শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মহাসড়কে ২৩ সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন, ভোগান্তিতে গাড়ির চালকরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৩০, ২০১৭
news-image

মোঃ বেলাল হোসাইন, চৌদ্দগ্রাম ঃ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে রয়েছে অর্ধশতাধিক সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন । এগুলো থেকে প্রতিদিন সিএনজি বেবি টেক্সি, প্রাইভেকার, মাইক্রোবাস, যাত্রীবাহী বাসসহ শত শত গাড়ি গ্যাস ভর্তি করে । কিন্তু গত ৬ মাস ধরে অন্তত ২৩ টি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনকে নানা অভিযোগে বাখরাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে গাড়ির মালিক ও চালকসহ সংশ্লিষ্টদের।
জানা গেছে, চৌদ্দগ্রাম থেকে দাউদকান্দি পর্যন্ত মহাসড়কে ২৩টি সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের সংযোগ বন্ধ করে দেয় বাখরাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ। এগুলোর বিরুদ্ধে রিফাইরিং, বিল অপরিশোধ ও অবৈধ সংযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগ তোলা হয়। বন্ধ করে দেয়া সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনগুলো হলো; আরএনআর সিএনজি, কুমিল্লা সিএনজি, খোরশেদ আলম সিএনজি, সাবরিয়া সিএনজি, খাজা সিএনজি, স্বজন সিএনজি, রাহামা সিএনজি, মুক্তি সিএনজি, বাংলা গ্যাস, তামজীদ সিএনজি, ভূঁইয়া সিএনজি, হাইওয়ে লিঙ্ক, মিয়াবাজার সিএনজি, এম এ খালেক সিএনজি, চিওড়া সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন, ডায়মন্ড সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন, রিভারভিউ সিএনজি, বিসমিল্লাহ সিএনজি, রানা আরাফাহ সিএনজি, সাকুরা সিএনজি, চৌধুরী সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন ও মল্লিকা সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন। এরমধ্যে প্রভাবশালীদের তৎপরতায় তড়িঘড়ি করে রহস্যজনক কারণে সংযোগ দেয়া হয়েছে রিভারভিউ, বিসমিল্লাহ, রানা আরাফাহ, সাকুরা, স্বজন, চৌধুরী ও মল্লিকা নামের সিএনজি ষ্টেশনে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যাংক ঋণ নিয়ে কার্যক্রম শুরু করে সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনগুলো। কিন্তু বাখরাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ফেলায় ষ্টেশনগুলো তাদের ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। দীর্ঘদিন ধরে ষ্টেশনগুলো বন্ধ থাকায় ষ্টেশন মালিকরা প্রায় দেউলিয়া হয়ে পড়েছে।
সিএনজি বেবি টেক্সি চালকরা অভিযোগ করেন, যোগাযোগ মন্ত্রণালয় কর্তৃক মহাসড়কে সিএনজি বেবি টেক্সি চলাচলে নিদিষ্ট সময় বেধে দেয়া হয়। সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনগুলো দূরে হওয়ায় বেবি টেক্সি নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে গ্যাসভর্তি করা কঠিন হয়ে পড়ে। এছাড়া নির্দিষ্ট সময়ের পরে বেবি টেক্সি চালালে পুলিশের নানা ধরনের হয়রানী ভোগ করতে হয়।
এ ব্যাপারে মেসার্স এম এ খালেক সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের মালিক আলহাজ্ব আবদুল খালেক জানান, কোন প্রকার পূর্ব নোটিশ ও অজুহাত ছাড়াই বাখরাবাদ আমার দুইটি ফিলিং ষ্টেশনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

আর পড়তে পারেন