বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ভাত দে হারামজাদা তা না হলে মানচিত্র চিরে খাব!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৭, ২০২১
news-image
হ্যাঁ লাইনটি কবি রফিক আজাদ সংকলিত কবিতার। আজ হঠাৎ একটি ১৩/১৪ বছরের কিশোরকে সিএনজি চালতে দেখে মনে পড়ে গেলো। কৈশোর ছেলেটির নাম মোজান্মেল।বাড়ি চাঁদপুরের কোন এক উপজেলায়। জানতে চাইলাম এত কম বয়সে সিএজি চালাও কেন? অনেকক্ষণ অপেক্ষা করেও উত্তর না পেয়ে ওর অবয়ব দেখে মনে হলে সে তার পরিচয় প্রকাশ করতে চায় না। বললাম থাক তোমার পরিচয় জানতে চাই না কিন্তু একটি কথার জবাব দাওতো এত অল্প বয়সে কেন সিএনজি চালাচ্ছ। এ প্রশ্নের উত্তর দিতেও সে খানিকক্ষণ সময় নিলো বুঝলাম সে কথা বলতে চায় না। শেষে অস্পষ্ট উত্তরে বললো আমরা ২ ভাই ৩ বোন। আমি ছোট থেকে দ্বিতীয়। বাবা অনেক বছর বাহারাইন থাকে। সংসার চলে না তাই সিএনজি চালাই। জানতে চাইলাম তোমারতো এখন লেখা-পড়া করার বয়স? উত্তর না দিয়ে সে মাথা নীচু করে থাকলো। ইতিমধ্যে কথার ফাঁকে আমি গন্তব্যে পৌঁছে গেছি। ভাড়া চুকিয়ে দিয়ে আমি আমার গন্তব্যে হাঁটটে থাকলাম আর ভাবছিলাম আসলে ‘ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূণিমা চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি।
কবি রফিক আজাদ সংকলিত সেই বিখ্যাত কবিতাটি পাঠকের উদ্যেশ্যে তুলে ধরলাম:-
ভীষণ ক্ষুধার্ত আছিঃ উদরে, শরীরবৃত্ত ব্যেপে
অনুভূত হতে থাকে- প্রতিপলে- সর্বগ্রাসী ক্ষুধা
অনাবৃষ্টি- যেমন চৈত্রের শষ্যক্ষেত্রে- জ্বেলে দ্যায়
প্রভুত দাহন- তেমনি ক্ষুধার জ্বালা, জ্বলে দেহ
দু’বেলা দু’মুঠো পেলে মোটে নেই অন্য কোন দাবী
অনেকে অনেক কিছু চেয়ে নিচ্ছে, সকলেই চায়ঃ
বাড়ি, গাড়ি, টাকা কড়ি- কারো বা খ্যাতির লোভ আছে
আমার সামান্য দাবী পুড়ে যাচ্ছে পেটের প্রান্তর-
ভাত চাই- এই চাওয়া সরাসরি- ঠান্ডা বা গরম
সরু বা দারুণ মোটা রেশনের লাল চাল হ’লে
কোনো ক্ষতি নেই- মাটির শানকি ভর্তি ভাত চাইঃ
দু’বেলা দু’মুঠো পেলে ছেড়ে দেবো অন্য-সব দাবী;
অযৌক্তিক লোভ নেই, এমনকি নেই যৌন ক্ষুধা
চাইনিতোঃ নাভি নিম্নে পরা শাড়ি, শাড়ির মালিক;
যে চায় সে নিয়ে যাক- যাকে ইচ্ছা তাকে দিয়ে দাও
জেনে রাখোঃ আমার ওসবের কোনো প্রয়োজন নেই।
যদি না মেটাতে পারো আমার সামান্য এই দাবী
তোমার সমস্ত রাজ্যে দক্ষযজ্ঞ কাণ্ড ঘ’টে যাবে
ক্ষুধার্তের কাছে নেই ইষ্টানিষ্ট, আইন কানুন-
সম্মুখে যা কিছু পাবো খেয়ে যাবো অবলীলাক্রমেঃ
থাকবে না কিছু বাকি- চলে যাবে হা ভাতের গ্রাসে।
যদি বা দৈবাৎ সম্মুখে তোমাকে ধরো পেয়ে যাই-
রাক্ষুসে ক্ষুধার কাছে উপাদেয় উপাচার হবে।
সর্বপরিবেশগ্রাসী হ’লে সামান্য ভাতের ক্ষুধা
ভয়াবহ পরিণতি নিয়ে আসে নিমন্ত্রণ করে।
দৃশ্য থেকে দ্রষ্টা অব্দি ধারাবাহিকতা খেয়ে ফেলে
অবশেষে যথাক্রমে খাবো : গাছপালা, নদী-নালা
গ্রাম-গঞ্জ, ফুটপাত, নর্দমার জলের প্রপাত
চলাচলকারী পথচারী, নিতম্ব প্রধান নারী
উড্ডীন পতাকাসহ খাদ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রীর গাড়ী
আমার ক্ষুধার কাছে কিছুই ফেলনা নয় আজ
ভাত দে হারামজাদা,
তা না হলে মানচিত্র খাবো।

আর পড়তে পারেন