মঙ্গলবার, ১২ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরগঞ্জে গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যেই ঘুরে বেড়াচ্ছে ইউপি চেয়ারম্যান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২১, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে প্রকাশ্যেই ঘুরে বেড়াচ্ছেন সরকার দলীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়া। তিনি ওই উপজেলার ঝলম দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

যৌতুক না দেয়ায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। গত ৮ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতের বিচারক ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। চেয়ারম্যান শাহীন জিয়ার দ্বিতীয় স্ত্রী আফরোজা কুসুম মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের পদে রয়েছেন।

আফরোজা কুসুমের দাবি, আদালতের জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানাটি মনোহরগঞ্জ থানায় গেলেও পুলিশ রহস্যজনক কারণে শাহীন জিয়াকে গ্রেফতার করছে না। উল্টো চেয়ারম্যান জিয়া প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এছাড়া জিয়া তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে তাকে হুমকি দিচ্ছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন জিয়া উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়কের পদে রয়েছেন। আর আফেরোজা কুসুম জেলা আওয়ামী মহিলা লীগের সহ-সভাপতি এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদকের পদে রয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আফরোজা কুসুম জানান, শাহীন জিয়া আমাকে বিয়ের পর থেকে প্রায়ই যৌতুকের জন্য নির্যাতন ও মারধর করেছে। আমি লজ্জা ও মানসম্মানের ভয়ে এসব কথা প্রকাশ না করে সবকিছু সমাধানের চেষ্টা করেছি। আমি তার কাছে সামাজিক স্বীকৃতি চেয়েছি, কিন্তু সে আমাকে স্বীকৃতি দিতেও টালবাহানা করে। স্বীকৃতি চাওয়ায় সে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে এবং প্রায়ই আমাকে নির্যাতন করে। এসব ঘটনায় গত বছর তার বিরুদ্ধে কুমিল্লার নারী ও শিশু আদালতে মামলা দায়ের করেছি। মামলা করায় জিয়া আমাকে হত্যার চেষ্টাও চালায়, হত্যা চেষ্টার ঘটনায় আমি থানায় তার বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছি।

আফরোজা কুসুম আরও জানান, আইনি প্রক্রিয়ায় ওই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে গত ৮ সেপ্টেম্বর ওয়ারেন্ট জারি করেছে। আমি নিজেই বিষয়টি থানার ওসি সাহেবকে জানিয়েছি। কিন্তু পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। উল্টো সে আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এছাড়া বিভিন্নভাবে আমাকে হুমকি দিচ্ছে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য। আমি তার ভয়ে এখন আতংকে দিন কাটাচ্ছি। তাকে দ্রুত গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানাচ্ছি।

এদিকে এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে অভিযুক্ত জিয়াউর রহমান ওরফে শাহীন জিয়ার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। এক পর্যায়ে তাকে অভিযোগের বিষয়ে কথা বলার অনুরোধ জানিয়ে তার মোবাইল ফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও তিনি সাড়া দেননি।

মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মো. মাহাবুল কবির বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। আমাদের কাছে গ্রেফতারি পরোয়ানার কপি এখনও আসেনি। পরোয়ানার কপি থানায় পৌঁছলে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকে গ্রেফতার করা হবে।
সূত্র:যুগান্তর

আর পড়তে পারেন