বুধবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

“মাতাল হাওয়া” চলচ্চিত্র নিয়ে আসছেন আব্দুর রহিম

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৯, ২০১৮
news-image

বিনোদন ডেস্ক

মোঃ আব্দুর রহিম ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি স্বল্পদৈর্ঘ চলচ্চিত্র নির্মাণ করে নিজ যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন। তিনি শীঘ্রই তার নতুন ছবি মাতাল হাওয়া শুটিং সম্পূর্ণ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন, ছবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন একেবারেই বাস্তবতা সমৃদ্ধ ও যুগউপযোগী গল্পের ছবি এটি।

বাস্তব জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত পরিবর্তন, চলার পথে জীবনকে নতুনভাবে সাজাতে মানুষকে বাধ্য করে। যদিও সেই পরিবর্তন কোন না কোন ঘটনার কারনে চলে আসে তার জীবনে।
তারই পরিপ্রেক্ষিতে অনেক বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে নতুন করে তাকে ভাবতে বাধ্য করে। তারপরও এই পরির্বতনের সাথে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে নতুন ভাবে জীবন চালানোর পরিকল্পনা করে। সেই কারণেই মানব জীবন অনেক বৈচিত্র্যময় তার অন্যতম কারন বৈচিত্র্যময় মন ।

অনেক সময়ই এই মন কঠিন হয় যা নিজেকে বোঝানো দাঁয় । গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট নিবেদিত , ৩য় চলচ্চিত্র নির্মাণ প্রশিক্ষন (স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা) কোর্স, এর চূড়ান্ত ডিপ্লোমা নির্মাণ চলচ্চিত্র  মাতাল হাওয়া
এতে বিভিন্ন চরিত্রে আভিনয় করেছেন-
মোঃ মাহবুব উদ্দিন এবং তার বিপরীতে রয়েছেন নাহার নাসরিন , এস আই ফারুক, খোন্দকার এরফান আলী বিপ্লব, তমাল, আরিয়ান ,আবির খাঁন,আব্দুর রউফ সাইফুল ইসলাম, মোঃ নজরুল ইসলাম , ও আরো অনেকে চিত্রগ্রহণ আছেন অনিক রহমান । রচনা চিত্রনাট্য ও পরিচালনা মোঃ আব্দুর রহিম।

তিনি আরো জানান মাতাল হাওয়া নির্মাণে যার সহযোগিতা কখনোই ভুলে যাবার নয়, খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা জনাব মানজারে হাসীন মুরাদ স্যার । এবং এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণে যিনি তার ম্যান্টর হিসাবে সহযোগীতা করে যাচ্ছেন তিনি হচ্ছেন খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা জনাব ফরিদুর রহমান স্যার ।

এই চলচ্চিত্রটির গল্প সমন্ধে তিনি বলেন একটি সুন্দর পরিবার ধবংস হয়ে যায় চোখের নিমিশেই স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কের টানা পোড়নে। আলাদা হয়ে যায় দুই জন, এর মধ্যেই সকল সুখ বিসর্জন দিয়ে ছেলেকে বড় করতে থাকে তার বাবা , হটাৎ এক মাতাল হাওয়া শুরু হয় কালো অধ্যায়, ছেলের ক্যান্সার ধরা পড়ে ফিরে আসে তার মা, একত্রিত হয় বাবা মা, কিন্তু বাস্তবতার কাছে নতি স্বীকার করতে হয় তাদের আর এভাবেই ইতি টানায়ার “মাতাল হওয়ার”।

বর্তমান সরকার ২০১৩ সালে আইন পাশের মাধ্যমে একটি সংবিধিবদ্ধ সংস্থা হিসেবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কারিগরি প্রশিক্ষণ, অধ্যয়ন ও গবেষণা পরিচালনা; সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, ওয়ার্কশপ আয়োজন; সম্মাননা, ডিপ্লোমা ও ডিগ্রি প্রদান এবং এতদসংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট সরকারের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান।
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট এবং এর প্রথম কোর্সের উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ তারিখে রাজধানীর দারুসসালামস্থ জাতীয় গণমাধ্যম ইন্সটিটিউট (নিমকো)- ক্যাম্পাসে নব গঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইন্সটিটিউট (বিএফটিআই)

প্রথম কোর্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে এই ইনস্টিটিউট প্রশিক্ষিত ও দক্ষ চলচ্চিত্র ও টিভি প্রোগ্রাম নির্মাতা ও কলাকুশলী গড়ে তুলতে এবং তাদের প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ব দরবারে টিকে থাকার উপযোগী সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র ও প্রোগ্রাম নির্মাণে অণুপ্রেরণা যোগাবে।
প্রধানমন্ত্রী ইনস্টিটিউট শিক্ষার্থীদের এমন চলচ্চিত্র ও টিভি প্রোগ্রাম নির্মাণের আহ্বান জানান যা মানুষের মানবিক গুণাবলী বিকাশ ঘটাবে। হানাহানি ও লোভ-লালসার বিরুদ্ধে দর্শকদের বিবেক জাগ্রত করে সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখে।
প্রধানমন্ত্রী আরো আশা প্রকাশ করে যে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট- সৃজনশীল, মেধাবী, দেশপ্রেমিক ও মানবিক মূল্যবোধে উদ্দীপ্ত জনগোষ্ঠী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে অন্যতম সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।
শিক্ষনীয় এবং পরিবারের সবাইকে নিয়ে দেখার মতো চলচ্চিত্র নির্মাণের উপরও  গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী।

আর পড়তে পারেন