সোমবার, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ভারত-চীন সীমান্তে নতুন উত্তেজনা, অবস্থান পাল্টেছে যুক্তরাষ্ট্র?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৮, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

প্রায় আড়াই মাস ধরেই প্রচণ্ড সামরিক উত্তেজনার সাথে যুদ্ধংদেহী অবস্থানে অনড় রয়েছে দুটি দেশ ভারত ও চীন। ভারত-ভুটান ও চীন সীমান্তের ডোকালাম মালভূমি এলাকাসহ ভারত-চীনের দীর্ঘ সীমান্তে অত্যাধুনিক যুদ্ধাস্ত্র নিয়ে ২৪ ঘন্টাই চোখে চোখ রেখে উভয় দেশের সেনারা সবোর্চ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। যে কোন সময়েই শুরু হতে পারমানবিক শক্তিধর ও বিশ্বের সর্বাধিক সেনা সংখ্যার দুটি সেনাবাহিনী মধ্যে ভয়াবহ যুদ্ধ। এমনি অবস্থায় ভারত-চীন সীমান্তের প্যাংগং লেকে তটরেখায় দুই দেশের সৈন্যদের হাতাহাতি-পাথর নিক্ষেপ উত্তেজনার আগুনে যেন ঘি ঢেলে দিয়েছে।ঘটনাটি ১৫ আগস্ট, মঙ্গলবারের। দিনটি ভারতের স্বাধীনতা দিবস। দুই দেশের চরম সামরিক উত্তেজনার মধ্যেও ভারত যখন তার ৭০তম স্বাধীনতা দিবস পালনে ব্যস্ত ছিল, ঠিক তখনই পশ্চিম হিমালয় পাদদেশে লাদাখের উভয়দেশের সীমানায় অবস্থিত প্যাংগং লেকপাড়ে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে হাতাহাতি ও পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) সকালে প্যাংগং লেকেপাড়ে ভারতীয় চারণভূমিতে ১৫ জন চীনা সৈন্য ঢুকে পড়ার চেষ্টা করলে তাদের বাধা দেয় সীমান্তে মোতায়েন ভারতীয় বাহিনী ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ (আইটিবিপি)। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয় এবং এক পর্যায়ে দু’পক্ষ পাথর ছোড়াছুড়িতে লিপ্ত হয়। তবে কোনরূপ গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেনি। এভাবে প্রায় দু’ঘণ্টার এ পাথর ছোড়াছুড়িতে সামান্য আহত হন কয়েকজন। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি আরো বেগতিক হয়ে গেলে দুই পক্ষই ব্যানার তুলে ধরে দাবি করে ওই এলাকা তাদের নিজেদের। পরে চীনা সৈন্যরা ফিরে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়ে আসে।ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের রাজ্য কাশ্মীরের হিমালয়ঘেঁষা অঞ্চল লাদাখে অবস্থিত প্যানগং হ্রদ। প্রায় সাড়ে চারশ’ বর্গকিলোমিটার আয়তনের প্যানগং হ্রদটির দুই-তৃতীয়াংশই চীনের নিয়ন্ত্রণাধীন। এই হৃদের মোট তটরেখার ৪৫ কিলোমিটার ভারতের এবং ৯০ কিলোমিটার চীনের মধ্যে পড়েছে যা চীনের তিব্বত থেকে ভারতের লাদাখ পর্যন্ত বিস্তৃত।

