বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরগঞ্জে গৃহবধূকে অকটেন দিয়ে পুড়িয়ে মারার চেষ্টার অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৮
news-image

 

শাহাদাত হোসেন:

এক গৃহবধূর গায়ে ননদ ঢাললেন অকটেন, স্বামী ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়ে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দিলেন ! আগুন দাও দাও করে জ্বলে উঠলে প্রাণ বাঁচাতে দৌড়ে পুকুরের পানিতে যেতে চাইলেও পারেননি,তাকে স্বামীর পরিবারের অন্য সদস্যরা ধরে রাখে। এই বর্বরতার অভিযোগ করেন কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের তাজুল ইসলামের মেয়ে তাসলিমা আক্তার মুক্তা।

শুক্রবার হাসপাতালে গিয়ে জানা যায়- মুক্তার শরীরের ৩০ভাগ পুড়ে যায়। তিনি এখন হাসপাতালের বিছানায় দগদগে ঘা‘র যন্ত্রণা নিয়ে ছটফট করছেন। অভিযুক্ত স্বামী পাশের চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার দক্ষিণ দেবকরা গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে জহিরুল ইসলাম মিন্টু ও তার বোন খুরশিদা আক্তারসহ অন্যরা। এবিষয়ে শাহরাস্তি থানায় মুক্তার মা বাদী হয়ে তার স্বামী জহিরুল ইসলাম মিন্টু, ননদ খুরশিদা আক্তার,শ্বশুর ছিদ্দিকুর রহমান ও শাশুড়ি হামিদা বেগমসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। মামলা ও মুক্তার পরিবারের সূত্র জানায়,চার বছর আগে মিন্টু ও মুক্তার বিয়ে হয়। বিয়ের দুই মাস পরেই স্বামীর পরিবারে মুক্তাকে মেনে নিতে না পারা এবং মিন্টুর পরকীয়া নিয়ে দাম্পত্য কলহের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে তাদের জিসান(৩) নামের একটি ছেলের জন্ম হয়। দাম্পত্য কলহের জেওে ২০১৭সালের ১৩ ডিসেম্বর মুক্তাকে মারধর করে মিন্টু। বিষয়টি একই বাড়ির সচেতন ব্যক্তি ইউসুফ মোল্লাকে জানায় মুক্তা। ইউসুফ মোল্লাকে মারধরের বিষয়টি জানানোর কারণে স্বামীর ঘরে আসলে ননদ তার গায়ে অকটেন ঢেলে দেয় আর স্বামী ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়ে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে। এ ঘটনায় একই দিন মুক্তার মা মহিমা বেগম থানায় মামলা দায়ের করেন। মুক্তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দীর্ঘদিন রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে তার প্রাণনাশের আশংকায় তাকে কুমিল্লার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। মুক্তা বলেন,তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে স্বামী,ননদসহ অন্যরা গায়ে তেল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। তিনি তার ছেলেকে ফেরত চান। তিনি তাকে হত্যা চেষ্টাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চেয়েছেন। মুক্তার বাবা তাজুল ইসলাম বলেন,মামলার এতো দিন হয়ে গেলেও পুলিশ আসামি ধরছে না। তিনি তার মেয়ের হত্যা চেষ্টাকারীদের বিচার দাবি করেছেন। মুক্তার চিকিৎসক কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. মীর্জা তায়েবুল ইসলাম বলেন,আগুনে মুক্তার শরীরের অধিকাংশ পুড়ে গেছে। এখন সে শারিরীকভাবে সুস্থ হচ্ছে,তবে মানসিকভাবে সে অবসাদগ্রস্থ। অভিযোগ সম্পর্কে মুক্তার স্বামী জহিরুল ইসলাম মিন্টু বলেন,স্ত্রী নিজে নিজের গায়ে আগুন দিয়েছে। তিনি ওই দিন এলাকায় ছিলেন না। মূলত তার স্ত্রীকে শ্বাশুড়ি তার বাড়িতে আসত না দেয়া নিয়ে কিছু কথা কাটাকাটি হয়েছে। তিনি তাকে নির্যাতন বা আগুন লাগানোর সাথে জড়িত নন। এছাড়া পরকীয়ায়ও তিনি জড়িত নন। তিনি আগুন লাগালে ঢাকায় এক মাস রেখে চিকিৎসা করাতেন না বলেও জানান।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহরাস্তি থানার এসআই কুতুব উদ্দিন বলেন,বৃহস্পতিবার পুনরায় মুক্তার বক্তব্য রেকর্ড করেছি। আসামি ধরতে আমরা চেষ্টা করছি।

আর পড়তে পারেন