সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মতলব উত্তর উপজেলা হেলথ অ্যাসিসটেন্ট এসোসিয়েশনের টেকনিকেল পদমর্যাদাসহ চার দফা দাবিতে অবস্থান কর্মবিরতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১, ২০১৮
news-image

 

মো. দ্বীন ইসলাম :
টেকনিকেল পদমর্যাদাসহ চার দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসটেন্ট এসোসিয়েশন মতলব উত্তর উপজেলা শাখার উদ্যোগে কর্মবিরতিসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান কর্মসুচি পালন করেছে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে বেতন-ভাতা ও পদমর্যাদার ঘোষণা না দেওয়ায় ১ জানুয়ারি ২০১৮ইং সোমবার মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্ত্বরে প্রথম দিনের তাদের মা ও শিশুদের টিকাদান (ইপিআই) কার্যক্রম থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখাসহ অবস্থান ধর্মঘট কর্মসুচি পালন করে। সোমবার (১জানুয়ারী) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মিলনায়তনে বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন মতলব উত্তর উপজেলা শাখার ব্যানারে এ কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসুচি পালিত হয়।

এ উপলক্ষে বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসটেন্ট মতলব উত্তর উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক অজিত কুমার দাসের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসটেন্ট মতলব উত্তর উপজেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি রোকেয়া বেগম, যুগ্ম-সম্পাদক সারোয়ার আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন(২), অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ ফারুক মিয়া, সহ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক রুমিয়া আক্তার, দপ্তর সম্পাদক আঃ লতিফ, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক বুলবুলি আক্তার, সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক উম্মে সালমা, প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক বিম চন্দ্র দাস, ক্রীড়া ও সংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সাইদুজ্জামান, সম্মানিত সদস্য স্বাস্থ্য সহকারী মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ মিজানুর রহমান, আহসান উল্যাহ, উপজেলার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক স্বাস্থ্য সহকারী মোঃ মঞ্জুর আলম, স্বাস্থ্য সহকারী মোঃ মামুনুর রশিদ, উপজেলা কমিটির সদস্য অজুফা সরকার, স্বাস্থ্য সহকারী বিলকিস আক্তারসহ উপজেলার অন্যান্য স্বাস্থ্য সহকারীবৃন্দ।

সমাবেশে বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন মতলব উত্তর উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ কামাল হোসেন বলেন, তৃর্ণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্য সহকারীরা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। শিশু ও মাতৃমৃত্যু হ্রাস, যক্ষ্মা, ধনুষ্টংকার, ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণ, সংক্রামক ও অসংক্রামক ব্যাধি, অন্ধত্ব দূরীকরণে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখছেন তারা। স্বাস্থ্য সহকারীদের এসব কাজ টেকনিক্যালধর্মী হলেও সরকার টেকনিক্যাল পদমর্যাদা বাস্তবায়ন করছে না। এতে পদমর্যাদাসহ চরম বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন তারা। তিনি জানান, মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাস্থ্য সহকারীদের টেকনিকেল পদমর্যাদার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কাজেই আমরা বিশ্বাস করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কথায় ও কজে বিশ্বাসী। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা। তিনি তাদের যৌক্তিক ও ন্যায় সঙ্গত দাবী মেনে নিবেন এমনটাই আশা করেন। আমাদের দাবী পূরন হলে বা এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকরি কোনো ঘোষণা দেওয়া হলেই আমরা কর্মসুচি প্রত্যাহার করে কাজে ফিরবো। যতো দিন পর্যন্ত আমাদের এ দাবী আদায় না হবে, ততো দিন পর্যন্ত কেন্দ্রীয় পরিষদের ঘোষিত প্রতিটি কর্মসুচি পালন করা হবে।

তিনি আরো জানান, বেতন স্কেলসহ টেকনিক্যাল পদমর্যাদা, মূল বেতনের ৩০ শতাংশ মাঠ ভ্রমণ ভাতা, ঝুঁকি ভাতা, প্রতি ৬ হাজার জনসংখ্যার বিপরীতে একজন স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগের নিশ্চয়তা ও ১০ শতাংশ পোষ্য কোটা প্রবর্তনের দাবিতে তারা এ আন্দোলন করছেন।

আর পড়তে পারেন