চীনের প্রতিক্রিয়া

প্যাংগং হ্রদের পাড়ে সংঘর্ষের ঘটনায় ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বেজায় চটেছে চীন। ভারতের গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, ভারতের স্বাধীনতা দিবসে চীনা সেনার সীমান্ত লঙ্ঘন এবং লাদাখে ঢুকে পড়ার ঘটনা ইচ্ছাকৃত, ভারত-ভুটান-চীন সীমান্তের ডোকলামে প্রায় আড়াই মাস ধরে দুই দেশের মধ্যে যে সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করছে তার প্রতিক্রিয়াতেই লাদাখে এই ঘটনা ঘটিয়েছে চীন।অন্যদিকে, লাদাখে সীমান্ত লঙ্ঘন ও চীনা সৈন্যের অনুপ্রবেশের অভিযোগ চীনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে অস্বীকার করে চীনের বিদেশমন্ত্রীর মুখপাত্র হুয়া চুনয়িং বলেন, লাদাখে দুই বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের কোনও খবর তার জানা নেই। বরং চীন-ভারত সীমান্তে শান্তি বজায় রাখতে চীন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।চীনা সৈন্যরা সব সময় ‘লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি)’ মেনে চলে দাবি জানিয়ে তিনি উল্টো নয়াদিল্লির প্রতি এলএসি মেনে চলার আহবান জানান। হুয়া চুনয়িং বলেন , ‘ভারতকে আমরা বলছি যে এলএসি এবং সংশ্লিষ্ট প্রথাগুলিকে মেনে চলুন।’

ভারতের নতুন কৌশল

তবে দুই দেশের উত্তেজনা প্রশমনে ভারত ভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। আড়াই মাস শত্রুর মুখোমুখি অবস্থান এবং স্বাধীনতা দিবসে সংঘর্ষের ঘটনায়ও নিরবতা পালন করছে ভারতের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে দেশটির গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়, চীন বিভিন্ন ভাবে ভারতের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে ঠিকই কিন্তু ডোকলাম থেকে ‘রণে ভঙ্গ’ দেওয়ার কোনও সুযোগ নেই। যত ক্ষণ না চীনা সৈন্যরা পিছু হটবে ততক্ষণ চাপের মুখে পাল্টা দাঁড়িয়ে থাকবে ভারতীয় সেনা।তবে সঙ্কট উপায় হিসেবে দুটি নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এক. কূটনৈতিক দৌড়ঝাঁপ বাড়িয়ে পারস্পরিক সমঝোতার রাস্তায় আসার চেষ্টা করা। এ ক্ষেত্রে নিজে থেকে উদ্যোগী হতেও পিছপা হবে না ভারত। দুই. চীনকে নিয়ে শীর্ষ পর্যায়ে যতটা সম্ভব কটূক্তি কমাতে হবে।

এ কারনেই প্যাংগং হ্রদের ওই সংঘর্ষের ঘটনায় ভারতের সেনা সদর দফতর অথবা প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুণ জেটলিও এ বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন। আশ্চর্যভাবে স্বাধীনতা দিবসের বক্তায় চীন নিয়ে সম্পূর্ণ নীরবতা পালন করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে স্বাধীনতা দিবসে হাতাহাতি-সংঘর্ষের ঘটনায় ভারতীয় সেনা সদর বা প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে কোন মন্তব্য করা হয়নি। তবে লাদাখে সংঘর্ষের খবর অস্বীকারও করা হয়নি।

সীমান্ত উত্তেজনা নিয়ে রয়টার্সের প্রতিবেদন চীনের প্রত্যাখান

চলমান ভারত-চীন উত্তেজনা কমাতে ডোকালাম সীমান্ত থেকে চীনা সৈন্য সরিয়ে নেওয়া হয়েছে, রয়টার্সের দেওয়া এমন খবর প্রত্যাখান করেছে চীন। ১৫ আগস্ট মঙ্গলবার রয়টার্সে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, উত্তেজনা প্রশমনে চীনা সৈন্যদের ২৫০ মিটার দূরে সরে যাওয়ার ভারতীয় দাবির পর চীন ১০০ মিটার সরে যাওয়ার পাল্টা প্রস্তাব দিয়েছে। তবে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মুখপাত্র খবরটির সত্যতা নাকচ করে জানান, এটা সত্য নয়। চীন কোনো পরিস্থিতিতেই তার ভূখণ্ডগত সার্বভৌমত্বে ছাড় দেবে না। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অপর এক বিবৃতিতে জানায়, সঙ্কট নিরসনে চীনের অবস্থান স্পষ্ট ও দৃঢ়। ভারতকে অবশ্যই অবিলম্বে এবং নিঃশর্তভাবে অনুপ্রবেশ করা এলাকা থেকে সরে ভারতের সীমান্তের ভেতরে যেতে হবে।এ বিষয়ে চায়নিজ একাডেমি অব সোস্যাল সায়েন্সেসের সীমান্ত এলাকা বিশেষজ্ঞ সান হঙনিয়ান বলেছেন, রয়টার্সের ‘ভুয়া খবর’টি সম্ভবত ভারত থেকে সৃষ্টি হয়েছে। দোকলামকে বিতর্কিত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করতেই তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

