সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ভিন্ন কৌশলে লালমাই-ময়নামতি পাহাড়ের মাটি কাটা অব্যাহত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১
news-image

 

কামাল উদ্দিন:

সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিনোদন পার্ক, রাস্তার উন্নয়ন বা সম্প্রসারণ, ব্যক্তি প্রয়োজন- যেকোনো নির্মাণকাজের জন্য সবার দৃষ্টিই সবচেয়ে আগে পড়ে লালমাই-ময়নামতি পাহাড়ের দিকে। পাহাড় কাটতে গিয়ে এখন নেওয়া হচ্ছে নতুন নতুন কৌশল। কখনও রাস্তার পাশে টিনের বেড়া দিয়ে কাটা হচ্ছে লালমাই পাহাড়; আবার কখন সামনের দিক ঠিকঠাক রেখে পেছনে কেটে সমতল। পাহাড়ের মাটি বিক্রির পর সমতল পাহাড়ই বিক্রি করার তৎপরতা দেখা গেছে কয়েকটি স্থানে। এসবের নেপথ্যে রয়েছে একাধিক চক্র।

সম্প্রতি পাহাড় ঘুরে দেখা গেছে এমনই চিত্র। বিভিন্ন কৌশলে পাহাড় দখল এবং পাহাড়ের ক্ষত-বিক্ষত অংশের দেখা মিলবে পুরো লালমাই-ময়নামতিজুড়ে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, জেলার সদর দক্ষিণের ধর্মপুর-কোটবাড়ি সড়কের বিজয়পুর ইউনিয়নের শ্রীবিদ্যা এলাকায় চলছে পাহাড় কাটা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক স্থানীয় বাসিন্দা জানান, ৭/৮ দিন আগে সড়কের পাশে টিনের বেড়া দিয়ে বিশাল একটি পাহাড় কাটা শুরু হয়েছে। রাতে কাটা হয় পাহাড়।

জামমুড়া এলাকায় ডাইনোসর পার্কের পেছনে গিয়ে দেখা যায়, বিশাল একটি পাহাড়ের রাস্তার পাশের অংশ ঠিক রেখে পেছনের অংশের মাটি কেটে সমতল করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, ১০-১২ জনের একটি চক্র পাহাড়টাই বিক্রি করে দেবে। ভালো দামের জন্য সমতল করে নিচ্ছে।

একই এলাকার বরুড়া সড়কেও পাহাড় কাটার চিত্র দেখা গেছে। পাহাড় ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন স্থানে মালিকানা দাবি করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে সাইনবোর্ড। সরকারি কিংবা ব্যক্তি মালিকানার পাহাড় অনুমতি ছাড়া কাটা দণ্ডনীয় অপরাধ হলেও বিভিন্ন অংশে কাটাকাটি চলছে। এর আগে রেল সড়কের উন্নয়ন, ফোর লেন সড়কসহ অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সড়কের প্রয়োজনে কাটা হয়েছে পাহাড়। এতে পরিবেশ বিপন্নের পাশাপাশি হারিয়ে যাচ্ছে ফলদ, বনজ, ঔষধি গাছ ও বিভিন্ন পশু-পাখি। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) সম্প্রসারিত প্রকল্পে প্রায় ২০০ একর অধিগ্রহণ করা জমির মধ্যে অধিকাংশ স্থানে পাহাড় থাকায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শর্তসাপেক্ষে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র পেয়েছিল। গত ১১ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো নির্মাণে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র চেয়ে আবেদন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১৬ আগস্ট পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে লালমাই পাহাড় কাটার বিষয়ে ‘পরিবেশগত প্রভাব নিরূপণের’ বিস্তারিত তথ্য জানতে চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়। এ বিষয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. আবু তাহের সমকালকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নের স্বার্থে হয়তো কিছু পাহাড় কাটতে হবে।

সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুভাশিস ঘোষ বলেন, লালমাই পাহাড়ের একটি বিশাল অংশ এ উপজেলায় অবস্থিত। রাতের আঁধারে কেউ কেউ পাহাড় কেটে থাকে। পাহাড় কাটার খবর পেলেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেওয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন, কুমিল্লা শাখার সভাপতি ডা. মোসলেহ উদ্দিন জানান, যারা পাহাড় কেটে নিচ্ছে, তারা প্রভাবশালী হলেও তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে শাস্তির মুখোমুখি করতে হবে।

পরিবেশ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপ-পরিচালক শওকত আরা কলি জানান, যখনই পাহাড় কাটার বিষয়ে কোনো তথ্য পাই তখনই আমরা স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করি।

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান  বলেন, জেলা প্রশাসন পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। লালমাই-ময়নামতি পাহাড় বাঁচাতে যখনই পাহাড় কাটার তথ্য আসে তখনই আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

আর পড়তে পারেন