি, নৌপথে মাদক সরবরাহ করা এ উপজেলা থেকে সহজ, ফলে মাদকের মহা সিন্ডিকেট এলাকাটিকে মাদকের ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করছে।

পাশের রাষ্ট্র ভারত থেকে আসা মাদকের বড় চালান মুরাদ নগর উপজেলার রামচন্দ্রপুর লঞ্চ ঘাট থেকে নৌপথে রাতের আধারে প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে মেঘনার বিভিন্ন দূর্ঘম নদীর পার্শবর্তী এলাকায় এনে এ লাকার চাহিদা পূরন করে নৌপথে ঢাকা, না: গঞ্জ,মুন্সিগঞ্জ সহ বিভিন্ন এলাকায় সাপ্লাই দেয়া হচ্ছে।উল্লেখ যোগ্য মাদকের মধ্যে গাজা ও ইয়াবা সেবনের সংখ্যা মহামারি আকার ধারন করেছে মেঘনায়।মাদকের টাকা সংগ্রহ করতে না পারায় বিভিন্ন অপরাধ জনীত কর্মকান্ডে লিপ্ত হচ্ছে সেবন কারীরা। চুরি, ডাকাতি, চাঁদাবাজি, সাধারন মানুষের মধ্যে বিন্দু মাত্র মতের অমিল হলে বিভিন্ন প্ররোচনায় প্রভাবিত করে থানায় উভয় পার্টিকে সাদা কাগজে দরখাস্ত করিয়ে মিমাংসার নামে করছে বানিজ্য।অপরাধীরা অধিকাংসই মাদকাসক্ত এবং কোন না কোন প্রভাবশালী নেতার ছত্র ছায়ায় থেকে হীন কাজে লিপ্ত। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন মাঝে মাঝে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করলেও আইনের ফাঁকফুকুর  দিয়ে জামিনে এসে পূনরায় জড়িত হয় অপরাধে।

বিভিন্ন বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় মাদকের মহা সিন্ডিকেটের সাথে মেঘনা র বড় বড় ক্ষমতাধর রা জড়িত। মাদকের আগ্রাসনে অভিভাবক রা উদ্দিগ্ন হয়ে পড়েছেন।মহাসড়কের সাথে মেঘনা র সংযুক্ত হওয়ার পর থেকে এ আগ্রাসন অনেক বেরে গেছে।অপরাধীদের ঠেকানো প্রশাসনের নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে গেছে।স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনে পর্যাপ্ত জনবল ও ট্রান্সপোর্ট সুবিধা না থাকায় যথা সম্ভব ভূমিকা রাখা সম্ভব হচ্ছেনা।রাজনৈতিক অনৈক্য ও অনেকটা দায়ী বলে মনে করছেন সচেতন মহল।নাম প্রকাশে অ নিচ্ছুক সরকারদলীয় এক নেতা বলেন, রাজনীতির দ্বন্ধে বিভিন্ন অপরাধে,জড়িত ব্যক্তিরা সিনিয়র নেতার কাছের লোক হয়ে গেছে কারন নিজের বলয় কে ভারী করার জন্য মাঠে টিকে থাকার জন্য জেনে শুনেও অনেকে প্রশ্রয় দিচ্ছেন। এতে অপরাধীরা ক্ষমতার অপব্যবহার ও করছে। রাজনীতি র সমন্বয় থাকলে মাদক বলেন চোর বলেন কেউ ই অপরাধ কে প্রশ্রয় দিতনা।এমতা বস্তায় শংশ্লিষ্ট সকলে ঐক্যমতের ভিত্তিতে কাজ করে মাদকের আগ্রাসন থেকে মেঘনা কে মুক্ত করার জন্য অনুরোধ জানান অভিভাবক মহল।

এ দিকে মেঘনা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এস এম সামসুদ্দিন বলেন,আমি আসার পর থেকে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেছি ইতিমধ্যে অনেক কে গ্রেফতার ও করেছি । এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রনের মধ্যে ।আশারাখি ভবিষ্যতে আরো অভিযান করবো, মাদকের বিষয়ে কোন ছাড় নয়।

আর পড়তে পারেন