অপর দিকে, পিএলএ একাডেমি অব মিলিটারি সায়েন্সেস-এর গবেষক ঝাও জিয়াওঝু সীমান্ত বিশেষজ্ঞ সান হঙনিয়ানের মতামতের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করে বলেন, ভারতের ‘সম্পূর্ণ অযৌক্তিক’ দাবি চীন কখনো গ্রহণ করবে না। এর মাধ্যমে ভারতের লক্ষ্য হলো সিকিম ও তিব্বত নিয়ে গ্রেট ব্রিটেন ও চীনের মধ্যকার কনভেনশনটি বাতিল করা। তিনি আরো বলেন, চীন-ভারত সীমান্তে কেবল সিকিম সেক্টরেই দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা রয়েছে।

‘চীন-মার্কিন সামরিক চুক্তি’ ও সংলাপের আহবান যুক্তরাষ্ট্রের

দীর্ঘ দিন ধরেই বিভিন্ন ঘটনায় রাজনীতি-সামরিক শক্তি-বাণিজ্য-অর্থনীতিসহ উত্তর কোরিয়া ও দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের প্রতিযোগিতা আর অবিশ্বাসের সম্পর্ক তৈরী হয়েছে। এ নিয়ে প্রায়ই দুই দেশের সামরিক উত্তেজনাও দেখা দেয়। সর্বশেষ, দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের নির্মিত কৃত্রিম দ্বীপের ১২ নটিক্যাল মাইল কাছাকাছি যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর একটি ডেস্ট্রয়ার অবস্থান নিলে দুই দেশের সামরিক উত্তেজনা আরো বৃদ্ধি পায়। এরই মধ্যে দুই দেশের ‘ভুল বোঝাবুঝির ঝুঁকি’ কমাতে ‘চীন-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র’ একটি সামরিক চুক্তি করেছে। ভারত-চীন যুদ্ধ উত্তেজনার এমন মূহুর্ত্বে উঠতি চীনের পরাশক্তি চীনের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের এ চুক্তিতে ভারত কিছুটা ধাক্কা খেয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্লেষকেরা। কেননা, ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দীর্ঘকালের বন্ধুত্ব রয়েছে। ভারত আশা করেছিল চীনের সাথে উত্তেজনায় ভারতের পাশে দাঁড়াবে দেশটি।

সিএনএন এর খবরে জানানো হয়, ১৫ আগস্ট মঙ্গলবার বেইজিংয়ে চীনের পিপল’স লিবারেশন আর্মির সদর দফতরে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে জয়েন্ট চিফ অব স্টাফ মার্কিন মেরিন জেনারেল জো ডানফোর্ড এবং চীনের পক্ষে জেনারেল ফাং ফেঙ্গহুই ওই চুক্তি স্বাক্ষর করেন। চুক্তির পর মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, এই চুক্তির ফলে দুই দেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যকার ভুল বোঝাবুঝির ঝুঁকি কমাবে। চুক্তিটি এই সময়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ উত্তর কোরিয়ার মতো পারমাণবিক হুমকির মুখে রয়েছে অঞ্চলটি।তবে চুক্তিটির বিষয়ে চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ভারতের পক্ষ থেকেও আনুষ্ঠানিক কোন মন্তব্য পাওয়া যায় নি।

