সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মাদকমুক্ত ইউনিয়ন গড়ার অঙ্গীকার করলেন কালিকাপুরের প্যানেল চেয়ারম্যান লিটন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৫, ২০১৮
news-image

 

সফিউল আলম ঃ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ৩ নং কালিকাপুর ইউনিয়নটি একটি ছোট শান্ত ইউনিয়ন । এখানে ২৩ টি গ্রাম নিয়ে মানুষের বসবাস। ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের পূর্ব পাশেই ১ কিলোমিটার দূরে ভারত সীমান্ত। আর তাই এই ইউনিয়নের জামমুড়া,জামপুর,কেকে নগর সহ সিমান্তবর্তীগ্রামগুলো এই উপজেলায় পরিচিত মাদক এর এলাকা হিসেবে । একসময় মাদক সেবি,মাদক ব্যাবসায়ীর যাতায়াত ছিল, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার এর আসা যাওয়া ছিল নিত্য দিনের চিত্র।কিন্তু এখন আর নেই সে রকম মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার এর আসা যাওয়া।মাদক সেবি ও মাদক ব্যাবসায়ীরা এখন আতংকিত ।

গত ইউনিয়ন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ এর প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ভিপি মাহাবুব হোসেন মজুমদার।উনার নির্বাচনী প্রথম কথা ছিল মাদক মুক্ত ইউনিয়ন গড়া,আর তারই ধারাবাহিকতায় শুরু হয় মোশারফ হোসেন লিটন এর কার্যক্রম । সমাজ এর যুবকদেরকে সাথে নিয়ে একসাথে মাদক বিরুদ্ধে এলাকায় রাত দিন পরিশ্রম করে অবৈধ মালামাল পাচার রোধ, মাদক দ্রব্য নিজহাতে আটক করে প্রশাসনকে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্হলে এনে আসামি হস্তান্তরসহ নানা কর্মকান্ড বাস্তবে রুপ দিয়ে দীর্ঘদিনের এই মাদক এর সর্বনাশা ছোবল থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন  এই মোশারফ লিটন।

উল্লেখ্য যে, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে বিএ অনার্স করা এই লিটন ১৯৯৮ সালে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ছিলেন,বর্তমান উপজেলা যুবলীগ এর প্রভাবশালী সদস্য ও ৩নং কালিকাপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার ও ইউনিয়ন পরিষদ এর প্যানেল চেয়ারম্যান।  জামমুড়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের তফাজ্জল হোসেন  এর সন্তান। উল্লেখ্য যে ৩নং কালিকাপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর প্রস্তাবিত নতুন ভবন এর সাথে এই লিটন মেম্বার সহ উনার পরিবার মিলে মসজিদ এর জন্য জায়গা ওয়াকফ করে দেন।

চৌদ্দগ্রাম ছাতিয়ানী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহঃপ্রধান শিক্ষক জামমুড়া গ্রামের  মামুনুর রহমান বলেন,লিটন মেম্বার এর এমনি মহৎ উদ্যোগ এর ফলে আজ আমরা আশে পাশের গ্রামের সকল মানুষ সচেতন হয়ে উঠেছি।এখন আর তেমন মাদকসেবি,মাদক ব্যাবসায়ী দেখা যায়না বললেই চলে ।

নোয়াবাজার এর একজন রিক্সা চালক বলেন, আমি আগে ছোট খাট মাদক ব্যাবসার সাথে জড়িত ছিলাম। কিন্তু লিটন মেম্বার একদিন আমার বাড়ীতে গিয়ে আমাকে কয়েকটা কথা বলে,আমি সাথে সাথে ব্যাবসা ছেড়ে দিয়ে এখন রিক্সা চালিয়ে সংসার চালাচ্ছি।

চেয়ারম্যান ভিপি মাহাবুব  বলেন, আমার মাদকমুক্ত ইউনিয়ন গড়ার অঙ্গিকারকে মোটামুটি বাস্তবায়ন করতে লিটন মেম্বার এর পরিশ্রমকে স্বাগত জানাই ।  আমরা অল্প কিছুদিনের মধ্য বাকী কার্যক্রম শেষ করে ঘোষনা দিব কালিকাপুর মাদক মুক্ত ইউনিয়ন ইনশাল্লাহ।

সীমান্তে ডিউটিরত বর্ডার গার্ড বিজিবির নায়েব সুবেদার জসিম উদ্দিন বলেন, সমাজের প্রতিটি মানুষ এই মেম্বার এর মত সচেতন সজাগ হলে মাদকমুক্ত সমাজ গঠন হবে।

লিটন মেম্বার জানান,  চেয়ারম্যান এর আন্তরিক প্রচেষ্টা ছিল। সবকিছুর অর্জন আমার একার নয়, আমাদের যুব সমাজ এর ভূমিকা রয়েছে এই সকল কার্যক্রমে।আর তাই আমরা এখন অনেকটা মাদকমুক্ত গ্রাম । মাদক সেবি/ব্যাবসায়ীর কলংকিত রোড এখন অনেকটাই মুক্ত। মাননীয় রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব এর জন্য দোয়া করবেন সবাই । উনার সহযোগিতায় আমরা এগিয়ে যাবো।

আর পড়তে পারেন