বৃহস্পতিবার, ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মরণঘাতী ‘ড্যান্ডি নেশায়’ আসক্ত কুমিল্লার পথশিশুরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৩, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীবঃ
কুমিল্লা নগরের টাউন হল, জাংগালিয়া বাসস্ট্যান্ড, রেল স্টেশন সড়ক, পার্ক সহ বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিন দেখা মেলে তাদের। বয়স ১০ থেকে ২০ বছর। তাদের পেশা কাগজ কুড়ানো।

এদের হাতে টোকাইয়ের ঝোলার পাশাপাশি দেখা যায় একটি পলিথিন। কিছুক্ষণ পর পর মুখের সামনে পলিথিনটি ধরে শ্বাস নিতে দেখা যায়। পলিথিনের ভেতরে হলুদ রঙের কিছু বস্তু। এতে মাথা ঝিম ঝিম করে বলে তারা জানায়। এই নেশার নাম ‘ড্যান্ডি’।

নগরের ছন্নছাড়া এসব পথশিশু-কিশোরের বেশির ভাগ এখন ডুবে আছে ড্যান্ডি নামের বিশেষ পদ্ধতির এই নেশায়। নিজেদের কাজ করতে করতে প্রকাশ্যে ফুটপাতে কিংবা রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে তারা পলিথিন মুখে ধরে শ্বাস নেয়। তবে শিশু-কিশোরদের কাছে এটি নেশা হলেও মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের কাছে এটি মাদক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে না।

কুমিল্লা টাউনহল মাঠে শাওন নামের এক টোকাই ড্যান্ডি নেওয়ার ফাঁকে বলে, ‘ভেতরে জুতা কিংবা ফোমের কাজে ব্যবহূত আঠা রয়েছে। এই আঠা থেকে একধরনের গন্ধ বের হয়। ওই গন্ধ আমরা বারবার টানি। এতে মাথা ঝিম ঝিম করে।’

রফিকের সঙ্গে কথা বলার ফাঁকে এসে যোগ দেয় সুমন, আলী ও অন্যরা। কেন এটা নাও—এমন প্রশ্নে সবাই হেসে ওঠে। বলে, ‘ভালো লাগে। এটা নিলে একধরনের নেশা হয়।’ খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জুতা কিংবা ফোমে ব্যবহূত সলিয়শনটি (আঠা) তৈরিতে ব্যবহূত হয় স্প্রিট।

দীর্ঘক্ষণ এটি নাকে-মুখে শ্বাস নিলে মাথা ঝিম ঝিম করতে থাকে। পাশাপাশি আসক্তি তৈরি হয় বলে চিকিৎসকেরা জানান।

স্থানীয় কিছু লোকের সঙ্গে এ বিষয়ে আলাপ করলে তারা বলেন- এ ছোট ছোট বাচ্চারা যদি নেশাগ্রস্থ হয়ে পড়ে তাহলে আমাদের সমাজ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে। সামাজিক এ অধপতন ঠেকাতে সামাজিক প্রতিরোধের দাবি জানালেন তারা। তারা আরও বলেন- নেশা থেকে অনেক অপরাধের জন্ম হয়। নেশার টাকা জোগাড় করতে প্রথমে চুরি এবং পরে বড় ধরণের অপরাধের দিকে এগিয়ে যাবে এই শিশুরা।

তাই সকলে মিলেই এদের বোঝানোর পাশাপাশি প্রতিরোধ করতে হবে। তবে নেশাগ্রস্থ কয়েকজন শিশুর অভিভাবকের সাথে কথা হলে তারা জানান, আঠা দিয়ে নেশার কথা শুনে তারা শিশুদের বুঝিয়েছেন।

কিন্তু তাতেও কাজ না হলে মারধরও করেছেন। কিন্তু সংঘদোষে মাঝেমাঝেই তারা জড়িয়ে পড়ছে এ ভয়ঙ্কর নেশার জালে। তাই তাদের কাছে কেউ যাতে আটা বিক্রি না করে সে জন্য দোকানি ও আঠা সরবরাহকারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করলেন ভূক্তভোগী অভিভাবকরা।

আর পড়তে পারেন