এদিকে চুক্তির পর, সীমান্ত সংকট নিরসনে চীন ও ভারতকে সংলাপের আহবান জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, মঙ্গলবার লাদাখ সীমান্তে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে পাথর ছোঁড়াছুড়ি ও বাকবিতণ্ডার ও ‘প্রতিরক্ষা চুক্তি’র এক দিন পরই এ আহবান জানানো হলো। বিশ্লেষকদের মতে, চীন-মার্কিন সামরিক চুক্তি ও উত্তেজনা কমাতে ভারত-চীনের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সংলাপের আহবানকে দেশটির অবস্থান পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেয়।

বর্তমান পেক্ষাপটে চীন এবং ভারতের মধ্যে আরেক দফা সংঘর্ষ হলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা কি হবে তা জানতে চাওয়া হলে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিথার নাউরাট বলেন, উভয় পক্ষকে সরাসরি আলোচনায় বসতে উৎসাহিত করছি।

প্রসঙ্গত, ভারত, ভুটান ও চীন সীমান্তের সংযোগস্থলে অবস্থিত হিমালয়ঘেঁষা সংকীর্ণ পাহাড়ি উপত্যকার নাম ডোকালাম। মধ্য জুনে ডোকলাম উপত্যকার পাশ ঘেঁষে চীনা সেনাবাহিনী সড়ক নির্মাণ শুরু করলে সেখানে প্রবেশ করে নির্মাণ কাজে বাধা দেয় ভারতীয় সৈন্যরা। মালভূমিটি ভুটানের বলে মনে করে নয়াদিল্লি ও থিম্পু, কিন্তু বেইজিংয়ের দাবি এটা চীনের। এরপর উত্তেজনা এতোই বাড়ে যে, দু’পক্ষই বাকযুদ্ধে জড়ানোর পাশাপাশি উভয় সীমান্তে ব্যাপক সৈন্য সমাবেশ ও যুদ্ধাস্ত্র মোতায়েন করে। উত্তেজনার এক পর্যায়ে ভারতের দু’টি বাংকারও গুড়িয়ে দেয় চীনা সৈন্যরা। তখন থেকেই দুই দেশ মুখোমুখি এবং কোন পক্ষই পিছু হটেনি।

অপর দিকে, লাদাখের ক্ষেত্রেও মালিকানা দাবি নিয়ে ভারত-চীন বিরোধ রয়েছে। দুটি দেশটি লাদাখের মালিকানা দাবিতে অনড় অবস্থানে রয়েছে। ওই এলাকার সীমান্ত নজরদারি ও নিরাপত্তা জোরদার করতে ওই এলাকার ফিঙ্গার ফোরে (লাদাখ সীমান্তের একটি কড়িডোর) চীন একটি সড়ক নির্মাণ করেছে, যা দুই দেশের সীমারেখা লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে। যা নিয়ে ইতোমধ্যে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

ভারত এবং চীনের এটাই দীর্ঘতম সীমান্ত সঙ্কট অর্থাৎ দুই দেশের মধ্যে সীমান্তের অশান্তি কখনও এত লম্বা সময় ধরে চলেনি। পূর্ব হিমালয়ের (ডোকলাম) অশান্তির মধ্যেই আবার লাদাখে নতুন করে সমস্যা তৈরি হলো। সাম্প্রতিক সময়ে উভয় দেশের মধ্যে উত্তেজনা এতটাই বেড়েছে যে, ১৫ আগস্ট মঙ্গলবার ভারতের স্বাধীনতা দিবসে রেওয়াজ অনুযায়ী নির্ধারিত সভায়ও যোগ দেয়নি চীনের সেনা কর্তৃপক্ষ, যা দীর্ঘ দিন ধরেই দুই দেশের মধ্যে চলে আসছিল।

আর পড়তে পারেন